বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:০০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার হত্যাকান্ড ॥ ১৭ বছরেও সম্পন্ন হয়নি বিচার কার্যক্রম ৬ বছরে স্বাক্ষ্য হয়েছে ৪৪ জনের বানিয়াচংয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জে নতুন করে আরো ৭১ জন করোনায় আক্রান্ত ৫ পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সদর হাসপাতালে নবজাতক চুরির ঘটনায় এক পিতার মামলায় অপর পিতা কারাগারে হবিগঞ্জে হঠাৎ বৃষ্টিতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে পাইকপাড়ায় মর্ডান বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ আহত ১০ চুনারুঘাটে গাঁজাসহ চোরাকারবারি ছাত্তার আটক ॥ ৯টি গরু উদ্ধার মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন ॥ কাজী বাশার সভাপতি, শেখ আরিফ সাধারণ সম্পাদক মনোনীত বানিয়াচংয়ে মাস্ক পরিধানে প্রশাসনের পক্ষে সচেতনতামূলক অভিযান

হবিগঞ্জে অবসরপ্রাপ্ত দারোগা আলতাফ এর ফাঁদে ফান্দ্রাইল গ্রাম ॥ হামলা ও মামলার ধারবাহিতকায় খুন ॥ অবশেষে বন্দি হলেন র‌্যাবের খাচায়

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৭ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কেউ তাকে চিনে দারগা বলে। আবার কেউ চিনে ওসি হিসাবে। তবে সবাই তাকে একজন মামলাবাজ ও গ্রাম্য ক্রিমিনাল হিসাবে। যার মামলা ও হামলা থেকে রেহাই পায়নি নিজ সন্তানও। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের রিতিমত আতংকের নাম এই অবসরপ্রাপ্তদ দারগা আলতাফ চৌধুরী ওরফে মাখন (৭২)। হামলা ও মামলার ধারাবাহিকতায় তার নেতৃত্বে এবার ফান্দ্রাইল গ্রামে হয়েছে খুনের ঘটনা। আর এই খুনের মামলার আসামী হয়ে আলতাফ দারগা এখন র‌্যাবের খাচায় বন্দি। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ফান্দ্রাইল গ্রামে ৩৫ বছরের পুরনো একটি মসজিদ নিয়ে বিরোধের জের সোমবার রাত ১টার দিকে পাচপীরের মাজারে ওরস চলাকালে এ সংঘর্ষে আফজাল চৌধুরী খুন হয়। আহত হয় আরও ১০জন। নিহত আফজাল চৌধুরী ওই গ্রামের জামাল উদ্দিন চৌধুরীর পুত্র। সে ঢাকা বিআরটিএ অফিসের ড্রাইভার। হামলাকারীরা পরে আফজাল চৌধুরীর বাড়ীঘরেও হামলা করে। এ ব্যাপারে আফজাল চৌধুরীর ভাই লাউছ মিয়া বুধবার রাতে হবিগঞ্জ সদর থানায় ২২জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলার ১নম্বর ও হুকুমদায়ী আসামী দারগা আলতাফ চৌধুরীকে র‌্যাব বৃহস্পতিবার কোন এক সময় গ্রেফতার করে। বৃহস্পতিবার রাতে তার গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি মাসুক আলী।
সূত্রে জানা যায়, পুর্ব ফান্দ্রাইল গ্রামে ১৯৮৪ সালে ওই গ্রামের রইছ উদ্দিন একটি মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন।সম্প্রতি লন্ডন প্রবাসী সাইফুল আহমেদ সেফুল মসজিদটির উন্নয়নে প্রায় ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নতুন ভবন নির্মাণ করেন। গ্রামবাসী এই মসজিদের নামকরন করেন হাজী রইছ উদ্দিন জামে মসজিদ। কিন্তু এই নামকরণ নিয়ে গ্রামে বিভক্তি সৃষ্টি করেন আলতাফ দারগা। পাশাপাশি মসজিদের উন্নয়ন কাজ ও নামকরণে বাধা দিয়ে চাদা দাবী ও হামলা করেন গ্রামের লিমন মিয়া ও সাধন মিয়ার নেতৃত্বে একটি গ্রপ। এই ঘটনায় সাধন মিয়া বর্তমানে কারাগারে আছে এবং মামলা চলমান আছে। এরই ধারাবাহিকতায় আলতাফ দারগার নেতৃত্বে পাচপীরের মাজারে ওরস চলাকালে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হামলা করে আফহল চৌধুরীকে হত্যা করা হয়।
এদিকে ফান্দ্রাইল গ্রামের আলোচিত গডফাদার আলতাফ চৌধুরীকে গ্রেফতারের খবর পেয়ে এলাকায় আনন্দ উল্লাস চলছে। এমনকি তার নিজ সন্তানও এই খবরে আনন্দিত। অনেকেই ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে স্বস্থি প্রকাশ করেন।
