বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ১২:২৮ অপরাহ্ন

খোশ আমদেদ মাহে রমজান

খোশ আমদেদ মাহে রমজান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ ৯ রমজান। ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন দর্শন, ইসলামের বিবি-বিধান যেমন অতি কঠিন নয়, তেমনি অতি সহজও নয়। তাই রোযাদারকে এমাসে কিছু বিধি-নিষেধ মেনে চলতে হয়। বড় পীর সৈয়দ আবদুল কাদের জীলানী (রা:) থেকে উদ্ধৃত্ত হয়েছে যে, তিনি মনে করতেন-“রোযা রেখে কেউ যদি মিথ্যা কথা বলে অন্যের গীবত করে কিংবা দৃষ্টিকে হারাম, গর্হিত বস্তু থেকে ফিরিয়ে রাখতে না পারে তার রোযা মাকরুহ তথা কলুষিত হয়ে গেল। রোযার বরকত তার ভাগ্যে জুটবে না (গুনিয়াতুত তালেবীন)”। তাই নিছক উপবাস নয় মাহে রমযানের তাৎপর্য অনুধাবনে ব্রতী হওয়া উচিত। সম্মানিত পাঠক চিন্তা করুনতো! আপনি আপনার অধীনস্থ কাউকে একটি কাজ করতে দিলেন সে কাজটি সম্পন্ন করলো দায়সারাভাবে কোথাও যেন একটু বেশকম কিংবা খুঁত রয়ে গেল তাহলে আপনার কেমন লাগবে। কাজটি আপনার অপছন্দনীয় হয়ে গেল। এ অপছন্দনীয়কে ইসলামী শরীয়তে মাকরুহ্ নামে অভিহিত করা হয়। এ প্রসঙ্গে রোযার মাকরুহ্ সমূহ জানা আবশ্যক। রোযা অবস্থায় যে সব কাজ মাকরুহ ঃ- ১. রোযা অবস্থায় গন্ধ জাতীয় বস্তু চিবানো, ২. বিনা ওযরে কোন কিছুর স্বাদ গ্রহণ করা, ৩. কোন বস্তু খরিদ করার সময় জিহবা দ্বারা এর স্বাদ গ্রহণ করা যেমন তৈল, মধু ইত্যাদি, ৪. শৌচ কর্ম সম্পাদনে অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করা, ৫. কুলি করার সময় গড়গড়া করা এবং নাকে পানি দেয়ার সময় নাকের ভিতর পানি টেনে নেয়া, ৬. পানিতে নেমে গোসল করার সময় বায়ু নির্গত করা, ৭. মূখে থুথু জমিয়ে তা গিলে ফেলা, ৮. নিজেকে নিরাপদ মনে না করলে এ অবস্থায় স্ত্রী চুম্বন করা বা তার সাথে কোলাকুলি করা। ৯. রোযা অবস্থায় কয়লা, মাজন বা পেষ্ট দিয়ে দাঁত মাজা, ১০. শিংগা লাগানো এবং অত্যাধিক কষ্টসাধ্য কাজ করা যা দ্বারা দুর্বল হয়ে যায়। (ইসলামী আইনশাস্ত্র মারাকিল ফালাহ্ ও ফতোয়ায়ে আলমগীরী)। ১১. মিথ্যা, চোগলখুরী, গীবত, গালা-গলি ও বেহুদা কথা বলা ইত্যাদি কারণে রোযা মাকরুহ হয়ে যায়। সুতরাং আমরা চেষ্টা করবো যাতে উল্লেখিত কাজগুলির কোনটিই যেন আমাদের দ্বারা সম্পাদিত না হয়। যেন আমরা আল্লাহর অপছন্দ হওয়া থেকে বাঁচতে পারি। আবার এমন কতগুলো কাজ রয়েছে যেগুলোতে রোযা মাকরুহ হয় না। তাহল-১. মিসওয়াক করা। রোযা অবস্থায় সকাল-সন্ধ্যা মিসওয়াক করা জায়েজ। ২. চোখে সুরমা ব্যবহার করা ও গোঁফে তৈল মালিশ করা। যদি সৌন্দর্য্য প্রদর্শনের উদ্দেশ্য না হয় তবে জায়েজ, আর যদি সৌন্দর্য্য প্রদর্শনের উদ্দেশ্য থাকে তবে মাকরুহ। ৩. নিজেকে নিরাপদ মনে করলে স্ত্রীকে চুম্বন করা। ৪. রোযা অবস্থায় কুলি করা বা নাকে পানি দেয়া। ৫. গোসল করা। ৬. শরীর ঠান্ডা রাখার জন্য ভিজা কাপড় শরীরে জড়িয়ে রাখা। ৭. স্বামী বদমেজাজী হলে জিহবার অগ্রভাগ দ্বারা খাদ্যের স্বাদ চেখে দেখা। ৮. অনন্যোপায়াবস্থায় রোযাদার মা কোন কিছু চিবিয়ে শিশুকে আহার করালে। উপরোক্ত কাজগুলি দ্বারা রোযা মাকরুহ হবে না। আল্লাহ যেন আমাদের সবাইকে সিয়ামের যথাযথ গুরুত্ব উপলব্ধি করে রোযা ভঙ্গের কারণ এবং মাকরুহের কাজগুলি জেনে সেগুলো থেকে বিরত থেকে আল্লাহ জাল্লাশানুহু ও তাঁর হাবীব সাল্লালাহু আলাইহে ওয়াসাল্লামের সন্তুষ্টি অর্জনের তৌফিক দান করেন, আমিন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com