বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের আউশকান্দি বাজারের বিউটি পার্লারের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নবীগঞ্জের আউশকান্দি বাজারের বিউটি পার্লারের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জের আউশকান্দি বাজারে একটি বিউটি পার্লার সম্পর্কে অভিযোগ উঠেছে। পার্লারের জনৈক যুবতীর পাল্লায় পড়ে সিলেটের জাউয়ার এক যুবক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। নির্যাতিত যুবকের নাম জসিম। তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের কাছে নির্যাতনের বর্ণনা দেন। তিনি বলেন, গত ৩/৪ মাস আগে রং নাম্বারে ওই বিউটি পার্লারের মালিকের সাথে পরিচয় হয়। সে থেকে প্রায়ই ফোনে আলাপ হয়। এক পর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ভিডিও কলে আলাপের মাধ্যমে নানান অঙ্গভঙ্গি করে। এতে তিনি ওই মহিলার প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ি। এক পর্যায়ে বিউটি পার্লারে এসে পরিচয় উভয়ে পরিচিত হয়। এর পর থেকে তাদের দেখা স্বাক্ষাত হয়। পরে মহিলা ফোনে তাকে বলে সে অসুস্থ্য, ডাক্তার দেখানোর জন্য টাকা লাগবে। কয়েকদিন পর বলে তার মা ও বোন অসুস্থ্য টাকা লাগবে। এতে জসিম ৩ মাসে প্রায় অর্ধলাখ টাকা বিকাশের মাধ্যমে ও সরাসরি এসে দিয়েছেন। অবশেষে গত ঈদুল ফিতরের পর দেখা করতে জসিম আউশকান্দি বিউটি পার্লারে। সেখান থেকে পার্লারের মালিক দুই বোনকে নিয়ে যাই বিশ্বরোডের পাশে শাকিল হোটেলে। সেখানে যাওয়ার পর একজন বাড়ি চলে যায়। অপরজনকে নিয়ে হোটেলে খাওয়া দাওয়ার এক পর্যায়ে সে তার মোবাইল ফোন হাতে দেখতে পায় এতে তার (যুবতীর) তার নগ্ন, অর্ধনগ্ন অবস্থার ভিডিও কলের ছবি ফোনে রয়েছে। তখন সে জানতে চায় এগুলো মোবাইলে কেন রেখেছি। উত্তরে মাঝে মধ্যে দেখার জন্য। এ কথা বলার পরই সে চতুরতার আশ্রয় নিয়ে বান্ধবীর বাসায় যাবার কথা বলে একটি রিক্সযোগে জসিমকে যুবতীর বাড়ি নিয়ে যায়। সেখানে নানা রকম নির্যাতনের পর তার সাথে থাকা টাকা, জাতীয় পরিচয়পত্রসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র জোরপূর্বক তারা নিয়ে নেয়। মোবাইল ফোনে ছবি রাখার দায়ে ওই যুবতী, তার ভাই, বোন ও পিতা তাকে মারপিটের এক পর্যায়ে তাকে হত্যার পরিকল্পনার কথাবার্তা শুনে জীবন রক্ষার্থে চিৎকার শুরু করলে পার্শ্ববর্তীর বাড়ির ২/৩জন লোক এসে তাকে রক্ষা করেন। পরে তিনি আউশকান্দি বাজারে এসে বিষয়টি বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীকে অবগত করলে তারা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতির নিকট বিচার দেওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু তিনি সভাপতিকে না পেয়ে ওয়াহাব ম্যানশনে অবস্থিত বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের বিষয়টি অবহিত করেন। পরে আমি স্থানীয় সাংবাদিকদের স্মরনাপন্ন হন। এ ঘটনা তিনি আইনের আশ্রয় নেবেন বলে জানান।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত বিউটি পার্লারের মালিকের কাছে মোবাইল ফোনে বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে, তিনি সরাসরি সাংবাদিকদের কাছে এসে বলেন, যার সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক তিনি দোকানের কর্মচারী এবং প্রবাসীর স্ত্রী। গত ৩/৪ মাস ধরে ওই যুবতী তার পার্লারে কাজ করছেন। এক পর্যায়ে পার্লার মালিক এবারের মতো ক্ষমা চেয়ে তার নাম বা দোকানের নাম সংবাদে প্রকাশ না করার অনুরোধ জানান।
এদিকে বাজার এলাকায় এ ঘটনার জানাজানি হলে শুরু হয় নানা সমালোচনা। সচেতন মহলের দাবি সামাজিক দায়বদ্ধতা হিসেবে ওই পার্লার মালিককে বাজার থেকে বিতারিত না করলে এলাকার অনেক যুবক যুবতি নষ্টের পথে ধাবিত হবে। এতে স্থানীয় প্রশাসন, সচেতন যুব সমাজ ও থানা পুলিশের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com