শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:০২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বাল্লা স্থল বন্দর ও হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ হবিগঞ্জের চিহ্নিত অপরাধী আশিকুর রহমান গ্রেফতার গ্রীসে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ॥ নবীগঞ্জের মমিনের ঘর বাঁধার স্বপ্ন পূরণ হলনা আজমিরীগঞ্জের কর্মকর্তাবৃন্দের সাথে বিভাগীয় কমিশনারের মতবিনিময় নবীগঞ্জের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ জনের মৃত্যু ॥ আক্রান্ত ৩ জন মৃত্যুর পূর্ব মূর্হুত পর্যন্ত মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর কাজ করে যেতে চাই-সৈয়দ মোঃ ফয়সল সুইডেনে কুরআন অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মানববন্ধন নবীগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত হয়ে হবিগঞ্জ এলজিইডির উপ-সহকারী কর্মকর্তার বাবা মারা গেছেন হাজী মনু মিয়া ও ওমর ফারুক আনসারীর মৃত্যুতে ইউকে কমিউনিটি ব্যক্তিবর্গের শোক মারামারি মামলায় সাংবাদিক শাওন খানের জামিন লাভ
৪৪টি ওষুধের রেজিস্ট্রেশন বাতিল

৪৪টি ওষুধের রেজিস্ট্রেশন বাতিল

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ মানবহির্ভুত হওয়ার কারণে ৪৪টি ওষুধের রেজিস্ট্রেশন বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মোস্তাফিজুর রহমান। বুধবার দুপুরে অধিদফতরের সভাক্ষকে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। সম্প্রতি উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ২০টি ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সব প্রকার ওষুধ এবং ১৪টি ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সব ধরণের এন্টিবায়োটিক উৎপাদন বন্ধকরণ প্রসঙ্গে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের পরিচালক মো. রুহুল আমিন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন পরিচালক মো. গেলাম কিবরিয়া, ঔষধ তত্ত্ববধায় সৈকত কুমার কর, এস এম সাবরীনা ইয়াসমিন প্রমুখ।
মূল প্রবন্ধে জানানো হয়, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী- ২০টি ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সব ধরণের ওষুধ উৎপাদন বন্ধের যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে ১৩টির লাইসেন্স বাতিল এবং ১৬টির কারখানা সিলগালা করা হয়েছে। তালিকার ৩টি প্রতিষ্ঠানের কোনও অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। এছাড়া উচ্চ আদালতের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে ১৪টি প্রতিষ্ঠানের সব ধরণের এন্টিবায়োটিক জাতীয় ওষুধের উৎপাদন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং তাদের ওষুধ বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা বাস্তবায়নে ব্যর্থ হলে প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া এসব প্রতিষ্ঠানের কোন ওষুধ বাজারে পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট বিক্রেতার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সব বিভাগীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ঔষধ তত্ত্ববধায়কদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে মেজর জেনারেল মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গত তিন মাসে ৫ হাজার ৮৩৮টি দোকান এবং ১৪০টি কারখানা পরিদর্শন করা হয়। এসময় ৫০১টি ওষুধের নমুনা পরীক্ষার জন্য ড্রাগ টেস্টিং ল্যাবরেটরিতে আসে। এরমধ্যে ৬টি মান বহির্ভূত হিসেবে চিহ্নিত হয়। বিগত তিন মাসে ড্রাগ কোর্টে ১১টি মামলা এবং মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ১৭২টি মামলা দায়ের করা হয়। পরিচালিত মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৯০ লাখ ৫৪ হাজার টাকা জরিমানা হিসেবে আদায় করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com