সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ১২:১৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
নবীগঞ্জের পানিউমদায় একটি স’মিল নিয়ে এলাকায় টান টান উত্তেজনা

নবীগঞ্জের পানিউমদায় একটি স’মিল নিয়ে এলাকায় টান টান উত্তেজনা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের পানিউমদা বাজারের সন্নিকটে মেসার্স মোহাম্মদ আলী কড়াতের সমিলের বিরুদ্ধে প্রাথমিক বিদ্যালয়, কমিউনিটি ক্লিনিকসহ আশপাশের পরিবেশ দূষণসহ চোরাই কাঠ পাচারে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় সংঘর্ষেরনন আশংকা করছেন এলাকাবাসী। ঘটনার খবর পেয়ে গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের একদল পুলিশসহ স্থানীয় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের পানিউমদা বাজারের সন্নিকটে ও পানিউমদা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পানিউমদা কমিউনিট ক্লিনিক, ইউপি অফিসের পাশে পানিউমদা লালটিলা এলাকার প্রভাবশালী মোহাম্মদ আলী বছরের পর বছর ধরে মেসার্স মোহাম্মদ আলী নামক কড়াতের সমিল দিয়ে পার্শ্ববর্তী পরিবেশ বিনষ্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদানে ব্যাঘাত, স্থানীয় কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবায় নিতে আসা রোগীদের সেবা প্রদানে ব্যাঘাত সৃষ্টিসহ রয়েছে গুরুতর অভিযোগ। এ ঘটনায় এলাকায় টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। খবর পেয়ে মঙ্গলবার গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা দেওয়ান জাহিদ আহমদ চৌধুরী, স্কুলের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক কুরুশ মিয়া ও দেওয়ান শামীম চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, মোহাম্মদ আলীর অবৈধ সমিলের কারণে পরিবেশ বিনষ্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান ও চিকিৎসা সেবা প্রদাণে শব্দ দূষণ ও পরিবেশ দূষণের মাধ্যমে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে আসছে। এ ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছি। অভিযুক্ত সমিলের মালিক মোহাম্মদ আলী বলেন, সরকারি বিধি মোতাবেক সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অনুমতিপত্র সহকারে আমি সঠিক ও বৈধভাবে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। যারা অভিযোগ করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com