সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন প্রকল্প রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টি আকর্ষণ মূলক সংবাদ সম্মেলন

মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন প্রকল্প রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টি আকর্ষণ মূলক সংবাদ সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পরিত্যক্ত খোয়াই নদীর মাছুলিয়া থেকে হরিপুর পর্যন্ত প্রকল্প তৈরীর কথা থাকলেও উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের সামনে অবস্থিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স থেকে এই প্রকল্প হতে চলেছে বলে অভিযোগ করেছেন হবিগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধারা। এ ব্যাপারে তারা সাংবাদিক সম্মেলন করেছে। গতকাল শনিবার বিকেলে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ বহুমুখি সমবায় সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলী টিপু লিখিত বক্তব্যে বলেন, ১৯৭৩ ইং সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হবিগঞ্জ নিউ ফিল্ডে এক জনসভায় মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসন করা হবে মর্মে ভাষন দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে জনগণের দাবীর মুখে ১৯৭৬-৭৭ সালে তৎকালীন সরকার বাহাদূর হবিগঞ্জ শহর রক্ষার জন্য খোয়াই নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে মাছলিয়া হইতে সোজা উত্তর দিকে রামপুর হরিপুরের মুখ পর্যন্ত গতি পথ পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এই খোয়াই নদীর গতিপথ পরিবর্তন করার জন্য যুদ্ধপরবর্তী ৪৫০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প করে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে নতুন খোয়াই নদীর গতিপথ পরিবর্তন করতে সর্বাত্মক সহায়তা করেন। খোয়াই নদীর নতুন গতিপথ পরিবর্তনে মুক্তিযোদ্ধাদের নিরলস শ্রম এবং ভূমিকায় তৎকালীন সরকার বাহাদুর ও জেলা প্রশাসক বর্তমান পৌরসভাধীন পরিত্যাক্ত খোয়াই নদীতে মুক্তিযোদ্ধাদের বসবাসের জন্য অনুমতি ও সাহায্য সহায়তা প্রদান করেন। যার ফলে হবিগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা বহুমুখী কল্যাণ সমবায় সমিতি লিঃ গঠন করে মুক্তিযোদ্ধাগণ সাধু সমাদি হইতে নোয়াবাদ হরিপুরের মুখ পর্যন্ত ১২০ জন মুক্তিযুদ্ধা পরিবার বসবাস করে থাকেন। এক পর্যায়ে হবিগঞ্জ পৌরসভার মধ্য দিয়ে সাবেক খোয়াই নদীটি পরিত্যাক্ত হয়ে যায় এবং দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে থাকায় বালি ও পলিমাটি দ্বারা প্রাকৃতিকভাবে ভরাট হতে থাকে। এরপর মাছলিয়া থেকে রামপুর পর্যন্ত বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করতে থাকেন সাধারণ মানুষ। এমনকি খোয়াই নদীর উপর অনেক সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও গড়ে উঠেছে।
পরবর্তীতে সাধুর সমাধি থেকে নোয়াবাদ হরিপুরের মূখ পর্যন্ত খোয়াই নদীর অংশ ১৯৯২ সালে তৎকালিন জেলা প্রশাসক মুক্তিযোদ্ধা বহুমুখী কল্যাণ সমবায় সমিতি লিঃ বন্দোবস্ত প্রদান করে। এক পর্যায়ে নদীটি প্রাকৃতিকভাবে ভরাট হতে থাকলে ১৯৯৫ সালে ভূমি মন্ত্রনালয় থেকে বন্দোবস্তটি নবায়ন করা হয়। এর পর থেকে মুক্তিযোদ্ধার ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা লীজমাণি বর্ধিত হারে পরিশোত করে আসছে। এরপর ২০০৬-০৭ সালের আমাদের বন্দোবস্তে পাবলিক হিসেবে যারা অবৈধ দখলে ছিলেন তাদের উচ্ছেদ করা হয়। এ সময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলায় বীর মুক্তিযুদ্ধাদের বন্দোবসের জায়গা বার বার প্রশাসন উচ্ছেদ করে দিতে পারবে না। তাই মুক্তিযোদ্ধের এখানে বসত বাড়ি নির্মাণ করে নিজেদের জায়গা দখল করে রাখতে হবে। সেখানে ১২০ মুক্তিযোদ্ধাকে তিন শতক করে ৩.৬০ একর বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। তবে এখনও তা প্রক্রীয়াধিন অবস্থায় রয়েছে।
বক্তব্য তিনি আলো বলেন, পরিত্যক্ত খোয়াই নদীর মাছুলিয়া থেকে হরিপুর পর্যন্ত প্রকল্প তৈরীর কথা থাকলেও উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের সামনে অবস্থিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স থেকে এই প্রকল্প হতে চলেছে। অথচ প্রশাসন মুক্তিযোদ্ধাদের জায়গায় প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রস্তুতি নিয়েছে। প্রকাবশালীদের জায়গা উচ্ছেদ না করে মুক্তিযোদ্ধাদের জায়গায় প্রকল্প গ্রহণ করায় জনগণের কাছে বিষয়টি হাস্যকর মনে হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে পরিত্যক্ত খোয়াই নদীতে অসহায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মিত ঘর-বাড়ি রক্ষা করে পরিত্যক্ত মূল খোয়াই নদী উদ্ধার করে প্রকল্প বাস্তবায়ন করিতে হবিগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধারা আবেদন জানান। মুক্তিযোদ্ধাদের বসবাসকৃত ভূমিতে ঘরবাড়িতে অপসারণের পদক্ষেপ নেওয়া হলে তীব্র আন্দোলনের ঘোষণা দেন মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ।
এত বক্তব্য পাঠ করেন, হবিগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ বহুমুখি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক বীরমক্তিযুদ্ধা জায়েদ উদ্দিন মাস্টার। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গণি, সৈয়দ জাহেদুল ইসলাম, জিয়াউল আহসান, এম এ আবু তাহের মিয়া, শাহ্ মুবাশ্বির আলী, নিশি কান্ত দাস, গোপাল চন্দ্র দাস, হাজী আফসর উদ্দিন, আব্দুল জলিল, আব্দুল খালেক সানু, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক মোঃ গউস উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট শামীম আহমেদ, সদস্য সচিব পংকজ কান্তি পল্লব সহ অন্যান্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সদস্যগণ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com