রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১১:০৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগস্ট মাস আসলেই মনে দাগ কাটে-মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পইলে ৭৭টি গরু কুরবানী বাড়িয়ে দিল ঈদের আনন্দ নবীগঞ্জ অপহরণের ৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী মাধবপুরে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত এরশাদ আলী গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে ছেলে ধরা সন্দেহে এক ডাকাতকে গণধোলাই হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ বনাম জেলা খেলোয়ার কল্যাণ সমিতির মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্ট কাশ্মিরী মুসলমানদের অধিকার অবিলম্বে ফিরিয়ে দিন ॥ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ জ্যোতির্বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. দীপেন ভট্টাচার্য্যরে ॥ বক্তৃতা শুনে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহ বেড়েছে হবিগঞ্জের শিক্ষার্থীদের ধুলিয়াখাল-মাহমুদপুর বাইপাস সড়ক টমটম চুরির অভিযোগে যুবক আটক হবিগঞ্জে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির রক্তদান কর্মসূচী ও শোক সভা
বানিয়াচঙ্গে নুর আলম হত্যা মামলা ১৬ আসামীর জামিন না-মঞ্জুর

বানিয়াচঙ্গে নুর আলম হত্যা মামলা ১৬ আসামীর জামিন না-মঞ্জুর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচংয়ের চাঞ্চল্যকর নুর আলম হত্যা মামলার ১৬ আসামীর জামিন না-মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল সোমবার ওই আসামীরা সংশ্লিষ্ট আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে তা না-মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। এ নিয়ে ওই মামলার ১৮ আসামীকে কারাগারে প্রেরণ করা হল। কারাগারে প্রেরণকৃত আসামীরা হল, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া ইউনিয়নের নোয়াখাল গ্রামের নিয়ামত উল্লার পুত্র আবেদ মিয়া, কনু মিয়ার পুত্র শাহাব উদ্দিন, রশিদ মিয়ার পুত্র রফিক মিয়া, আব্দুল নূর এর পুত্র আহাদ মিয়া, আব্দুল লতিফের পুত্র জাহাঙ্গীর মিয়া, বাবরু মিয়ার পুত্র জিতু মিয়া, আব্দুল মনাফের পুত্র জাহুরুল ইসলাম, রশিদ মিয়ার পুত্র সফিক মিয়া, আরজু মিয়ার পুত্র শাহ আলম, রাজা মিয়ার পুত্র শাহিদ মিয়া, কালা মিয়ার পুত্র মাসুক মিয়া, জলিল মিয়ার পুত্র আকলু মিয়া, মধু মিয়ার পুত্র শুকুর মিয়া, জব্বার মিয়ার পুত্র সিরাজ মিয়া, লিলা মিয়ার পুত্র আব্দুল হামিদ, কলমদর মিয়ার পুত্র তাজু মিয়া, জলিল মিয়ার পুত্র রাসেল মিয়া ও নাইওর মিয়ার পুত্র স্বপন মিয়া।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর নিখোঁজ হন নুর আলম। এরপর থেকে তার মোবাইলটি বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনার ২ দিন পর ১৪ অক্টোবর শনিবার সকালে নবীগঞ্জ উপজেলাধীন বিজনা নদীর পূর্ব পাশে গুঙ্গাজুড়ি হাওড় এলাকা থেকে বস্তাবন্দি অবস্থায় নুর আলমের ক্ষতবিত লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরীর পর ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ। পরে ৩২ জনকে আসামী করে সংশ্লিষ্ট আদালতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহত নুর আলমের মা ছোকেরা খাতুন।
মামলায় উল্লেখ করা হয়, “বিলের ব্যবসা সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির কথা বলে আসামী সানু মিয়া ও কনু মিয়া উল্লেখিত সময়ে বাড়ি থেকে ডেকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় নুর আলমকে। এরপর আসামীরা নুর আলমকে হত্যা করে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে বস্তাবন্দি করে নদীতে ফেলে দেয়”। নিহত নুর আলম বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া ইউনিয়নের আগলাবাড়ি-কৃষ্ণনগর গ্রামের ময়না মিয়ার পুত্র।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com