বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০২:২৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সিগন্যাল অমান্য করে ক্রসিংয়ে প্রবেশ ॥ লস্করপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি যাত্রী নিহত বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় বাজেট অধিবেশনের বক্তব্যে এমপি আবু জাহির ॥ দেশের মানুষ এখন ‘গরীব বাঁচানোর বাজেট’ শ্লোগানে আনন্দ-উল্লাস করে শায়েস্তাগঞ্জে ৪ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার জেলা ছাত্রদল সভাপতি রিংগনের মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে তৌহিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল চুনারুঘাটে ৬ বছরের ব্যবধানে দুই ভাইকে হত্যা ॥ গ্রেপ্তার ৩ বানিয়াচংয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়নে সেমিনার অনুষ্টিত এমপি আবু জাহির সিঙ্গাপুরে গেছেন নবীগঞ্জে হাওরে অভিযান চেক ডিজঅনার মামলায় কাউন্সিলর পান্না গ্রেপ্তার

বক্তারপুর আবুল খায়ের উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ২৩ জন শিক্ষকের মধ্যে ১৯ জনের নিয়োগই অবৈধ বলে অভিযোগ

  • আপডেট টাইম রবিবার, ১৯ মে, ২০২৪
  • ৩৯ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার বক্তারপুর আবুল খায়ের উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ২৩ জন শিক্ষকের মধ্যে ১৯ জনেরই নিয়োগ অবৈধ। কারও বিএড সনদ অগ্রহণ যোগ্য, কারও নিয়োগে নেই কমিটির অনুমোদন, আবার কেউ পুরুষ হলেও মহিলা কোটার স্থলে নিয়োগ পেয়েছেন। শুধু তাই নয়, জাল সার্টিফিকেটে চাকরি পেয়েছেন একাধিক কর্মচারিও। এর মাঝে ক্ষুদ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকেরর সার্টিফিকেটই অবৈধ। তিনি আছেনও বহাল তবিয়তে। পেয়েছেন উচ্চতর স্কেলও। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের অডিটে এমন তথ্য ধরা পড়লেও কর্তৃপক্ষ এখনও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা। অডিটে শিক্ষকের নিকট থেকে বেতন ভাতার টাকা আদায়ের জন্য ২০২২ সালে সুপারিশ করা হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় হতবাক অন্যান্য শিক্ষক, অভিভাবকসহ স্থানীয়রা। বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক) আব্দুল তাজ বলেন, আমি জবাব দিয়েছি। আমি জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অধীন একটি কলেজ থেকেই বিএড করেছি। এখন মন্ত্রণালয়ের যদি আপত্তি থাকে তবে তারা ব্যবস্থা নেবে।
জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল্লাহ বলেন, আমরা চাইলেই টাকা আদায়ের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে পারিনা। এখন সবকিছুই অনলাইনে মন্ত্রণালয় অনলাইনে তাদের বেতন বন্ধ করে দিতে পারেন। আমরা শুধু তারা কোন বিষয়ে নির্দেশনা দিলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেই। তাদেরকে সহযোগিতা করি।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সহকারি সচিব (নিরিক্ষা) মো. সেলিম শিকদার বলেন, অনেক সময় রিপোর্ট আসতে দেরি হয়। অনেক সময় আবার প্রধান শিক্ষক বা অধ্যক্ষরা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে গিয়ে তদবির করে রিপোর্ট আটকে দেয়। ফলে এ বিষয়ে এখনও ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তবে পেনশনের সময় তাদের পেনশনসহ সব সুযোগ সুবিধা আটকে দেয়া হবে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (সাময়িক বরখাস্তকৃত) মো. কামাল হোসেন বলেন, দুই বছর আগে অডিটে শিক্ষকদের নিয়োগ অবৈধ এবং নিয়োগের পর থেকে তাদের বেতন ভাতার সমুদয় টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত দেয়ার জন্য সুপারিশ করলেও এখনও পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। যাদের নিয়োগই অবৈধ তারা কিভাবে এখনও চাকরিতে বহাল