রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
উৎসব মূখর পরিবেশে আজ হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন ॥ লড়াই হবে ত্রি-মুখি বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযান কালাশাহ সহ ৩ ডাকাত গ্রেপ্তার হবিগঞ্জে আরো ৬২৭ জন করোনা টিকা গ্রহণ করেছেন নবীগঞ্জ ৯নং বাউসা ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভা অনুষ্টিত হবিগঞ্জে উৎসব মুখর পরিবেশে সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব নবীগঞ্জে বিষ প্রয়োগে ২৫০টি হাঁস নিধন ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ নবীগঞ্জ উপজেলার কাউন্সিল কার্যক্রম সম্পন্ন চুনারুঘাটে মরহুম সফিক মিয়া স্মরণে ফ্রিজ কাপ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন হবিগঞ্জে নৌকার জয় হলে শেখ হাসিনার জয় হবে-ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নাঈম একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপির প্রার্থী সেলিমকে ধানের শীষে ভোট দিন-জিকে গউছ
খোশ আমদেদ মাহে রমজান

খোশ আমদেদ মাহে রমজান

এক্সপ্রেস রিপোর্ট ॥ আজ ১৭ রমজান। ২ হিজরীর এই দিনে ইসলামের ইতিহাসের প্রথম সশস্ত্র লড়াই (কিতাল) মদিনা মনওয়ারা হতে ৮০ মাইল দক্ষিণে লোহিত সাগর অবস্থিত বদর প্রান্তরে সংগঠিত হয়েছিল। সে দিন ছিল ৬২৪ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ মার্চ শুক্রবার। এ যুদ্ধ গাযওয়ায়ে বদর নামে অভিহিত হয়। এ যুদ্ধে মুসলিম বাহিনীর সিপাহসালার ছিলেন স্বয়ং প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম। এই বাহিনীর সৈন্য সংখ্যা ছিল মাত্র ৩১৩ জন। মক্কার কাফির মুশরিক বাহিনীতে সৈন্য সংখ্যা ছিল সহস্রাধিক। তাদের অস্ত্রশস্ত্রও ছিল প্রচুর। কিন্তু মুসলিম বাহিনীর তেমন কোন অস্ত্রশস্ত্র ছিল না। সেই রমজানেই তারা আল্লাহর বিধান অনুযায়ী সিয়াম পালন করছিলেন। তাঁদের সেই মজবুত ইমান এবং অপরিসীম নবীর প্রেম।
প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম ১৬ রমজান বৃহস্পতিবার বদর প্রান্তরে এসে উপস্থিত হন। এখানে পানির সংকট প্রকটভাবে দেখা দেয়। রাতের বেলায় আল্লাহর রহমতে মুসলদারে বৃষ্টি হওয়ায় পানি সংকট দূরীভূত হয়। প্রিয়নবী (সাঃ) সারারাত সিজদারত অবস্থায় কাতর স্বরে পাঠ করেন, ইয়া হাইয়্যূ, ইয়া কাইয়্যূম। সুবিহসাদিক হলে তিনি সিজদা থেকে উঠে সাহাবায়ে কেরামকে জাগালেন এই বলে, আল্লাহর বান্দারা জাগো, জাগো, সালাত সালাত। তার ইমামতিতে সবাই ফজরের নামাজ আদায় করলেন। তারপর সবাইকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে তিনি বললেন ঃ আল্লাহ তোমাদের যে কাজে উৎসাহিত করেছেন আমিও তোমাদের সেই কাজে উৎসাহিত করছি। যুদ্ধের সময় ধৈর্য্য ধারণ করলে আল্লাহ বিপদ কাটিয়ে দেন। এ চিন্তা দূর করে দেন। ১৭ রমজান শুক্রবার ভোর বেলা যুদ্ধ শুরু হল। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম সারিবদ্ধভাবে মুজাহিদগণকে দাঁড় করিয়ে তাঁদের বললেন, দুশমন নিকটবর্তী হলে তীর ছুড়বে। তারা আক্রমণ না করলে তোমরা আক্রমণ করো না।
তিনি আরো বললেন, যখন তারা তোমাদের সামনাসামনি হনে তখন তাদের প্রতিরোধ করবে। তিনি হাত তুলে মোনাজাত করলেন এই বলে, হে আল্লাহ, যে কুরাইশ দল তোমার সাথে দুশমনী করছে তোমার ইবাদত অস্বীকার করছে তোমার রসূলকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করছে। সেই কুরাইশ দল এগিয়ে আসছে গর্বের সঙ্গে, অহঙ্কার সহকারে। হে আল্লাহ তুমি সাহায্য দানের ওয়াদা করেছ, তুমি সাহায্য করো। হে আল্লাহ ওদের হালাক করে দাও।
বদরের যুদ্ধ আল্লাহ জাল্লা শানুহুর সাহায্য অবতীর্ণ হয়েছিল। কুরান মজিদে ইরশাদ হয়েছে বদরের যুদ্ধে তোমরা যখন হীনবল ছিলে আল্লাহই তো তোমাদের সাহায্য করেছিল। (সূরা আল ইমরান ঃ আয়াত ১২৩) বদরের যুদ্ধের এই বিজয় ইসলামের সুদূরপ্রসারি বিজয়ের সুরম্য সড়ক নির্মাণ করে দেয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com