কে এই আলতাফ
ফান্দ্রাইল গ্রামের আলতাফ চৌধুরীর পেশা হল মিথ্যা মামলা দিয়ে সাধারন মানুষকে হয়রানী করা। এমনকি নিজের মেয়েকে দিয়ে মিথ্যা ধর্ষণ মামলা করে পরে ১৫ লাখ টাকা দিয়ে আপস করেছেন। আবার নিজের আরেক মেয়ের বিরুদ্ধে নিজেই প্রতারণার মামলার হুমকি দিয়ে তার সম্পত্তি দখলের চেষ্টা করছেন।
আলতাফ চৌধুরী চাকুরী জীবনে বিভিন্ন অনিয়মে অভিযুক্ত ছিলেন। চাকুরী থেকে অবসর নিয়ে তিনি জড়িয়ে পড়েন বিভিন্ন অপকর্মে। মামলাবাজ হিসাবে পরিচিতি পেয়ে যান এলাকায়। এলাকার যে কোন ঘটনার পিছনে তার ভূমিকা থাকে। এলাকাবাসী বিভিন্ন সময় আলতাফ চৌধুরীর অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন দিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি। আলতাফ হোসেন এর বড় মেয়ে আফিয়া খানম চৌধুরী তার পিতার অত্যাচার থেকে রেহাই পেতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর আবেদন করার পর হবিগঞ্জ সদর থানায় জিডি করেও রেহাই পাননি।
আফিয়া খানম চৌধুরী স্বরাষ্টমন্ত্রী বরারবর অভিযোগে উল্লেখ করেছিলেন, তার পিতা এলাকার সাধারণ নিরিহ লোকজনকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে আসছেন। তারা দুই বোনকে পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার পাশাপাশি মায়ের সম্পত্তিতে থেকেও বঞ্চিত করেছেন। আবার আফিয়া খানমের নিজস্ব সম্পত্তিও দখলের পায়তারা করছেন এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করার হুমকি প্রদান করেছেন।
আফিয়া খানম আরও অভিযোগ করেন , তার পিতা আলতাফ হোসেন ছোট বোন আঞ্জুমান আরা চৌধুরীকে দিয়ে মিথ্যা ধর্ষণ মামলা দিয়ে নিজের শ্যালকের ছেলে ও অপর একজনকে হয়রানী করেন। পরে ১৫ লক্ষ টাকা নিয়ে আপোষ করেছেন। ঢাকার কেরানীগঞ্জের একটি মার্ডার মামলায় এলাকার ৪জনকে আসামী করে ২০ লাখ টাকা দাবী করেন আপোষ করার নামে।
আবেদনে তিনি আলতাফ চৌধুরী ও তার লোকজন কতৃক দায়েরকৃত ১৫টি মামলার তালিকা উল্লেখ করেন।
আলতাফ হোসেন ২০০৪ সালে চাকুরী থেকে অবসর নেন। এর পরই শুরু করেন মামলা ও হয়ারনীর খেলা। শুধু নিজেই মামলা দায়ের করেন না। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন। এমনকি দুদকেও দুইবার অভিযোগ প্রদান করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। কিন্তু রহস্যজনকভাবে তিনি রেহাই পেয়ে যান এ সকল অভিযোগ থেকে। ফলে তিনি দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেন।
অভিযোগ রয়েছে আলতাফ হোসেন দীর্ঘদিন সাভারে চাকুরী করার সুবাধে একজন মন্ত্রী এবং অনেক উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার সাথে তার ঘনিষ্ট যোগাযোগ রয়েছে। তাদেরকে দিয়ে তিনি তদবির করে বিভিন্ন থানায় সহজেই মিথ্যা মামলা দায়ের করেন আবার নিজে মামলা থেকে রেহাই পেয়ে যান। কর্মজীবনে তিনি অবৈধভাবে কোটি টাকার সম্পত্তি অর্জন করেন। সাভারেও তার বাসা বাড়ী রয়েছে।
ফান্দ্রাইল গ্রামের ভুক্তভোগী বিধবা মোঃ ইয়াছমিন আক্তার আলতাফের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা দায়ের করেন। একই গ্রামের বিনা আক্তার ও কাজল মিয়া চৌধুরী নামে দুই ব্যক্তির জায়গা দখলের চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। যা নিয়েও আদালতে মামলা করেছেন তারা।এছাড়াও ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে আলতাফ চৌধুরী গংদের বিরুদ্ধে। মামলা তুলে নিতে মামলার বাদী ও তার পরিবারের সদস্যদের হুমকি দামকিও দিয়ে আসছে তার লোকজন। কিন্ত আলতাফ হোসেন ও তার লোকজন বহাল তবিয়তে থাকলেও এবার শেষ রক্ষা হয়নি। নিজের ধারাবাহিক অপকর্মের ফসল হিসাবে তার ঠিকানা হয়েছে ১৩ শিকের ভিতরে।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com