সোমবার, ১৩ Jul ২০২০, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে ছাত্রলীগ নেতার লাশ উদ্ধার আজমিরীগঞ্জে রাস্তা ডুবে গ্রামে ঢুকছে কুশিয়ারার পানি শায়েস্তাগঞ্জে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ৯ লক্ষাধিক টাকার চেক বিতরণ করেছেন এমপি আবু জাহির সরকার কর্তৃক বরখাস্ত হলেও দলীয় পদে বহাল তবিয়তে মুকুল হবিগঞ্জে আরো ১০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নাভানা গ্রুপের অক্সিজেন কনসেনটেটর প্রদান মাধবপুরে মসজিদ ভাঙার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চাপা ক্ষোভ চুনারুঘাটে ট্রাক্টরের ধাক্কায় নারী নিহত ॥ ট্রাক্টর আটক শায়েস্তাগঞ্জের চোরাই মোটর সাইকেলসহ ২ ব্যক্তি আটক জলাবদ্ধতা ও সমস্যামুক্ত হবিগঞ্জ জেলা চাই গ্রুপ আয়োজিত ॥ অনলাইন ভিত্তিক সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতার বিজয়ীর পুরস্কৃত করলেন মেয়র
করোনা প্রতিষেধক

করোনা প্রতিষেধক

ক্যান্সার গবেষক অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম সরওয়ার গবেষণায় করোনা প্রতিষেধক।

আল্লাহর অশেষ রহমতে আমার নির্বাচিত প্রতিষেধক গ্রহন করার পর যদি কাহার ও শরীরে করোনা ভাইরাস ইনজেকশনের মাধ্যমে প্রবেশ করানো হয়, করোনা ভাইরাস শরীর হতে বাহির হয়ে যাবে।

(1) Arsenic Alb 30
(2) Silicea 1m
(3)Anagalis 1m
(4) Heper Sulph1m
(5) Ledum pal 1m
(6) Cantharis 1m
পর্যায়ক্রমে ১০ মিনিট অন্তর ১ফোটা করে, সকাল, দুপুর, রাত, দিনে ৩ বার ৬দিন সেবন করিবেন, খাবারের ১ ঘন্টা পূর্বে, ১মাস পর পর।
বাচ্চাদের জন্য ১ ফোটা ঔষধের সাথে ২০ ফোটা পানি মিশিয়ে, ১ফোটা হতে ১০ ফোটা বাচ্চাদের বয়স অনুপাতে সেবন করতে হবে। যেমন- ১০ বৎসরের বাচ্চাদের ১০ ফোটা পানি মিশ্রিত, ৫ বৎসরের বাচ্চাদের ৫ ফোটা পানি মিশ্রিত এবং ১ বৎসর নিছের বাচ্চাদের ১ ফোটা পানি মিশ্রিত ঔষধ সেবন করবে।

হাজার হাজার ক্যান্সার রোগী সুস্থ,
ভিজিট করুন “YouTube” ক্যান্সার গবেষক অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম সরওয়ার 01721224659
ভিজিট করুন “Facebook” Sheikh Soruwar,

ডোজ দেখে অনেক ডাক্তার ও ভয় পাচ্ছেন, ভয়ের কোন কারণ নেই ১০০% নিরাপদ, ঔষধ নির্দেশনা দিন,
পাশাপাশি করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের সর্দি, কাশি, জ্বর, গলা ব্যাথা,মাথা ব্যাথা, বুক ব্যাথা, শ্বাস কষ্ট, শরীর ব্যাথা থাকিলে লক্ষন অনুযায়ী ঔষধ নির্দেশনা দিবেন, একেত্রে অবশ্যই (১1) Bacilinum, (2) Acetanilidium, নামক ঔষধটি ব্যবস্থাপত্রে রাখবেন,
লবন গরম জল, গরম লেবুর শরবত,আধা, লংগ,এলাচি গুলমরিচ,তেজপাতা, থানকুনি পাতা,দারুচিনী, মধু, কালিজিরা,যুক্ত রং-চা সেবন করার নির্দেশনা দিবেন, দিন ৬ বার ২ঘন্টা পর পর। করোনা পজেটিভ হলে ও করোনা নেগেটিভ হয়ে যাবে।
মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথি চেয়ে এলোপ্যাথিকে পার্শপ্রতিক্রিয়া বেশী, তারা অনেক গুলো ঔষধ নির্দেশনা দেন, আমরা পারবনা কেন। সাহসী হয়ে সু-চিকিৎসা করুন, আমাদের মেটিরিয়া মেডিকায় যে ভাবে একটি ঔষধনির্দেশনা, ঠিক এলোপ্যাথিকেও
একটি ঔষধ নির্দেশনা, কিন্তু এখন মানুষের প্রতিদিনের সঙ্গী ফর্মালিন,কীটনাশক, ঔষধ, কালধোঁয়া ,নেশা, রেডিয়েশন, ধুলাবালি ইত্যাদির সাথে সরাসরি অথবা পরোক্ষভাবে জড়িত,যা হতে আগের মানুষ ছিলেন মুক্ত। মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এত বেশি ছিল যে অনেক মানুষ সারা জীবনে কোন ঔষধ সেবন করেননি, এমন মানুষদের সংখ্যাই ছিল অনেক বেশি। এখন একজন মানুষও নেই যে ঔষধ সেবন করে না, মায়ের গর্ভে যে দিন প্রবেশ করে সে দিন হতেই ঔষধ সেবন শুরু হয়ে যায়, আর যে দিন গর্ভ ছেড়ে পৃথিবীতে আসে সে দিন হতে শুরু হয় ইনজেকশন, ঔষধ, স্যালাইন ইত্যাদি, এখন তাদের সেই ঔষধের পার্শপ্রতিক্রিয়া আপনাকে মোকাবেলা করেই সু-চিকিৎসা করতে হবে,আর “অর্গানন” কে মহামান্য হ্যানীম্যন নিজের জীবনেই ৬ বার সংস্করণ করেছেন। যুগের পরিবর্তনে চিকিৎসাকে গবেষণার মাধ্যমে এগিয়ে নিতে হবে আপনাকে। মনে রাখবেন হোমিওপ্যাথিক এলোপ্যাথিকের চেয়ে দ্রুতগামী চিকিৎসা যদি সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়।

