শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ১১:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা চেয়ারম্যান মুকুল বরখাস্ত ॥ দিনারপুর পরগনার কলঙ্কজনক অধ্যায় তেঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনু মিয়ার বাড়ীতে প্রতিপক্ষের হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ ১ জন গ্রেফতার বানিয়াচঙ্গে মেয়াদোত্তীর্র্ণ ঔষধ বিতরণ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় টনক নড়েছে কর্তৃপক্ষের ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন হবিগঞ্জে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ২৯ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেছেন এমপি এডাভোকেট আবু জাহির করোনা আমাদের কাছে সত্যিই হার মেনেছে শায়েস্তাগঞ্জের ইউএনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ॥ জেলায় নতুন আক্রান্ত আরও ২৭ জন বানিয়াচংয়ে প্রশাসনের অভিযানে জব্দ ‘কারেন্ট জাল’ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতন নাগরিক কমিটির আজমিরীগঞ্জ উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করোনা পরিস্থিতির মাঝে মাধবপুরে ডেঙ্গু নিয়ে ভাবনা
মামলা কমাতে পুলিশ কর্মকর্তার রবিউল ইসলামের অভিনব কৌশল

মামলা কমাতে পুলিশ কর্মকর্তার রবিউল ইসলামের অভিনব কৌশল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে সালিশের মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তিতে মনযোগী হয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা। বিরোধপূর্ণ পক্ষগুলোকে নিয়ে বসে উভয়ের কথা শুনেন। সাক্ষীদেরও সাক্ষ্য নেন। এরপর তা মীমাংসা করে দেন। এমনভাবে বিরোধ নিষ্পত্তি করেন উভয় পক্ষই তাতে সন্তুষ্ট থাকে। অনেক সালিশ করেন গল্পের ছলেও। যে কেউ দেখলে মনে করবেন, যেন কোনো গ্রাম্য মুরব্বি সালিশ করে দিচ্ছেন। এমন অভিনব কৌশল বেছে নিয়েছেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম। সালিশে তিনি উভয়পক্ষের মুরব্বিদেরও পরামর্শ নেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম জানান, মানুষের সমস্যাগুলোকে নিজের সমস্যা মনে করেই দেখি। তাদের সুখ দুঃখের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনি। মানুষ যখন তার ক্ষোভের কথা মন খুলে বলতে পারে তখন তার ক্ষোভ অনেকটাই কমে যায়।
তিনি বলেন, ছোটখাটো বিষয়ে মামলা মোকদ্দমায় মানুষ জড়িয়ে তার সহায় সম্পদ সব নষ্ট করে। এগুলো আমাকে পীড়া দেয়। আদালতে দৌড়ে মানুষ সব নষ্ট করে। এমন তাড়না থেকেই আমি সালিশে বিরোধ নিষ্পত্তির উদ্যোগী হয়ে উঠি। এতে পুলিশের প্রতিও মানুষের আস্থা বাড়ে। এখন পুলিশকে ভয় নয়, আপন মনে করে মানুষ।
জানা গেছে, গত এক বছরে সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় শতাধিক বিরোধ সালিশে নিষ্পত্তি করেছেন পুলিশ কর্মকর্তা। দিনরাত তিনি বিভিন্ন স্থানে চষে বেড়ান মানুষের বিরোধ খোঁজে। স্থানীয় কমিউনিটি পুলিশ, বিট পুলিশ কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, গ্রাম্য মুরব্বিসহ বিভিন্ন পেশার মানুষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন। তাদের মাধ্যমে বিরোধীয় পগুলোকে খুঁজে বের করে সালিশের আয়োজন করা হয়। হাটবাজার, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় সচেতনতামূলক সভা করেন। সব শ্রেণির মানুষের কাছে নিজের মোবাইল নম্বর ছড়িয়ে দেন। কেউ যেন কোনো বিরোধে জড়ালেই তাকে জানানো হয়। নির্ধারিত কোনো সোর্স নিয়োগ না করে স্থানীয় মানুষের সহায়তায় অপরাধ দমনে কাজ করছেন। বিভিন্ন স্থানে সচেতনতামূলক সভা করেছেন ৫শ টি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com