বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার হত্যাকান্ড ॥ ১৭ বছরেও সম্পন্ন হয়নি বিচার কার্যক্রম ৬ বছরে স্বাক্ষ্য হয়েছে ৪৪ জনের বানিয়াচংয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জে নতুন করে আরো ৭১ জন করোনায় আক্রান্ত ৫ পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সদর হাসপাতালে নবজাতক চুরির ঘটনায় এক পিতার মামলায় অপর পিতা কারাগারে হবিগঞ্জে হঠাৎ বৃষ্টিতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে পাইকপাড়ায় মর্ডান বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ আহত ১০ চুনারুঘাটে গাঁজাসহ চোরাকারবারি ছাত্তার আটক ॥ ৯টি গরু উদ্ধার মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন ॥ কাজী বাশার সভাপতি, শেখ আরিফ সাধারণ সম্পাদক মনোনীত বানিয়াচংয়ে মাস্ক পরিধানে প্রশাসনের পক্ষে সচেতনতামূলক অভিযান

নবীগঞ্জে ওসিকে কুপানোর ঘটনায় সন্ত্রাসী মুছা কারাগারে

  • আপডেট টাইম শনিবার, ১ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৮ বা পড়া হয়েছে

এটিএম সালাম নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ থানার ওসি-এসআইসহ ৪ পুলিশ কর্মকর্তাকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনার দায়েরী মামলা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শাহ সোহান আহমেদ মুছাকে কারাগারে প্রেরণ করেছে হবিগঞ্জের বিজ্ঞ আদালত। গত ৩০ ডিসেম্বর আমল আদালত-৫ এ হাজির হলে বিজ্ঞ বিচারক তাকে জেলা হাজতে প্রেরনের নির্দেশ প্রদান করেন। মুছা জেল হাজতে খবরে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। প্রকাশ, ২০১৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার ছাত্রলীগের সাবেক নেতা শাহ সোহান আহমেদ মুছাকে গ্রেপ্তার করতে যায় পুলিশ। এ সময় মুছা ও তার সঙ্গীদের নিয়ে দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে তৎকালীন নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) উত্তম কুমার দাশ (৪০), এসআই ফখরুজ্জামান (৩৫) ও দুই কনষ্টেবলকে। আশংকাজনক অবস্থায় উত্তম কুমার দাশকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তৎকালীন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা।
এ ঘটনায় ঘটনার দিন রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে মুছার বোনসহ ৪ জনকে আটক করে। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে মুছা পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে যায়। দীর্ঘ প্রায় ২ বছর আত্মগোপনে থাকার পর হঠাৎ করে মুছা বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) কালো রংয়ের একটি কার যোগে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমল আদালত-৫ এ হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করেন। বিজ্ঞ বিচারক দীর্ঘ শুনানী শেষে মুছাকে কারাগারে প্রেরনের নিদের্শ প্রদান করেন। সূত্রে জানা যায়, এর আগে ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি পুলিশ ও র‌্যাবের যৌথবাহিনী মুছার পুরো বাড়ি ঘিরে ফেলে। প্রায় ২ ঘন্টা অভিযান চালিয়ে মুছাকে গ্রেফতার করতে সম হয় যৌথবাহিনী। এ সময় মুছার স্বীকারোক্তিতে ৫৬৭ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। যেভাবে দুর্ধ্ষ হয়ে উঠে মুছা ঃ ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে খুন হন ছাত্রলীগ নেতা হেভেন। ওই হত্যা মামলার আসামী ছিলেন মুসা। উক্ত হত্যাকান্ডের পর থেকেই চরম বেপরোয়া হয়ে উঠে মুছা। এর পর থেকে সে একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে নবীগঞ্জ শহরসহ এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। সম্প্রতি সে দিন-দুপুরে নবীগঞ্জ শহরের ওসমানী রোডের হীরা মিয়া গালর্স স্কুলের সামনে প্রকাশ্যে অস্ত্র দেখিয়ে ৩টি দোকানে হামলা, ভাংচুর, লুটপাটসহ ৩টি মোটর সাইকেলসহ ৭ লাখ টাকা মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
২০১৯ সালের ১২ ডিসেম্বর বিকালে মুছা শ্রমিক নেতা হেলাল আহমদের বাড়ির সীমানায় বেড়া দিয়ে ওই পরিবারের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে এসআই সুজিত চক্রবর্তীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের তদন্ত করতে গিয়ে মুছা ও তার পরিবারের সদস্যদের রোষানলে পড়ে। এক পর্যায়ে মুছাকে গ্রেপ্তার না করে ফিরে আসতে বাধ্য হয় পুলিশ। এভাবেই নবীগঞ্জে শহরে মুছার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যায়। এছাড়া রোড ডাকাতি, ইয়াবা ব্যবসা থেকেও বাদ পড়েনি মুছা। সন্ত্রাসী মুছা জেল হাজতে যাওয়ার খবরে শহরবাসীসহ এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। আবার জামিনে ছাড়া পাইলে অজানা আংতকেও রয়েছেন এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com