সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেমিকার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করায় তেঘরিয়ার খোকনকে গলা টিপে হত্যা ॥ প্রেমিকা ও তার বন্ধু ও বান্ধবী গ্রেফতার হবিগঞ্জ জেলাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান খোশ আমদেদ মাহে রমজান সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে রাস্তায় বের হওয়া মানেই জীবনের ঝুঁকি ব্রি ৮৮ জাতের নতুন ধান আগাম কাটতে পেরে বেজায় খুশি কৃষক হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য-বিধি লঙ্ঘনের করায় ৪০ জনকে জরিমানা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে সুতাং বাজারের পুরাতন ব্রীজের রাড বিক্রির অভিযোগ ॥ ট্রাক বোঝাই রড আটক বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত
শহরের চৌধুরী বাজার ফাঁড়ি ইনর্চাজের মেয়ে নিহত রুম্পার বাড়ীতে শোকের মাতম

শহরের চৌধুরী বাজার ফাঁড়ি ইনর্চাজের মেয়ে নিহত রুম্পার বাড়ীতে শোকের মাতম

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ চৌধুরী বাজার ফাঁড়ির পরিদর্শকের মেয়ে ঢাকার স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির নিহত শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পার গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের সদর উপজেলার বিজয়নগরে চলছে শোকের মাতম। এদিকে ঘটনার ৩ দিন পর গত শনিবার সকালে রূবাইয়াত শারমিন রূম্পার সাবেক প্রেমিক একই ইউনির্ভাসিটির ছাত্র আব্দুর রহমান সৈকতকে আটক করেছে পুলিশ। আটকের পর পুলিশ আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে দীর্ঘ শুনানী শেষে আদালত ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শুনানির সময় সৈকতের পক্ষে তার আইনজীবী আব্দুল হামিদ ভূঁইয়া আদালতে বলেন, ‘সৈকত ঘটনার বেশ কিছুদিন আগে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভারর্সিটি ছেড়ে অন্য প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনা করছেন। তাছাড়া সৈকত স্ট্যামফোর্ডে থাকাকালিন সময়ে সে বিবিএ পড়ত। তাদের ডিপার্টসেন্টও ছিল আলাদা। নিহত শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পার সাথে তার কোন সম্পর্ক ছিল না’। তখন কাঠগড়ায় থাকা সৈকতকে স্বাভাবিক দেখায়। তার মধ্যে কোনো বিষণœতা বা চিন্তার ছাপ ছিল না।
তদন্তকারী কর্মকর্তা রমনা জোনাল টিমের গোয়েন্দা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আকতারুজ্জামান ইলিয়াস এর আবেদনে আরো বলা হয়, ঘটনার দিন ৪ ডিসেম্বর বিকেল ৪টার দিকে সৈকতের সঙ্গে রূম্পার স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসের বাইরে দেখা হয়। তখন প্রেম ভালোবাসা নিয়ে কথা উঠলে আসামি সৈকত কোনো যৌক্তিক কারণ ছাড়াই সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য রুম্পাকে অনুরোধ করলে মনোমালিন্যসহ বিরোধ চরম আকার ধারণ করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে উক্ত মনোমালিন্যের পর ওইদিনই রাত পৌনে ১১টার দিকে ভিকটিমকে উক্ত আসামিসহ তার সহযোগী অজ্ঞাতনামা আসামিরা মিলে হত্যা করতে ৬৪/৪ সিদ্ধেশ্বরী সার্কুলার রোডের বাড়ির ছাদ থেকে ফেলে দেয় মর্মে প্রাথমিকভাবে সন্দেহ করা হচ্ছে। মামলাটি বর্তমানে তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। তাই মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচারের স্বার্থে হত্যার মূল রহস্য উদঘাটনপূর্বক উক্ত হত্যাকান্ডে কারা কারা জড়িত হত্যাকারীদের প্রকৃত নাম ঠিকানা সংগ্রহপূর্বক তাদেরকে গ্রেফতার, কীভাবে ও কী কারণে উক্ত হত্যাকান্ড ঘটেছে বলে তা নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড প্রয়োজন। রিমান্ড শুনানির জন্য বিকেল তিনটার পরপর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মামুনুর রশিদের আদালতে হাজির করা হয় সৈকতকে। আদালতের এজলাসে তাকে নির্বিকার ও স্বাভাবিক দেখাচ্ছিল। শুনানির আগে আইনজীবীদের প্রশ্নের জবাব দেওয়ার সময় তার মধ্যে কোনো বিষণœতা ছিল না। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর এক প্রশ্নের জবাবে সৈকত বলেন, ‘চার-পাঁচ মাস ধরে রুম্পার সঙ্গে তার একটা সম্পর্ক ছিল। সবশেষ ৪ তারিখ রুম্পার সঙ্গে তার কথা হয়। এরপর আমি বাসায় চলে যাই। এই ঘটনায় আমি জড়িত নই এবং ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছু জানি না। প্রসঙ্গত, গত বুধবার রাত ১১ টার দিকে সিদ্ধেশ্বরীর এলাকার ৬৪/৪ নম্বর বাসার নিচে এক অজ্ঞাত তরুণীর লাশ দেখতে দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা রমনা থানায় খবর দিলে ওসি মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। তবে কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে এ বিষয়ে কোন কিছু জানতে পারেনি পুলিশ। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে কেউ তাকে ধর্ষণ করার পর ওই ৫ম তলা ভবনের উপর থেকে কেউ তাকে হত্যার উদ্যেশ্যে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যা করেছে। রমনা থানার ওসি মোঃ মনিরুল ইসলাম এ প্রতিনিধিকে মোবাইল ফোনে জানান, সিদ্ধেশ্বরীর ৬৪/৪ নম্বর বাসার আশ পাশে তিনটা বিল্ডিং আছে, তিনটার যেকোনো একটা থেকে পড়ে মারা গেছে। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে কেউ তাকে ধর্ষণ করার পর হত্যা করেছে। আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে, লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com