সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ব্যবসায়ীদের স্বপ্ন পুড়ে ছাই ॥ ক্ষতি প্রায় ৩ কোটি টাকা ॥ এমপি মজিদ খানের পরিদর্শন নবীগঞ্জে আ.লীগ নেতাসহ ৫ জনকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত হবিগঞ্জে ডিসির আশ্বাসে বাস চলাচল স্বাভাবিক এমপি আবু জাহিরকে তাক লাগানো সংবর্ধনা দিল গোপায়া ইউনিয়নবাসী ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্ত্বা দেয়ার আহবান জানালেন মোতাচ্ছিরুল ইসলাম ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের নয়া কমিটি মর্তুজ আলী সভাপতি, আব্দুল্লাহ সম্পাদক মৎস্যজীবী লীগের স্বীকৃতিপ্রাপ্তির বর্ষপূর্তি উদযাপন ॥ তাজুল ইসলামকে ¯œানঘাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দেয়ার দাবি আজমিরীগঞ্জে সরকারী ভূমিতে দোকান ঘর নির্মানের চেষ্টা ॥ প্রশাসনের নির্দেশে কাজ বন্ধ মাধবপুরে বাহাদুর হত্যা মামলা অবশেষে পিআইবিতে হস্তান্তর মেয়র প্রার্থী নিলাদ্রী টিটু’র সমর্থনে ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভা
বকেয়া বিলের কারণে সেচ প্রকল্পের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ॥ গুঙ্গিয়াজুরী হাওড়ে অনাবাদী থাকছে ৩ হাজার বিঘা জমি

বকেয়া বিলের কারণে সেচ প্রকল্পের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ॥ গুঙ্গিয়াজুরী হাওড়ে অনাবাদী থাকছে ৩ হাজার বিঘা জমি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বকেয়া বিলের কারণে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় গুঙ্গিয়াজুরী হাওরে প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমি সেচের অভাবে চাষাবাদ করতে পারছেন না কৃষকরা। এতে হাজারো কৃষকের মাথায় হাত পড়েছে। প্রভাব এর কারণে কেউ এর প্রতিবাদ করতে পারছেন না। সেচ প্রকল্পের মালিক হচ্ছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীন ছালেক নামে এক ব্যক্তি।
জানা যায়, দীর্ঘ ২৯ বছর ধরে জয়নাল আবেদীন ছালেক গুঙ্গিয়াজুরী হাওরের ওই সেচ প্রকল্পটি পরিচালনা করে আসছেন। এ প্রকল্পের আওয়ায় জমির পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমি। ওই প্রকল্পের আওতায় কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি বছর অনিয়মতান্ত্রিকভাবে অতিরিক্ত চার্জ আদায় করে থাকেন ছালেক। কিন্তু বিদ্যুৎ বিল নিয়মিত পরিশোধ না করায় তার নিকট সেচ প্রকল্পের ১৩ লাখ টাকাসহ প্রায় ২১ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া। একের পর এক নোটিশ দেয়ার পরও তিনি বিল পরিশোধ করেন নি। এতে সম্প্রতি পিডিবি কর্মকর্তারা বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেন। পাশাপাশি মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
এদিকে এর মাশুল গুণতে হচেছ প্রান্তিক কৃষকদের। অনাবাদী পড়ে আছে গুঙ্গিয়ারজুড়ি হাওরের প্রায় তিন হাজার বিঘা জমি। কর্মসংস্থান হারিয়ে বেকার হয়ে আছেন হাজারো শ্রমিকরা। পানির অভাবে নিজেদের জমি চাষ করতে পারছে না রামপুর, গোবিন্দপুর, আওরা মজলিসপুর, লামাপইলসহ আশপাশের সাত গ্রামের হাজারো কৃষক। ফলে প্রতিবছর ওই এলাকা থেকে কমপক্ষে ৫০ হাজার মণ ধান উৎপাদন হলেও এবার তা সম্ভব হবে না। বছরজুড়ে কী খাবেন, কিভাবে ছেলে-সন্তানের লেখাপড়ার খরচ যোগাবেন এই নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে কৃষকরা। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেও ছালেকের বিরুদ্ধে মুখ খোলতে সাহস পায় না সাধারণ মানুষ। এ ব্যাপারে কৃষকরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com