রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
কয়েন বিভ্রাটে জেলাবাসী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিধি থাকলেও প্রয়োগ নেই

কয়েন বিভ্রাটে জেলাবাসী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিধি থাকলেও প্রয়োগ নেই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কয়েন মুদ্রা বিভ্রাটে জেলাবাসী। সচল কয়েনগুলো অচল হয়ে পড়ছে। পন্য আদান-প্রদানে বিনিময় হিসেবে কয়েন বা ধাতব মুদ্রা লেনদেনকে কেন্দ্র করে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সাথে প্রতিনিয়ত ঘটছে বাকবিতন্ডা। সরকারিভাবে কয়েন অচল না হলেও এমন সমস্যা সমাধানে প্রশাসনিক বা ব্যাংক কর্তৃপক্ষের নেই কোন তদারকী। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা বরাবরের মতো উপেক্ষা করে কয়েন বা ধাতব মুদ্রা লেনদেনে বিরত থাকছে অনেক ব্যাংক। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষদের। ধাতব মুদ্রা লেনদেনে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা।
বাংলাদেশ ব্যাংক, প্রধান কার্যালয়, ঢাকা এর ডিপার্টমেন্ট অব কারেন্সি ম্যানেজমেন্ট (ইস্যু হিসাব শাখা) জারীকৃত ১৪/০৭/২০১৯ তারিখের সূত্র নং-ইহিশাঃ ১১৪/২০১৯-২৭২৩ পরিপত্র অনুসারে উল্লেখ রয়েছে, সকল তফসিলী ব্যাংক-এ গ্রাহকদের নিকট হতে ১,২ ও ৫ টাকা মূল্যামানের ধাতব মুদ্রা গ্রহণের নির্দেশনা রয়েছে। গ্রাহকদের নিকট থেকে ধাতব মুদ্রা গ্রহণ না করলে এবং এ সংক্রান্ত অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যাংক কোম্পানি আইনে অর্থদন্ড করা হবে।
নাম না প্রকাশে এক বেসরকারী ব্যাংকের কর্মকর্তা জানায়, কয়েনগুলো গুনতে সমস্যা হয় বিধায় নিতে অনাগ্রহ দেখানো হয়। তাছাড়া গ্রাহকে দিলেও তারাও নিতে চায় না, অযুহাত উপস্থাপন করছে এটি অচল। সকলেই কাগজের মুদ্রা নিতে আগ্রহ প্রকাশ করে। আমাদের ব্যাংকে ভল্ট কয়েন ভরা, তারপরেও আমরা কম পরিমানে হলেও কয়েন নিচ্ছি।
অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, ধাতব মুদ্রা বাংলাদেশের বৈধ মুদ্রা, এটি যদি ব্যবস্থাপনায় ঘাটতি হয় তাহলে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে সমস্যার সৃষ্টি হবে। বর্তমানে সমস্যাটি মূল দায়া গুজব ছড়ানো কিছু জনগন এবং ব্যাংক কর্তৃপক্ষের মানসিকতা। প্রতিটি ব্যাংকে কয়েন লেনদেনের বিষয়ে নীতিমালাটি প্রদর্শন করতে হবে। বাজারে একই নোটের ধাতব ও কাগজের মুদ্রা চালু থাকায় গ্রহকেরা কয়েন নিতে অনাগ্রহ দেখায়। একটা সুরাহা না হলে মানুষের মধ্যে ক্ষুদ্র সঞ্চয়ের মানসিকতা কিছুটা হলেও কমবে।
এদিকে মফস্বল শহর এবং গ্রামের মানুষদের ভ্রান্ত ধারনাসহ গুজোবের ফলে কয়েন নিতে অনিহামাত্রা দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। এক/দুই টাকার অভাবে অল্পস্বল্প পণ্য ক্রয় বিক্রয়, রিকশা ভাড়া দিতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। হোটেল-মোটেল গুলোতে সুযোগে চকলেট ধান্ধায় মেতে উঠেছে। কোন ক্রেতার যদি এক বা দু টাকা প্রাপ্য হন তাঁকে টাকা না দিয়ে ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে চকলেক/লজেন্স। আবার এক/দু টাকা ভাংতি না থাকলে তাকে উপরন্থ বেশি টাকা ভরতুকি দিতে হচ্ছে। শহরের বগলা বাজার এলাকার বাসিন্দা অভিজিৎ দত্ত অনেকটা ক্ষোভের সহীত বলেন, প্রায় সময়েই রিকশাচালকেরা ভাড়া হিসেবে কয়েন নিতে চান না। খুচড়া ভাড়ার জন্যে ঝগড়া করতে হচ্ছে। আমার কাছে সঞ্চীত বেশ কিছু কয়েন রয়েছে সেগুলো চালানো যাচ্ছে না। শুধু কি তাই ভিক্ষুক বা দান বাস্কতে কয়েন দিলে রাগ করছে।
টমটম চালক আসরফ আলী জানায়, লোকমুখ থেকেই জানি এবং বাস্তবে দেখছি কেউ কয়েন নিতে চায় না তাই আমিও রাখি না। বর্তমানে হবিগঞ্জে ৫ টাকার কয়েন চললেও ১, ২ টাকার কয়েন চালানো সম্ভব হয় না। নির্দিষ্ট ভারায় স্থানে যদি অনেক যাত্রী ১, ২ টাকার কয়েন দিতে চাইলেও প্রয়োজনে আমরা নেই না। তাছাড়া কয়েনগুলো কারণ পকেটে রাখলে পড়ে যায়, পকেট ভারী হয়ে পড়ে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com