শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
আমীরে মুয়াবিয়াকে সাহাবি মানা না মানা নিয়ে হবিগঞ্জে দু’পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া নবীগঞ্জে রোটারী ক্লাবের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে মরহুম সাংবাদিকদের সম্মানে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত প্রশাসনের অনুরোধ ও সুষ্টু বিচারের আশ্বাসে ৪ রুটের সিএনজি ধর্মঘট প্রত্যাহার মাধবপুর থেকে ২৮ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব সাংবাদিক নুরুজ্জামান ভূইয়া মামুনের ভগ্নিপতির ইন্তেকাল নবীগঞ্জ কেন্দ্রীয় গোবিন্দ জিউড় আখড়ায় ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক অষ্টপ্রহরব্যাপী কীর্তন উৎসব দধিভান্ডে সমাপন চুনারুঘাট থেকে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব শ্রমিক নেতার উপর হামলার ঘটনায় ॥ আজ থেকে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জ রোডে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট হবিগঞ্জ ও শায়েস্তাগঞ্জে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বাড়ানো হয়েছে এলপি গ্যাসের দাম ॥ জরিমানা

সুচিউড়ায় বিএনপির উঠান বৈঠকে জি কে গউছ দেশের মানুষ আবারও পুলিশকে ৭১ সালের ভূমিকায় দেখতে চায়

  • আপডেট টাইম বুধবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২২
  • ২৬ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ ঢাকার রাজারবাগে পাকহানার বাহিনী হামলা করে অনেক পুলিশ সদস্যকে শহীদ করেছিল। দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে পুলিশ বাহিনী যুদ্ধ করে এই দেশ স্বাধীন করেছে। আমরা সেই মানবিক পুলিশ চাই। দেশের গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে পেতে দেশের মানুষ আবারও পুলিশকে ৭১ সালের ভূমিকায় দেখতে চায়। দেশে আজ মানবাধিকার নেই, আইনের শাসন নেই, জানমালের নিরাপত্তা নেই, গণতন্ত্র নেই, নিজের ভোট নিজে প্রয়োগ করার অধিকার নেই, আওয়ামীলীগের লাগামহীন দূর্নীতি ও অপশাসনে মানুষের জীবন যাত্রা বিপর্যস্ত- হয়ে পড়েছে। এই অবস্থা থেকে জনগণ মুক্তি চায়। তাই জনগণের অধিকার রায় পুলিশ ভূমিকা রাখবে, এটাই দেশবাসী প্রত্যাশা করে। জনগণের আন্দোলনকে দমন করতে পুলিশ গুলি করবে, মানুষকে হত্যা করবে, এমন পুলিশ জনগণ দেখতে চায় না।
তিনি গতকাল মঙ্গলবার বিকালে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ১১নং বাহ্মণডোরা ইউনিয়নের সুচিউড়ায় ১নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।
সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
জি কে গউছ আর বলেন- জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি রাজপথে শান্তি-পূর্ণ আন্দোলন করছে। এই আন্দোলন এখন আর বিএনপির আন্দোলনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। বিএনপির এই গণতান্ত্রিক আন্দোলনে দেশের মানুষ সম্পৃক্ত হয়ে রাজপথে নেমে আসছে। বিএনপির একেকটি সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হচ্ছে। এই আন্দোলনে বিএনপির ৮জন নেতাকর্মী শহীদ হয়েছে। আওয়ামীলীগ ও পুলিশের হামলা মামলার ভয়কে উপো করেই বিএনপি রাজপথে আছে। আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত না করে বিএনপি ঘরে ফিরে যাবে না। পৃথিবীর কোনো স্বৈরশাসক বন্দুকের গুলি ছুড়ে মতায় টিকে থাকতে পারেনি। আওয়ামীলীগও পারবে না।
তিনি বলেন- বিএনপি বাংলাদেশের সর্ববৃহৎতম একটি রাজনৈতিক দল। এই দলটি নির্বাচনের মাধ্যমেই মতার পরিবর্তনে বিশ্বাস করে। তাই বিএনপি নির্বাচনে যাবে না এমনটি ভাবার সুযোগ নেই। বিএনপি নির্বাচনে যাবে কিন্তু বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না। একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার যখনই প্রতিষ্ঠিত হবে, নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হবে, তখনই বিএনপি নির্বাচনে যাবে।
সূচিউড়া গ্রামের বিশিষ্ট মুরুব্বী শামছুল হুদা মাহফুজের সভাপতিত্বে এবং ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ ও উপজেলা ছাত্রদলের সিনিয়ির যুগ্ম আহ্বায়ক খলিলুর রহমান মাসুমের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু তাহের, সহ সভাপতি নিজাম উদ্দিন বেলাল, আব্দুল আজিজ ফরহাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিজান উদ্দিন মোহন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্বাস উদ্দিন তালুকদার, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর ইসলাম সিতু, যুগ্ম সাধারণ নজরুল ইসলাম কাওছার, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম রানা, রাজিউড়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাফেজ উসমান গণি, ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুর রহমান ইনু, জেলা যুবদলের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক নাজমুল হাসান ফারুক, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ আলম, শামীম আহমেদ নাছির, তোফায়েল আহমেদ মনির, শামীম আহমেদ শামীম, সফিকুল ইসলাম রিপন, জাহির চৌধুরী, মারুফ আহমেদ রাব্বি, নিজাম উদ্দিন, মোঃ আব্দুল সাত্তার, বিশিষ্ট মুরব্বি জলু মিয়া সরদার, মিজাজ মিয়া, তাহির মিয়া, মোক্তার হোসেন, আক্তার হোসেন, জেলা ওলামাদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কদ্দুছ নুরী, ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক সারাজ খান, নুরপুর ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান বেনু, নুরপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক আব্দুল মোতালিব ফরিদ, ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়ন বিএনপির সহ সাধারণ সম্পাদক মোশাহিদ মিয়া, নাছির মিয়া, জহুর মিয়া, সাইফুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, মফুল হোসেন, ফরেজ আলী, আরাফাত আলী, আব্দুল হাসিম, সানু মিয়া, আয়াত আলী, লিটন মিয়া, আক্তার হোসেন, আলমগীর, শাহ আলম, আকবর মিয়া, নজই মিয়া প্রমুখ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com