মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
পবিত্র আশুরা আজ বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের তথ্য প্রেরণে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ॥ তালিকায় রয়েছে একই পরিবারের ৪ জন আছে মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার লোক ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ৯ জনের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ দুর্দিনে বঙ্গবন্ধুকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন বঙ্গমাতা-মিজানুর রহমান শামীম জালালাবাদ এসোসিয়েশনের পুনর্বাসন কার্যক্রমে ১০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন সায়হাম গ্রুপের পরিচালক সৈয়দ ইশতিয়াক ও সৈয়দ শাফকাত হবিগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দুলাল আহমদ তালুকদার নিজামপুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন ॥ আহ্বায়ক আসগর আলী, যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মিয়া থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে সোর্স ও দালালদের অপকর্ম জ্বালানি তেল ও সারের দাম কমানোর দাবিতে হবিগঞ্জে বাসদের বিক্ষোভ

খোয়াই নদীর বাঁধে মাথাবিহীন লাশ ॥ ক্লু-উদ্ধারে কাজ করছে আইন শৃংখলাবাহিনী ও গোয়েন্দারা

  • আপডেট টাইম রবিবার, ৩ জুলাই, ২০২২
  • ২২ বা পড়া হয়েছে

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জের শহরতলীর খোয়াই নদীর মাছুলিয়া বাঁধে কদর আলী (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে গলা কেটে করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত কদর আলী হবিগঞ্জ পৌর এলাকার জঙ্গলবহুলা গ্রামের মঙ্গল মিয়ার ছেলে। তিনি টাক্টরে বালু শ্রমিকের কাজ করতেন। গতকাল শনিবার (২জুলাই) সকালে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মর্তুজা। পুলিশ জানায়, শনিবার সকালে স্থানীয়রা খোয়াই নদীর মাছুলিয়া এলাকায় কদর আলীর মাথাবিহীন লাশ নদীর বাঁধে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। তবে মাথা উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে বলেন, পুলিশ তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামীদের খোঁজে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে পারব। এ সময় ভিকটিমের স্বজনদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিহত কদর আলী খোয়াই নদী থেকে বালু উত্তোলনের শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো। শুক্রবার বিকেলে বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু রাতে আর বাসায় ফেরেনি। সিসি টিভি ফুটেজে দেখা যায় নিহত কদর আলীর সাথে চারজন লোক, কিন্তু কিছুক্ষণ পর বাকি চারজন ফিরলেও কদর আলী ফিরে নি। ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা, মাহমুদুল হাসান, জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি গোলাম মর্তুজা সহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকগণ। পুলিশের ধারণা, তাকে হত্যা করে মাথা খোয়াই নদীতে ফেলে দিতে পারে, হয়ত খোয়াই নদীর পানির স্রোতে অনেক দূরে চলে যেতে পারে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com