শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রসঙ্গ নিম্বর টাওয়ার ॥ ৫০ লাখ টাকা ঘুষ দাবি! নবীগঞ্জের ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা আবিদ আলী বরখাস্ত হবিগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার ॥ স্বাস্থ্যবিধি পালনে প্রশাসন কঠোর বাংলাদেশি-আমেরিকান দুই ভাই তীর্থ ও তন্ময়ের সাফল্য খোশ আমদেদ মাহে রমজান ॥ আজ ২৫ রমজান লোকড়ায় অর্থ সহায়তা বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির বানিয়াচংয়ের ঐতিহ্যবাহী ঠাকুরানী দিঘী রক্ষায় এলাকাবাসীর অভিযোগ ॥ ড্রেজার মেশিন জব্দ খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় জেলা যুবদলের দোয়া ও ইফতার মাহফিল বানিয়াচংয়ে অভ্যন্তরীণ বোরে ধান সংগ্রহের উদ্বোধন রিচি গ্রামে ট্রাক্টরের চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত শায়েস্তাগঞ্জ নতুন ব্রীজে বাস উল্টে ১৫ জন যাত্রী আহত
খোশ আমদেদ মাহে রমজান

খোশ আমদেদ মাহে রমজান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ ৫ রমজান। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়া সাল্লাম মাহে রমাদানকে সমান তিনটি ভাগে ভাগ করে প্রত্যেক ভাগের বিশেষ বৈশিষ্ট্য ও মাহাত্ম্য তুলে ধরেছেন। প্রথম ভাগ হচ্ছে ১ তারিখ থেকে ১০ তারিখ পর্যন্ত, দ্বিতীয় ভাগ হচ্ছে ১১ তারিখ থেকে ২০ তারিখ পর্যন্ত এবং শেষ ভাগ হচ্ছে ২১ তারিখ থেকে শওয়াল মাসের চাঁদ দেখা পর্যন্ত। প্রথম ভাগ সম্পর্কে তিনি বলেছেনঃ ওয়াহুয়া শাহরুন্ আওউয়ালুহু রহমাতুন- আর এটা (রমাদান) হচ্ছে সেই মাস যার প্রথমাংশ হচ্ছে রহমত। রহমত শব্দের অর্থ রুণা, অনুগ্রহ, কৃপা, দয়া। রহমতের মালিক একমাত্র আল্লাহ্। রহমত করাকে আল্লাহ্ জাল্লা শানুহু নিজের জন্য কর্তব্য হিসেবে গ্রহণ করেছেন। কুরআন মজীদে ইরশাদ হয়েছেঃ বলো, আসমান ও জমীনে যা আছে তা কার? বলো, আল্লাহ্রই, রহমত করাকে তিনি তাঁর নিজের কর্তব্য হিসেবে স্থির করে নিয়েছেন। (সূরা আন্আম ঃ আয়াত-১২)। তিনি খাস করে তাঁর প্রিয় হাবীব হযরত মুহম্মদ সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়া সাল্লামকে রহমাতুল্লিল আলামীন- বিশ্বজগতের জন্য রহমত করে প্রেরণ করেছেন। আল্লাহ্ জাল্লা শানুহু একমাত্র তাবত রহমতের অধিকারী। এই রহমত গুণের জন্য তাঁর বিশেষ গুণবাচক নাম হচ্ছে রহমান, রহীম। রহমান শব্দের অর্থ করুণাময় এবং রহীম শব্দের অর্থ পরম দয়ালু।
আল্লাহর রহমত অবারিত ধারায় বর্ষিত হয়। আল্লাহ্র অবাধ্য বান্দাও যখন আল্লাহ্র নিকট অনুশোচনা ও তওবা-ইস্তিগফার করে তাঁর রহমত কামনা করে, তখন আল্লাহ্ তার প্রতি দয়াবান হয়ে যান। আল্লাহ্ জাল্লা শানুহু ইরশাদ করেনঃ ইয়া ইবাদিইয়াল্লাযীনা আস্রাফু আলা আন্ফুসিহিম লাতাকনাতু র্মি রহমাতিল্লাহ, ইন্নাল্লাহা ইয়াগ্ফিরুয্ যুনূবা জামী‘আ, ইন্নাহু হুওয়াল গাফুর্রুরহীম হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ তারা আল্লাহ্র রহমত হতে নিরাশ হয়ো না, আল্লাহ্ সমুদয় পাপ ক্ষমা করে দেবেন। নিশ্চয়ই তিনি ক্ষমাশীল পরম দয়ালু। (সূরা যুমার ঃ আয়াত-৫৩)।
মাহে রমাদানুল মুবারকে সায়িম বা রোজাদারের উপর অজস্র ধারায় আল্লাহ্র রহমত বর্ষিত হয়, সেই রহমতের বেগবান ধারা তাকে রমাদানের দ্বিতীয় দশকের দিকে নিয়ে যেয়ে মাগফিরাত লাভের পথ সুগম করে দেয়। ইল্মে তাসাওউফে যে রহমতের প্রাচুর্য প্রবাহ লাভের বিশেষ অনুশীলন ও অনুধ্যান ব্যবস্থা রয়েছে তা কামিল পীরের তত্ত্বাবধানে নিয়মিত রপ্ত করতে পারলে রহমতের জ্যোতি দ্বারা নিজেকে উদ্ভাসিত করা যায়। ইয়া আল্লাহু, ইয়া রহমানু, ইয়া রহীমু, ইয়া হাইয়্যূ, ইয়া কাইয়ূম- আল্লাহ্ জাল্লা শানুহুর এই পাঁচ মুবারক নামের মুরাকাবা বিশেষ পদ্ধতিতে করতে পারলে রহমতের প্রকৃত হকীকত উপলব্ধি করে মা‘রিফাতে উন্নীত হওয়া যায়। এই রহমতের ফয়েযের মাধ্যমে কাশ্ফুল কুবুরের মঞ্জিলেও পৌঁছা যায়।কুরআন মজীদে আল্লাহ্র রহমত লাভের জন্য কয়েকটি দু‘আ রয়েছে, যেমনঃ রব্বানা আতিনা মিল্লা দুন্কা রহমাত- হে আমাদের রব! আপনি আপনার নিকট হতে আমাদেরকে দান করুন রহমত। (সূরা কাহ্ফ ঃ আয়াত-১০)।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com