বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন

আর্থিক বিশৃঙ্খলায় রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প

আর্থিক বিশৃঙ্খলায় রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ বাংলাদেশ-ভারত কয়লাভিত্তিক মৈত্রী বিদ্যুৎ প্রকল্প কেন্দ্র নির্মাণ আর্থিক বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়েই শেষ হবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞরা। এই বৃহত্তম প্রকল্পটি ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনের কাছে খুলনা জেলায় স্থাপন করার প্রস্তাবনা রয়েছে। যৌথ উদ্যোগে দুই দেশের নিজস্ব মালিকানাধীন অঞ্চলে এটি স্থাপিত হবে।
জ্বালানি অর্থনীতি ও আর্থিক বিশ্লেষণী সংস্থা (আইইইএফএ) জানিয়েছে, এই প্রকল্পে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ব্যয় ৩২ শতাংশের বেশি হবে যা বাংলাদেশের গড় থেকে অনেক বেশি। গড়ে এই প্রকল্পের উৎপাদন ক্ষমতা ৮০ শতাংশ। তা সত্ত্বেও এই প্রকল্পে অনেক ভর্তুকি দিতে হবে। বিনিয়োগকারী, করদাতা ও ভোক্তাদের উচ্চ ঝুঁকির আশঙ্কা রয়েছে, কারণ অনেক সম্পদ এই প্রকল্পে আটকা পড়বে। এই প্রকল্পের একজন নির্বাহী কর্মকর্তা ভারত সরকারকে কোন ভর্তুকি দিতে হবে না বলে জানিয়েছেন। শুধুমাত্র বাংলাদেশে ভারতীয় বিনিয়োগ বাড়াতে ভারতের এক্সিম ব্যাংকের মাধ্যমে ঋণ দেয়া হচ্ছে বাংলাদেশকে। এদিকে বাংলাদেশ-ভারত ফ্রেন্ডশীপ পাওয়ার কোম্পানি (বিআইএফপিসিএল)’র নির্বাহী পরিচালক উজ্জল ভট্টাচার্য বিদ্যুতের মূল্য সম্পর্কে কোন মন্তব্য করেন নি। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজন। যা ২০৩০ সালের মধ্যে কয়লাভিত্তিক অতিরিক্ত ৩০ হাজার মেগাওয়াটের অন্তত অর্ধেক অতিরিক্ত বিদ্যুৎ মজুদ করবে।
তিনি বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রই বাংলাদেশে একমাত্র কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হতে যাচ্ছে না। বিভিন্ন ব্যাংকের তহবিলের মাধ্যমে এখানে চীন, জাপান এবং মালয়েশিয়া বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আগে থেকেই নবায়নযোগ্য জ্বালানি ছিল। তবে নবায়নযোগ্য জ্বালানিকে প্রতিষ্ঠিত করতে ব্যাপক গবেষণার প্রয়োজন ছিল, বিশেষত সৌর বিকিরণ এবং উচ্চ হারের। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এনটিপিসি ও বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভলপমেন্ট বোর্ড (বিপিডিবি) এর যৌথ উদ্যোগে এই প্রকল্পটির নাম হবে বিআইএফপিসিএল। জেভি ৩০ শতাংশ (৫৪৬ মার্কিন ডলার ) বিনিয়োগ করবে এবং ভারতের সরকার এক্সিম ব্যাংকের মাধ্যমে ৭০ শতাংশ (১.৬ বিলিয়ন) ঋণ নেবে। আইইইএফএ এর প্রতিবেদনে বলা হয়, যদি সব উদ্যোক্তা এবং গ্রাহকরা আর্থিক ঝুঁকিতে পড়েন, এটি নির্দিষ্টভাবে ভারতীয় এক্সিম ব্যাংককে ঝুঁকির মধ্যে ফেলবে। ব্যাংক থেকে একটি বিপুল অঙ্কের ঋণ নিয়ে এই প্রকল্প গঠন করা হবে। এটি এক্সিম ব্যাংকের আন্তর্জাতিক তহবিল ক্ষমতাকে ঝুঁকিতে ফেলবে। একই সঙ্গে কয়লাভিত্তিক এই প্রকল্প ব্যাংককে পুন-অর্থায়ন ঝুঁকিতে ফেলবে।
