মঙ্গলবার, ০২ Jun ২০২০, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
মাধবপুরের এক বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ভূমি দখলসহ এন্তার অভিযোগ

মাধবপুরের এক বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ভূমি দখলসহ এন্তার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাধবপুরে এক বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে বাগানের নিরীহ চা শ্রমিক ও হিন্দু আওয়ামীলীগ কর্মীদের নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০০১ সালের পর নিরীহ মানুষের উপর বিএনপি নেতা জাকারিয়া ও তার লোকজনের নির্যাতন আরও বেড়ে যায়। নিরীহ চা শ্রমিক ও হিন্দু আওয়ামীলীগ কর্মীদের ফুলপ্যান্ট কেটে হাফ প্যান্ট বানিয়ে তাদের শারিরিক নির্যাতনও করা হতো। গতকাল পুলিশ সুপারের নিকট দেয়া অভিযোগ জাকারিয়া ও তার লেঅকজনের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ উল্লেখ করা হয়েছে। মাধবপুরের হরিতলা গ্রামের কামাল মিয়ার দেয়া অভিযোগপত্রটি গতকাল পুলিশ সুপার কার্যালয় রিসিভ করে। অভিযোগে বলা হয় জাকারিয়া শুধু মাধবপুর ও মাধবপুরের শিল্প এলাকায়ই সীমাবদ্ধ থাকেনি। রাস্তায় যানবাহন চলাচলে বাধা সৃষ্টি, পুলিশের কাজে বাধা, জনমনে ত্রাস সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে জাকারিয়া ও তার সহযোগিদের বিরুদ্ধে। গত ৪ জানুয়ারী হবিগঞ্জ শহরে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে গত ৪ জানুয়ারী দ্রুত বিচার আইনে দায়েরকৃত মামলায় জাকারিয়া ও তার কতেক সহযোগিকে আসামী ভূক্ত করা হয়েছে। মাধবপুর ও হবিগঞ্জের কয়েকজন আওয়ামীলীগ নেতার মাধ্যমে দ্রুত বিচার মামলার চার্জশীট থেকে তার ও তার সহযোগিদের নাম বাদ দেওয়ার জন্য চালিয়ে যাচ্ছেন জোর তদবির।
অভিযোগে বলা হয়, মাধবপুরের শাহজীবাজার এলাকায় বহুজাতিক কোম্পানী শিল্প প্রতিষ্টান স্থাপন করায় ওই এলাকার জমির কয়েকশ গুন বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে আমরা আনন্দিত হবার পাশাপাশি আতংকিত। কারণ শিল্প এলাকাকে ঘিরে দালাল সৃষ্টি হয়েছে। এরা প্রকৃত মালিকদের জমি জোর জবরদস্তির মাধ্যমে কোম্পানীকে দিতে মরিয়া। এতে এলাকার সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আর কোটি কোটি টাকার মালিক হচ্ছে দালাল ও সন্ত্রাসীরা। অভিযোগে বলা হয়, কামাল মিয়া ও ফজলুর রহমানের স্বত্বদখলীয় ৪ একর ২৮শতক ভূমির মালিক ছিলেন ফজলুর রহমানের পিতা একরাম আলী ও আমার পিতা শুকুর মামুদ। আমাদের এলাকায় নাহিদ ফাইন টেক্সটাইল কোম্পানী আমাদের জমি ক্রয় করতে চাইলে আমরা উপযুক্ত বাজার মূল্য না পাওয়ার আশংকায় জমি বিক্রি করতে রাজি হইনি। এতে জাকারিয়াসহ স্থানীয় সন্ত্রাসীরা আমাদের জমি দখল করার পায়তারা করে। জাকারিয়া তার কথা মতো জমি বিক্রি না করলে খুন করার হুমকি দেয়। ফলে বাধ্য হয়ে হবিগঞ্জ সাব জজ-১ আদালতে ও হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছি। এছাড়া ডিআইজ ও হবিগঞ্জ পুলিশ সুপারের নিকট ইতিপূর্বে একাধিক আবেদন করেছি। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে গিয়ে তা বাস্তবায়িত হয় না। অভিযোগে বলা হয়, মসজিদ এবং মাদ্রাসার জায়গা দখল করে ভূয়া মালিক সাজিয়ে জাকারিয়া ভূয়া দলিল করে এতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে প্রশাসন তাকে জায়গা থেকে উচ্ছেদ করে।
অভিযোগে কামাল মিয়া পৈতিক সম্পত্তি ও জানমালের নিরাপত্তা দাবী করে বলেন, জাকারিয়া মাধবপুরের এক শিল্পপতির ব্যক্তিগত সহকারী ছিলেন। শাহজীবাজার এলাকায় শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠায় জাকারিয়া চাকুরী ছেড়ে জমির দালালিতে নেমে পড়েন। মাত্র ৪/৫ বছরের ব্যবধানে অবৈধ পথে জাকারিয়া ও তার পরিবার এখন শত কোটি টাকার মালিক।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com