সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০২:২১ অপরাহ্ন

অসময়ে চলে গেলেন আমাদের অভিবাবক

অসময়ে চলে গেলেন আমাদের অভিবাবক

এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান
গতকাল বাদ আসর। হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সাংবাদিক ফোরাম আয়োজিত সবেমাত্র মিলাদ মাহফিল শুরু হয়েছে। উদ্দেশ্য হবিগঞ্জের সাংবাদিক অঙ্গনের পথিকৃৎ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেনের রোগমুক্তি কামনা। মিলাদ মাহফিল চলাকালীন একটি ফোন আসে। অপরপ্রাপ্ত থেকে যে খবরটি আসল তা শুনে হয়ে পড়ি কিংকর্তব্যবিমূর। এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেনের এই মৃত্যু সংবাদ শোনে সবার মুখখানী হয়ে যায় মলিন। অনেকের চোখে দেখা দেয় অশ্র“। যে মিলাদ আয়োজন করা হয়েছিল রোগমুক্তি কামনায়। তা শেষ হয় আত্মার মাগফিরাত কামনার মাধ্যমে। এরপর একে একে সবাই আসতে থাকেন প্রেসক্লাবে। সবার মাঝেই শোকের ছায়া। প্রিয়জন হারানোর বেদনায় মলিন মুখগুলো দেখলেই বুঝা যায় সকলেই অভিভাবককে হারিয়ে হতবিহ্বল। মানুষের মাঝে এই হতাশার চিহ্ন দেখে বুঝে নিতে কষ্ট হয়নি এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেন কতটা আপন ছিলেন হবিগঞ্জের সাংবাদিক অঙ্গনে।
স্বাধীনতার পূর্বে যখন টগবগে যুবক তখন ১৯৬৬ সালে মানুষের কল্যাণে কাজ করার ব্রত নিয়ে হাতে তুলে নেন কলম। এই কলমকে সবসময় সময় নির্যাতিত-নিপীড়িত ও বঞ্চিত মানুষের পক্ষে অস্ত্রের মতো ব্যবহার করেন তিনি। তবে ৫০ বছরের কর্মজীবনে এই কলম দ্বারা আহত হয়নি একটি মানুষও।
সামাজিকভাবে বিভিন্ন পর্যায়ে প্রতিষ্ঠা পেলেও এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেনের সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ছিলেন একজন সাংবাদিক নেতা। নিজে নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি হবিগঞ্জের সাংবাদিক অঙ্গনে নেতৃত্ব সৃষ্টি করে রেখে গেছেন। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে তিনি অতি স্নেহে উদ্বুদ্ধ করেছেন সৎ-সাহসী সাংবাদিকতায়। যেখানে অনেক সিনিয়রা জুনিয়রদের উত্থানকে ভালোভাবে মেনে নিতে পারেননি। বিভিন্ন জায়গায় জুনিয়রদের বদনাম করতেও কোণ্ঠাবোধ করেন না। সেখানে আমীর হোসেন সবসময় জুনিয়রদের সামনে এগিয়ে নেওয়ার স্বপ্নের সারতি ছিলেন। তবে জুনিয়ররা ভুল করলে তাকে কঠোর শাসন করতেন। কিন্তু বাইরে কোথাও যাতে তার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন না হয় সে ব্যাপারে সব সময় সচেষ্ট ছিলেন।
সাংবাদিকতা পেশার মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখতে তিনি সবসময় তৎপর ছিলেন। এই পেশা নিয়ে কোন ধরণের আক্রমন তিনি সহ্য করতে পারতেন না। পাশাপাশি কোন সাংবাদিক যদি নির্যাতিত ও নিপীড়িত হতো তাহলে সবার আগে হাত বাড়াতেন তিনি। বটগাছের ছায়ার মতো আগলে রাখতেন সহকর্মীদেরকে। সাংবাদিকদের যে কোন অনুষ্ঠানকে সফল করতে তিনি সামনের সারিতে থাকতেন।
সত্যিকারের অভিভাবকের দায়িত্ব পালনে তিনি অতুলনীয় ছিলেন বলেই সবসময় সাংবাদিকরা তাকেই নেতা নির্বাচন করতেন। ভোটে দাঁড়ালে তার বাক্স ভড়ে যেতো সবার আগে। আবার এমন জনপ্রিয়তা থাকার পরও নিজে নেতার আসনে বসে না থেকে নতুন প্রজন্মের কাছে নেতৃত্বে ছেড়ে দেওয়ার মতো বড় মানসিকতাও ছিল তার। বর্তমান সমাজে চেয়ারের প্রতি এ ধরণের নির্মোহ থাকা সত্যিই বিরল ঘটনা। এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেন চলে গেলেও তিনি আমাদের কাছে রেখে গেছেন আদর্শ। আমরা সেই আদর্শকে লালন করেই এগিয়ে যেতে চাই।
এডভোকেট মোঃ আমীর হোসেন সকল পেশা ও কাজেই সফলতা পেয়েছেন। শুধু সাংবাদিকতার নেতৃত্ব দেননি। আইনজীবী সমিতিরও নেতৃত্ব দিয়েছেন। হয়েছিলেন জেলার সর্বোচ্চ আইনকর্তা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তার শ্রম ও মেধার স্বাক্ষর রয়েছে। পারিবারিকভাবে তিনি একজন সফল অভিভাবক। নিজের তিন সন্তানকেই প্রতিষ্ঠিত করে যখন সত্যিকারের আরাম আনন্দে অবকাশ যাপনের সময় এসেছিল তখনই তাকে সাড়া দিতে হলো ওপারের ডাকে। জীবন সংগ্রামে তার সবকিছিুই পরিপূর্ণ হলেও হবিগঞ্জের সাংবাদিকতা জগতের জন্য তার আরও প্রয়োজন ছিল। সম্প্রতি তিনি যখন সিলেট থেকে সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য স্বর্ণপদক গ্রহণ করলেন তখন তার মাঝেও নতুন স্পৃহার জন্ম নিয়েছিলো। আজ সেই স্পৃহা অপূর্ণই থেকে গেলো। আমরাও হয়ে পড়লাম অভিভাবকহীন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com