রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
লাখাইয়ে গণহত্যা দিবস পালিত

লাখাইয়ে গণহত্যা দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখাইয়ের কৃষ্ণপুর গ্রামে গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বুধবার দুপুরে কৃষ্ণপুর বধ্যভূমির স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে নিরবতা পালন করাসহ ৫ শহীদের পরিবারের সদস্যদের সম্মাননা তুলে দেয়া হয়েছে। জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের কর্মসূচি সূচনা করা হয়। অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা বীরমুুক্তিযোদ্ধা অমরেন্দ্র লাল রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় সভায় প্রধান অতিথির হিসেবে বক্তৃতা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হবিগঞ্জ সদর সার্কেল) মোঃ রবিউল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভারপ্রাপ্ত ইউএনও সঞ্চিতা কর্মকার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার গৌর প্রসাদ রায়, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তদন্ত সংস্থা কর্তৃক গঠিত জেলা স্বাক্ষী ও ভিকটিম সুরা কমিটির সদস্য রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট সালেহ উদ্দিন আহামেদ, লাখাই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন, শিক্ষা বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী (অবঃ) প্রদীপ কান্তি রায়, শিক্ষক প্রীতি রঞ্জন দাশ, লিটন চন্দ্র সূত্রধর, হামলায় আহত প্রিয়তোষ রায়, কৃষ্ণ মোহন রায়, ডাঃ অনুপ রায়, শিক্ষার্থী প্রমা দাস, দিপ্তী দাস, মিঠু দাস প্রমূখ। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত পুলিশ রবিউল ইসলাম বলেন- ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার প্রায় ছয় মাস পর পাক-হানাদার বাহিনী মুক্তিকামী মানুষের মনোবল ভেঙ্গে দিতে দেশব্যাপী আতঙ্ক ছড়িয়ে দিতে নিরীহ মানুষের উপর গণহত্যার পরিকল্পনা চালায়। এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে তারা হাওর অঞ্চল লাখাই উপজেলা কৃষ্ণপুর গ্রামে চালিয়ে নারকীয় হত্যাকান্ডের ঘটনায়। তিনি বলেন-স্থানীয় রাজাকার, আলবদর, আলশামস, বাহিনীর সহযোগিতায় পাক হানাদার বাহিনী একসাথে হত্যা করে ১২৭ জন নিরীহ মানুষকে। ইতিহাসে এটি একটি ন্যক্কারজনক হত্যাকান্ড। তিনি আরো বলেন-ইতিপূর্বে সরকার অনেক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যকর করেছে। আরো যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্য চলমান রয়েছে। কৃষ্ণপুর গণহত্যাকান্ডের জড়িত রাজাকারদেরও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল রায় প্রদান করেছেন। কিন্তু অপরাধীরা পলাতক থাকার কারণে তাদের সাজা কার্যকর করা যাচ্ছে না। তিনি যুদ্ধাপরাধ মামলার আসামীদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ স্বোচ্ছার রয়েছে। কোথায়ও যুদ্ধপরাধ মামলার পলাতক আসামীদের সন্ধান পেলে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করবে। তিনি কৃষ্ণপুরের শহীদের আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং আহতদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার দাবি জানান। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তদন্ত সংস্থা কর্তৃক গঠিত জেলা স্বাক্ষী ও ভিকটিম সুরা কমিটির সদস্য সাংবাদিক রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন জানান, কৃষ্ণপুরের গণহত্যাকান্ডের সাথে জড়িত রাজাকার লিয়াকত, রজব আলীসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পরই আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালের নজরে আসে। পরবর্তীতে ট্রাইব্যুনাল তদন্ত করে লিয়াকত আলী, রজব আলীসহ অন্যান্য বিরুদ্ধে ৬টি মামলা দায়ের করা হয়। এর মধ্যে ৪টি মামলায় লিয়াকত ও রজব আলী ফাঁসির ও ২টি মামলায় যাবতজীবন কারাদন্ডের রায় ঘোষণা করা হয়েছে। মামলার তদন্তকালে রাজাকার লিয়াকত আলী দেশ ছেড়ে পালিয়ে যায়। বর্তমানে সে আমেরিকাতে বসবাস করছে। তিনি লিয়াকত আলীকে দেশে এনে রায় কার্যকর করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।
বক্তৃতারা বলেন-১৯৭১ সালে ১৮ সেপ্টেম্বর রাজাকারের সহযোগিতায় পাকহানাদার বাহিনী হিন্দু অধ্যাষিত কৃষ্ণপুর গ্রামে হামলা চালিয়ে ১২৭ জন নিরীহ লোকজনকে লাইনে দাঁড় করিয়ে ব্রাশফায়ারের মাধ্যমে তাদের হত্যা করে। এ ঘটনায় আহত হয়েছিলেন গ্রামের শতাধিক নারী-পুরুষ। সেই সময় এতো মরদেহ এক সঙ্গে সৎকারের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় পাশের নদীতে মরদেহগুলো ভাসিয়ে দেয়া হয়েছিল। হানাদার বাহিনী ও রাজাকারদের হাতে সম্ভ্রম হারিয়েছেন অনেক নারী। সভায় পাকহানাদার বাহিনীর হামলায় আহতরা কেঁদে কেঁদে সে দিনের নারকীয় হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দেন এবং তাদের গায়ে আঘাতের চিহ্ন দেখান। সভায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কর্মান্ডার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মধ্যে হবিগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে কয়েকটি প্রশ্ন করে ৩ জনকে সঠিক উত্তর দাঁতা হিসেবে পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠান শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তাওলায়াত করেন স্কুল ছাত্র খায়রুল ইসলাম। গীতাপাঠ করেন স্কুল ছাত্রী অর্পিতা দাস। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারি শিক্ষক গৌতম কুমার রায়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com