ভট্টাচার্য মাতারবাড়িতে একটি জাপানি প্রকল্পের কথা উল্লেখ করেন। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কর্পোরেশন এজেন্সি (জাইকা)‘র ০.১ শতাংশ সুদের অর্থায়নে স্থাপিত হবে। তিনি বলেন, যদি এটি টেকসই না হয় তাহলে একটি ব্যাংক রামপালে অর্থায়ন করবে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, গড়ে চীন, যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের কয়লাভিত্তিক পাওয়ার প্লান্টের ধারণ ক্ষমতা ছিল ৫০-৬০ শতাংশ। ২০১৪-২০১৫ সালে বাংলাদেশে এর গড় ক্ষমতা ৬৩.৯ শতাংশ। এতে বলা হয়, কোন ভর্তুকি ছাড়াই বাংলাদেশের বর্তমান বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতার তুলনায় এর ব্যয় ৬২ শতাংশ বেশি।
আইইইএফএ রকফেলার ফ্যামিলি ফান্ড, এনার্জি ফাউনন্ডেশন, মার্তাজ-গিলমোর ফাউনন্ডেশন, মোক্সি ফাউনন্ডেশন, উইলিয়াম এন্ড ফ্লোরা হোউলেট ফাউন্ডেশন, রকফেলার ব্রোদার ফান্ড, গ্রোলাদ ফ্যামিলি ফান্ড, ফ্লোরা ফ্যামিলি ফান্ড, ওয়ালাক গ্লোবাল ফান্ড এবং ভি কান রাসমুসেন ফাউন্ডেশনের মত জনসেবামূলক সংস্থা থেকে তহবিল পায়। বাংলাদেশে সরকার এই প্লান্টটির ১৫ বছরের আয়কর অব্যাহতি দেয়ার পরিকল্পনা করেছে, যার মোট মূল্য ৯৩৬ মার্কিন ডলার। এছাড়া ভারতের এক্সিম ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে বর্তমান বাজার হারে ভারতীয় কর দাতাদের বাংলাদেশী ভোক্তাদের ৯৮৮ মিলিয়ন ভর্তুকি প্রদান করতে হবে। বাংলাদেশ কয়লা সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য ড্রেজিং পরিকল্পনায় বার্ষিক ২৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ভতুর্কি মঞ্জুর করেছে। ভট্টাচার্য বলেন, এই প্রকল্পের কার্যকারিতায় কোন সন্দেহ নেই, এবং বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য সরকার কর ছাড় দিচ্ছে।
প্রতিবেদনে এই প্রকল্পের ১০টি ঝুঁকির কথা বলা হয়েছে, এই প্রকল্প একটি দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার ঝুঁকিসম্পন্ন অঞ্চলে স্থাপন করা হচ্ছে যার কারণে বাংলাদেশ একটি বড় আর্থিক ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে। এছাড়া বাংলাদেশ সরকার বিদ্যুতের জন্য ঘাটতি বাজেট করেও সিস্টেমলস রোধ করতে পারবে না। এটি রামপালের গ্রাহক এবং সমর্থকদের জন্য বিরাট ঝুঁকি নিয়ে আসবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, উল্লেখ যোগ্য বিষয় হচ্ছে ভারতে এই ধরনের প্রকল্প কখনোই অনুমোদন পাবে না, কারণ বন বা পরিবেশগত স্পর্শ কাতর এলাকার ২৫ কি.মি এর মধ্যে কোন প্লান্ট নির্মাণ করা আইনত নিষিদ্ধ। রামপাল প্রকল্প ২০১০ সালের বিদ্যুত খাতের মহাপরিকল্পনার আওতাভুক্ত। যার লক্ষ্য হল বর্তমান গ্যাসভিত্তিক প্রকল্প বাদ দিয়ে বাংলাদেশের বিদ্যুত খাতে নতুন এবং বৈচিত্রপূর্ণ উৎস গঠন করা।
২০১৬ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশে স্থাপিত বিদ্যুতের ধারণ ক্ষমতা ছিল ১২.৩ জি.ডব্লিউ এবং ভারত থেকে আমদানি করা ৬০০ এম ডব্লিউ বিদ্যুৎ। মোট উৎপাদন ক্ষমতায় প্রাকৃতিক গ্যাসের অবদান ছিন ৬১.৮ শতাংশ। ফার্নেস অয়েল ও ডিজেল থেকে যথাক্রমে অনুসৃত ২১.৭ ও ৭.৮ শতাংশ। প্রাকৃতিক গ্যাসের পর্যাপ্ততার কারণে ব্যাপকভাবে গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুত উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। ২০১৫ সালের মার্চে বাংলাদেশে গ্যাসের মজুদ ছিল ১৪.৩ ট্রিলিয়ন কিউবিক ফুট।
সূত্র: বিজনেস ষ্ট্যান্ডার্ড

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com