রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
নবীগঞ্জে মাছ কেনাকে কেন্দ্র করে ৭ গ্রামের সংঘর্ষ ॥ আহত অর্ধশত

নবীগঞ্জে মাছ কেনাকে কেন্দ্র করে ৭ গ্রামের সংঘর্ষ ॥ আহত অর্ধশত

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে মাছ কেনাকে কেন্দ্র করে ৭ গ্রামবাসীর সংঘর্ষে মহিলাসহ অর্শশতাধিক লোক আহত হয়েছে। গুরুতর আহত আকবর মিয়া (২২), হাবিবুর রহমান তালুকদার (৫৫), জলিল মিয়া (৪০)কে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে নবীগঞ্জ মাছবাজার ও মধ্যবাজার এলাকা রনক্ষেত্রে পরিনত হয়। ব্যবসায়ীরা দোকান পাট বন্ধ করে আতংকিত মানুষজনকে দিকবিদিক ছুটাছুটি করতে দেখা যায়। শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
একটি সূত্রে জানা যায়, গতকাল সোমবার বিকালে নবীগঞ্জ মাছ বাজারে মাছ ক্রয় করতে যায় নবীগঞ্জ পৌর এলাকার পূর্ব তিমিরপুর গ্রামের হাবিব তালুকদারের পুত্র সুহেল তালুকদার (১৭)। এ সময় পৌর এলাকার রাজাবাদ গ্রামের মাছ বিক্রেতা মাছের দামদর নিয়ে সুহেলের সাথে অশোভন আচরন। খবর পেয়ে সুহেলের পিতা হাবিব তালুকদার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাছ বাজারে গেলে মাছ বিক্রেতার সাথে বাকবিতন্ডা হয়। এর জের ধরে উভয় পক্ষের মাঝে সংষর্ঘ বাধে।
অপর সূত্রে জানায়, সোহেল তালুকদার বাইসাইকেল নিয়ে মাছ বাজারের ভিতরের প্রবেশ করে। এসময় এক মাছ ব্যবসায়ী প্রতিবাদ করলে সোহেল তাকে গালমন্দ করে। এসময় মাছ ব্যবসায়ীরাও তাকে গালিগালাজ করে। এ খবর পেয়ে তার পিতা হাবিবুর তালুকদার গ্রামে লোকজন নিয়ে মাছ বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের মারধর করেন। এনিয়ে উভয় পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ বাধে। এ খবর পেয়ে পূর্ব তিমিরপুরের সাথে পশ্চিম তিমিরপুর ও চরগাও এবং রাজাবাদের সাথে রাজনগর, কানাইপুর ও হরিপুরের লোকজন যোগ দেয়। এতে সংঘর্ষ ভয়াবহ আকার ধারণ করে। বাজারের দোকান পাট বন্ধ হয়ে যায়। ভয়ার্তমানুষ দিকিবিদক ছুটোছুটি করে আত্মরক্ষা করে। সংঘর্ষ চলাকালে মাছ বাজার ও মধ্য বাজারের ২৪/৩০টি দোকান ভাংচুর করা হয়।
সংঘর্ষের খবর পেয়ে নবীগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারী ভুমি মাহমুদুল হক, পৌর সভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র আলহাজ্ব ছাব্বির আহমেদ চৌধুরী, থানার অফিসার ইনচার্জ লিয়াকত আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ইমদাদুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরী, থানা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান সেফু, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মুজিবুর রহমান কাজল, এডঃ গতি গোবিন্দ দাশ, কাজী হেলাল, বিএনপি নেতা তহিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক রেজভী আহমেদ খালেদ, রবীন্দ্র পাল, কাউন্সিলর সুন্দর আলী, এটিএম সালাম, সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন মিঠু, মোঃ আলমগীর মিয়া প্রমুখ নেতৃবন্দ এগিয়ে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়। এর মধ্যে আহমদ (১৭), মাসুক মিয়া (৪০), রেজা আহমদ চৌধুরী (৩৮), জয়নাল আবেদীন (৩০), রুবেল মিয়া (২৮), আয়াজ মিয়া (৩০), ফয়সল তালুকদার (২৭), জাকির আহমদ চৌধুরী (২৭), নুরুল হক (২০), রুহেল মিয়া (২৮), বারফুল বিবি (৬০), আজমত আলী (৩২), আরশাদুল আমিন (১৯), শিপন মিয়া (২৫), ফয়েজ আহমদ (৩৭), আকবর আলী (২২), নুরুল আমিন (৩৫), আলামিন (৩০), আয়াছ মিয়া (৩০), হাবিবুর রহমান (৪২), আরমান মিয়া (৪০), সুহেল তালুকদার (১৪), রুয়েল চৌধুরী (২৭), ও নুরুল হক (২০ কে নবীগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
সংঘর্ষের পর সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হোসেনের নেতৃত্বে একদল দাঙ্গা পুলিশ শহরের অবস্থান করছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com