তবিয়তে থাকে তা আমার বোধগম্য হচ্ছে না। আর কোন অদৃশ্য শক্তির কারণে তাদের নিকট থেকে বেতন ভাতার টাকা ফেরত না নিয়ে উল্টো এখনও বেতন ভাতা দেয়া হচ্ছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরিক্ষা অধিদপ্তরের অডিট রিপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ১৯৮৯ সালে নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় হিসেবে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৯৯৪ সালে নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি লাভ করে। ১৯৯৮ সালে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে উন্নীত করা হয়। কলেজে উন্নীত হয় ২০১৫ সালে। বিদ্যালয়টিতে মোট ১৯ জন শিক্ষক রয়েছেন। এর মধ্যে ২ জন কলেজ শাখায়। মোট কর্মচারি আছেন ৭ জন। তাদের মধ্যে ১৫ জন শিক্ষক ও ৪ জন কর্মচারির নিয়োগ অবৈধ। তাদের মধ্যে বিএড সনদ গ্রহণযোগ্য না হওয়ায় সহকারি প্রধান শিক্ষক হিসেবে আব্দুল তাজের নিয়োগ অবৈধ বলে অডিটে উল্লেখ করা হয়। নিয়োগ পরিক্ষায় একমাত্র প্রার্থী হওয়ায় সহকারি শিক্ষক (ইসলাম শিক্ষা) মো. হামিদুর রহমান, সহকারি শিক্ষক হরিপদ দাশ এবং সহকারি শিক্ষক বিজয় কৃষ্ণ দাশের নিয়োগও অবৈধ বলে উল্লেখ করা হয়। এছাড়া বিজয় কৃষ্ণ দাশ জুনিয়র শিক্ষক পদে যোগদান করলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ ছিল মাধ্যমিক শিক্ষক। নিয়োগ কমিটির অনুমোদন ছাড়াই তাকে নিয়োগ দেন প্রধান শিক্ষক। সহকারি শিক্ষক হরিপদ দাশ যোগদান করেন জুনিয়র শিক্ষক হিসেবে। বিধান না থাকা সত্ত্বেও তাকে সহকারি শিক্ষক করা হয়। পূরণযোগ্য মহিলা কোটার স্থলে নিয়োগ দেয়া হয় সহকারি শিক্ষক (ধর্ম) হাবিবুল্লাহ, সহকারি শিক্ষক (কৃষি শিক্ষা) আবদুর রহমান ও সহকারি শিক্ষক মো. মেহেদী হাসান মানিককে। সহকারি শিক্ষক মো. হুমায়ন কবির দারুল ইহসান বিশ^বিদ্যালয় থেকে বিএড ডিগ্রি নেন। অথচ বিশ^বিদ্যালয়টি ২০১৬ সালে বন্ধ ঘেষণা করা হয়। তাদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি কোন পত্রিকায় দেয়া হয়েছে তা উল্লেখ নেই। তাই তার নিয়োগও অবৈধ। এছাড়া সিনিয়র শিক্ষক মো. মাসুদ মিয়া, সহকারি শিক্ষক জ্যোৎস্না রানী রায়, সহকারি শিক্ষক মো. আইয়ূব আলী, সিনিয়র শিক্ষক মো. মাসুদ মিয়া, কলেজ শাখায় হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মো. মোশাররফ হোসেন তালুকদার। কর্মচারীদের মধ্যে অফিস সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর আব্দুর রকিব, আয়া রুবনা বেগম, নৈশ প্রহরী জাহিদ হাসান জয়, দপ্তরী অপু চন্দ্র মালাকারের নিয়োগও অবৈধ। নিয়োগের পর থেকে তাদের বেতন ভাতার পুরো টাকা ফেরত দেয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়। তাদের মাঝে ৫ জন শিক্ষকের ২০২২ সালের ২০ জুন (অডিটের সময়) ও তৎপরবর্তী পর্যন্ত দেয়া বেতন ভাতার টাকা ফেরত দেয়ার সুপারিশ করা হয়। সহকারি প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক) আব্দুল তাজের (প্রতি মাসে ৩৫,৭০০/- করে) ৭১ হাজার ৪০০ টাকা, সিনিয়র শিক্ষক (ইসলাম ধর্ম) মো. হামিদুর রহমানের ৩৮ লাখ ৫৭ হাজার ২৫৫ টাকা, সহকারি শিক্ষক বিজয় কৃষ্ণ দাশের ৩১ লাখ ৫২ হাজার ৭৩৮ টাকা ও সহকারি শিক্ষক হরিপদ দাশের ২১ লাখ ১২ হাজার ৯৪৪ টাকা, সহকারি শিক্ষক মোহাম্মদ আইয়ূব আলী ৪ লাখ ১৩ হাজার ৪৪০ টাকা ফেরত দেয়ার সুপারিশ করা হয়। একই সাথে ২০২২ সালের জুন মাসের পর থেকে যে বেতন ভাতা তারা নিয়েছেন তাও ফেরত দিতে সুপারিশে উল্লেখ করা হয়। তাছাড়া সঠিক ও নির্ভুল তথ্য না দেয়ায় রাজস্ব ভ্যাট বাবদ ১৩ লাখ ৬১ হাজার ৭২৮ টাকা, অভ্যন্তরিন পরীক্ষা উৎস আয়কর ভ্যাট বাবদ ২ লাখ ৯০ হাজার ১১৩ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার সুপারিশ করা হয়। কিন্তু অডিটে দুই বছর অতিক্রম হলেও কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com