শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চৌধুরী বাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জের কন্যার লাশ উদ্ধার লাখাই উপজেলা আ. লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত জুমার খুৎবায় আল্লামা তাফাজ্জুল হক ॥ ক্রেতা বিক্রেতার মাঝে আল্লাহভীতি না থাকায় দ্রব্য মূল্য বাড়ছে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে দালালদের বিরুদ্ধে রেড এলার্ড ঘোষণা দিলেন ওসি নবীগঞ্জে জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দল থেকে ৩০ জন নেতাকর্মীর গণফোরামে যোগদান ১৭ বাংলাদেশি জেলেকে ফেরত দিয়েছে মিয়ানমার নৌবাহিনী নবীগঞ্জের ৬নং কুর্শি ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন নবীগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা বরদা চরণ দাসের পরলোক গমন বানিয়াচংয়ে ধর্ষণ মামলার আসামী উজ্জল গ্রেফতার শায়েস্তাগঞ্জে বিএনপির কর্মী সভায় জিকে গউছ ॥ মেঘা প্রকল্প তৈরি করে দেশের টাকা লুটপাট করছে আওয়ামীলীগ নেতারা
বানিয়াচঙ্গে ১০ টাকা কেজি চাল ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ

বানিয়াচঙ্গে ১০ টাকা কেজি চাল ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচংয়ে হতদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ১০ টাকা কেজি দরে চাল ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ডিলার শাহজাহান মিয়ার বিরুদ্ধে। প্রতিকার চেয়ে সজিমা বেগম, হালিমা আক্তার, রেজিয়া খাতুন, রাজমিনা বেগম স্বাক্ষরিত আরও কয়েকজন উপকারভোগী কার্ডধারী বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জ জেলা জেলা প্রশাসক ও হবিগঞ্জ খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।
অভিযোগে বলা হয়, ত্রিকরমহল্লার মৃত আবদুর নূরের ছেলে মোঃ শাহজাহান মিয়াকে গ্যানিংগঞ্জবাজার ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রি করার ডিলার নিযুক্ত করা হয়। ডিলারের প্রতিনিধি জাতুকর্ণপাড়া মৃত মন্তাজ উল্লার ছেলে মো. সুবেদ আলী পাল্লা কিংবা মিটার দ্বারা চাল মাপার পরিবর্তে একটি বালতি দিয়ে মনগড়া চাল মেপে দিচ্ছেন। কার্ডধারীরা বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সহ ইউপি সদস্যদের অবগত করেন। গত ২৫ মার্চ চাল ক্রয়ের পর ডিলারের দোকানে স্থানীয় চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে কয়েকজন কার্ডধারীর চালের ওজন যাচাই করলে চাল ওজনে কম দেয়ার সত্যতা মিলে। প্রতি কার্ডধারীর কাছ থেকে ৩০ কেজির দাম রাখলেও চাল দিচ্ছেন ২৪ অথবা ২৫ কেজি করে। কোনো কার্ডধারী ৫ কেজি আবার অনেক কার্ডধারী ৬ কেজি চাল কম পাচ্ছেন। এই অনিয়মের তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করেন ইউপি সদস্য মহিবুর রহমান মোজাহিদ। তখন তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন ডিলারের প্রতিনিধি সুবেদ আলী। এ ঘটনার সুবেদ আলীর বিরুদ্ধে একই দিন বানিয়াচং থানায় লিখিত অভিযোগ করেন মোজাহিদ মেম্বার।
ওজনে কম দেয়ার ব্যাপারে জানতে গতকাল বিকালে একাধিকবার ডিলার মোঃ শাহজাহান মিয়ার মোবাইল ফোনে কল করলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো.খালেদ হুসাইন বলেন, পরস্পর জেনেছি উপকারভোগীরা ডিসি স্যারের বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। তবে অভিযোগের কপি এখনও আমার কাছে এসে পৌঁছায়নি। অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com