বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বাহুবলে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ বালু ব্যবসায়ীকে ১৫ দিনের কারাদন্ড

বাহুবলে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান ॥ বালু ব্যবসায়ীকে ১৫ দিনের কারাদন্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল উপজেলার হরিতলার ধলিয়াছড়া বালু মহালে ভ্রাম্যমান আদালত গতকাল শুক্রবার আবারো অভিযান চালিয়েছে। এবার এক বালু ব্যবসায়ীকে হাতে নাতে আটক করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও মজুদ রাখার অপরাধে ‘বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা-২০১০ এর ১৫(১) ধারায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় ১৫ দিনের কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রম্যমান আদালত। ভ্রম্যমান আদালতের অভিযান টের পেয়ে বালু খেকোরা লেজ গুটিয়ে পালিয়ে যায়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট একেএম সাইফুল আলম। এসময় বাহুবল থানা পুলিশ আদালতের কার্যক্রমে সার্বিক সহযোগিতা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত আসামী বালু ব্যবসায়ী হচ্ছে হরিতলা গ্রামের মৃত আবুল হাসিমের পুত্র আব্দুল মালিক (৩০)। হরিতলার ধলিয়াছড়া বালু মহালটি বাহুবল উপজেলার সর্ব বৃহৎ বালুর খনি। যা জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন বলে জানা যায়। প্রতি বছর এই মহাল থেকে প্রায় ৩ কোটি টাকার বালু প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন হয়ে থাকে। চলতি বাংলা সনে ধলিয়াছড়া এই বালু মহালটি ইজারা দেয়া হয় নি। কিন্তু একদল বালু খেকো মহাল থেকে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে। এতে অবৈধভাবে টাকা কামাই করছে। টানা প্রায় ৪ মাস যাবৎ ধলিয়াছড়ার বালু হরিলুট চলতে থাকে। এতে ৭০-৮০ লাখ টাকার রাজস্ব হারিয়েছে সরকার। খোজ নিয়ে জানা যায়, পরিবেশের কথা চিনন্তা করে সরকার ওই মহালটি ইজারা প্রদান থেকে বিরত থাকে। কিন্তু অসাধু বালু খেকোরা যে হারে বালু উত্তোলন করে চলেছে তাতে পরিবেশ মারাত্মকভাবে হুমকীর সম্মুখীন সহ যে কোন সময় এলাকাটি ভূ-গর্ভে তলিয়ে যেতে পারে বলে বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন। এমনিতেই এলাকাটি কয়েক বছর আগের অবস্থান থেকে ১২-১৫ ফুট গভীরে দেভে গেছে। প্রতিদিন ওই এলাকা থেকে শত শত ট্রাক্টর বোঝাই বালু পাচার করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবারও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শাহরিয়ার জামিলের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হলে সেখানে কাউকে না পেয়ে আদালত ফেরৎ চলে যায়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com