করোনা হতে মুক্ত থাকার জন্য, করোনা হতে বাঁচার জন্য মুখ, নাক,চোখ নিরাপদে রাখতে হবে। চোখে থাকবে সানগ্লাস অথবা বেষ্টনী চশমা, মুখে থাকবে মাক্স,সাবানে ২০ সেকেন্ড হাত পরিস্কার করা ছাড়া নাক,মুখ চোখে শরীরের কোথাও হাত দিবেন না,এমনকি কোন জিনিসেও হাত দেওয়া যাবে না। সুস্থ্য থাকার জন্য শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা হল প্রথম কাজ। তবেই আমরা সচেতন মানুষ হিসাবে করোনা হতে মুক্ত থাকব। উপরে উল্লেখিত ৬ টি ঔষধ
সেবন করলে, শরীরের নির্ধারিত ধাতুর বাহিরে অন্য কোন ধাতু বা করোনা ভাইরাস বা A TO Z যে কোন ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করতে পারবে না। তাই প্রতিটি মানুষকে এই ৬টি ঔষধ সেবন করতে হবে।আপনারা জানেন ঢাকা সামিবাগ ইসকনদের মন্দিরে ২৭ জন করোনা রোগী পজেটিভ হয়। করোনা পজেটিভ হওয়ার পর ২৭ জনই হোমিওপ্যাথি ঔষধ সেবন করেন এবং ২৭ জনই করোনা নেগেটিভ হয়ে সুস্থ্য হয়েছেন। আপনারা জানেন ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রীর নির্দেশনায় ৭৬ লক্ষ মানুষকে হোমিওপ্যাথি ঔষধ সেবন করানো হয় করোনা প্রতিষেধক।
ভারতের স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতিটি মানুষকে করোনা প্রতিষেধক হিসাবে হোমিওপ্যাথি ঔষধ সেবন করার নির্দেশনা দেন,আপনারা জানেন এক সময় কালাজ্বরে মানুষ মারা যেত,এখন আর মরে না, কালাজ্বরই ম্যালেরিয়া চিকিৎসায় সম্পুর্ণ সুস্থ হয়। ম্যালেরিয়া, টাইফয়েড, ডেঙ্গু, চিকনগুনিয়া, এখন ভয়াবহ অবস্থা মরন বিধি হল করোনা, সুস্থ হতে হলে হোমিওপ্যাথি ঔষধ সেবন করুন।
ক্যান্সার গবেষক অধ্যক্ষ ডাঃএস এম সরওয়ার
চেয়ারম্যানঃগণস্বাস্থ্য হোমিও
রোগী দেখার সময়-
ঢাকা চেম্বারঃ ১৪ পুরান পল্টন দারুসসালাম আর্কেট লিফটের ৬
শনিবার রবিবার সোমবার সকাল ১০ টা হতে বিকাল ৫টা পর্যন্ত।
হবিগঞ্জ চেম্বারঃশ্মশান ঘাট হবিগঞ্জ সদর, মঙ্গলবার বুধবার, বৃহস্পতিবার, সকাল ১০টা হতে বিকাল ৫টা পর্যন্ত।যোগাযোগ ০১৭২১২২৪৬৫৯

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com