সোমবার, ০৬ Jul ২০২০, ১২:৩৪ অপরাহ্ন

ইনাতগঞ্জে কোটি টাকার সরকারী সম্পত্তি এক মাসেও উদ্ধার হয়নি ॥ জবর দখলকারীদের খুটিঁর জোর নিয়ে প্রশ্ন?

ইনাতগঞ্জে কোটি টাকার সরকারী সম্পত্তি এক মাসেও উদ্ধার হয়নি ॥ জবর দখলকারীদের খুটিঁর জোর নিয়ে প্রশ্ন?

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন সরকারের কোটি টাকার সম্পত্তি জবর দখলের এক মাস অতিবাহিত হলে জবর দখলকারী ভুমি খেকোদের কবল থেকে উদ্ধার করতে পারেনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। এ নিয়ে জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঈদের পরে সরজমিনে গিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আভাস পাওয়া গেলেও তিনি যাওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।
উল্লেখ্য, উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের মোস্তফাপুর মৌজার জেএলনং ১৮, খাস খতিয়ান-১ ও দাগ নং-১২৮ এর গোপাট রকম ভুমির ২২ শতক ভুমির মধ্যে অন্তত ৭/৮ শতক ভুমি প্রায় কোটি টাকা মুল্যের সরকারী সম্পত্তি গত ২৭ জুন গভীর রাতে একদল ভুমি খেকো স্থানীয় ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম ব্যবহার করে জবর দখল করে একটি টিন সেট ঘর নির্মাণ করেছে। এর আগে ২৭ জুন দিনের বেলায় উক্ত ভুমি জবর দখলের খবর পেয়ে ইনাতগঞ্জ তহশীল অফিস অবৈধ দখলদারদের মৌখিক ভাবে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছিল। তা না মানায় ২৮ জুন স্থানীয় তহশীলদার মহসিন ভুইঁয়া ৮৭ নং স্মারকে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি বরাবরে অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে একটি পত্র প্রেরন করেন। এর প্রেক্ষিতে গত ৩০ জুন সহকারী কমিশনার (ভুমি) মোঃ আনোয়ার হোসেন সরজমিনে গিয়ে অবৈধ দখলদারদের তাদের স্থাপনা ৩ দিনের মধ্যে সরিয়ে নেয়ার জন্য নিদের্শ প্রদান করেন। উপজেলা প্রশাসনের দ্বিতীয় স্তম্ভ সহকারী কমিশনার (ভুমি) নবীগঞ্জের নির্দেশকে উপেক্ষা করে এক মাস অতিবাহিত হলে উক্ত অবৈধ স্থাপনা সড়িয়ে না নেয়ায় এলাকায় বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। জবর দখলকারীরা স্কুলের স্বার্থে সরকারের কোটি টাকার সম্পত্তি দখলের কথা বললেও বাস্তবে স্কুলের কোন উপকারে আসবে না বলে অনেকেই মত প্রকাশ করেছেন। স্থানীয় চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল বাতেনসহ এলাকার লোকজন ওই অবৈধ স্থাপনা বহাল থাকলে উক্ত ভুমির পাশে সরকারের আরো কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি বেহাত হওয়ার আশংকা করছেন। এছাড়া স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অবৈধ দখলদার সকদিল হোসেন দম্ভোক্তি দিয়ে বলেছেন, আদালতের নির্দেশ ব্যতিত কারো কথায় স্থাপনা সরাবেন না। খোজঁ নিয়ে জানা গেছে, স্কুলের নাম ব্যবহার করে অবৈধ ওই স্থাপনা নির্মাণ করলেও ৭টি রুম কতিপয় ৭ জনের মধ্যে বন্টন করা হয়েছে। কে কোন রুম নিবেন তা পুর্বে নির্ধারণ করেই সরকারের কোটি টাকার ওই সম্পত্তি জবর দখল করেছেন ভুমি খেকো ওই চক্র। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাতেন বলেন, সরকারের কোটি টাকার ওই সম্পত্তি স্কুলের নাম ব্যবহার করে একদল ভুমি খেকো রাতের আধারে ওই জায়গা টুকু দখল করে নিয়েছে। এতে পানি চলাচলের রাস্তা বন্ধসহ এখানকার পরিবেশ বিনষ্ট হওয়ার আশংকা রয়েছে। পাশাপাশি অবশিষ্ট সরকারের কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তিও বেহাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, এলাকাবাসী উক্ত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবী জানালেও কর্র্তৃপক্ষ এক মাসের মধ্যেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় অবৈধ দখলদারদের কুটিঁর জোর নিয়ে জনমনে প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানান। আলোচিত এ ঘটনাটি নিয়ে দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেস পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com