বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ১২:১০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মৌলভীবাজারে বিয়েতে দাওয়াত খেতে গিয়ে উমেদনগরের মা-মেয়ে আগুনে পুড়ে নিহত কিবরিয়া হত্যার বিচার ও খোয়াই খননে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানালেন-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে ভাগনার সাথে খালার বিয়ে ॥ এলাকাজুড়ে তোলপাড় ! নবীগঞ্জের ঘোনাপাড়া গ্রামে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ বাহুবলে গ্যাস নিতে গিয়ে ২ সিএনজি চালকের মৃত্যু মাদক ছেড়ে সৃজনশীল কাজ করতে হবে-পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ কাউরিয়াকান্দি হযরত শাহজালাল (রহ:) উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদায় অনুষ্ঠান-নবীন বরন ও বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ মাদকসেবীর কারাদন্ড ॥ ম্যাজিস্ট্রেট, চুনারুঘাট থানার ওসি, সহকারী পরিচালক মাদকদ্রব্যকে লিখিত ব্যাখ্যা দেয়ার আদেশ সরকারি নিবন্ধন পেল সামাজিক সংগঠন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের হবিগঞ্জ জেলা কমিটি গঠন
মুছা যেভাবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে

মুছা যেভাবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ হত্যাসহ একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এবং সর্বশেষ পুলিশকে কুপিয়ে পালিয়ে যাওয়া দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সোহানুর রহমান মুছা আবারো আলোচনায় এসেছে। একাধিকবার হাজতবাসের পরও সংশোধন না হয়ে আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। ভয়ঙ্কর হয়ে উঠা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। তার সম্পর্কে অসংখ্য তথ্য বেরিয়ে আসছে।
নবীগঞ্জ পৌর শহরতলী ছালামতপুর গ্রামের খুর্শেদ মিয়ার পুত্র শাহ সোহানুর রহমান মুছা। ছোট বেলায় মা ও বাবার সাথে সৎ ভাইকে হত্যার অভিযোগে প্রখম হাজতবাস শুরু। অল্প বয়সে জেল খেটে এসেই এলাকায় একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে। সোহানুর রহমান মুসা নামটি শুনলেই যেন সাধারণ মানুষ আতঁকে উঠে। প্রতিনিয়তই শহর এবং বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ঘটনার সাথে লিপ্ত হয়ে পড়তো। সে সরকার দলীয় ছাত্রলীগ রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। ছাত্রলীগের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে মুছা ও তার সহযোগিরা উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মেধাবী ছাত্র হেভেন চৌধুরীরকে শহরে দিবালোকে হামলা চালিয়ে হত্যা করে। এর মাধ্যমে আবারো শহরসহ হবিগঞ্জ জেলাজুড়ে আলোচনায় আসে মুছা। তখন সময়ে সে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক কমিটির সহ-সভাপতি দায়িত্ব পালন করে। সে বিভিন্ন চাদাবাজি, রোড ডাকাতি এবং ইয়াবা ব্যবসাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কাজে লিপ্ত হয়ে পড়ে। এরপর থেকেই সে নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা নামে পরিচিতি পায়। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলাসহ অসংখ্য মামলা রয়েছে। বর্ডার পাস মোটর সাইকেল ও গাড়ির বিক্রির সিন্ডিকেট সাথে ও জড়িত হয়ে যায়।
কয়েক বছর পূর্বে পুলিশ বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ তাকে গ্রেফতার করতে অভিযান চালায়। সেই সময়ে পুলিশের উপর হামলা করার পরিকল্পনা করে মুছা। সে সময় তাদের সাথে অসৎ আচরন করে। গত ২০১৮ সালের পরে ২৮ জানুয়ারি মাসে পুলিশ ও র‌্যাবের যৌথবাহিনী সন্ত্রাসী মুছার পুরো বাড়ি ঘিরে ফেলে। প্রায় ২ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে মুছাকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় যৌথবাহিনী। এ সময় মুছার স্বীকারোক্তিতে ৫৬৭ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।
তথ্যমতে ২০১৪ সালের ফেব্র“য়ারী মাসের শেষের দিকে ছাত্রলীগ নেতা হেভেনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। মুছাকে ওই হত্যা মামলার আসামী করা হয়। হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই চরম বেপরোয়া হয়ে উঠে মুছা। এর পর থেকে সে একের পর এক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নবীগঞ্জ শহরসহ এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। হত্যা মামলায় পলাতক থাকায় অবস্থায় মুসা নেশা জগতে চলে যায়। হেভেন হত্যা মামলায় জেলে কেটে এসে সে মাদক ব্যবসায় ও ইন্ডিয়ান বর্ডার পাস মটরসাইকেল চোরাচালান ব্যবসায় নিজেকে জড়িত করে। গত বছর ইয়াবাসহ শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ তাকে আটক করে। অতি সম্প্রতি সে দিন-দুপুরে নবীগঞ্জ শহরের ওসমানী রোডের হীরা মিয়া গালর্স স্কুলের সামনে প্রকাশ্যে অস্ত্র দেখিয়ে ৩টি দোকানে হামলা, ভাংচুর, লুটপাটসহ ৩টি মোটর সাইকেলসহ ৭ লাখ টাকা মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এর আগে গত ১২ ডিসেম্বর বিকালে মুছা শ্রমিক নেতা হেলাল আহমদের বাড়ির সীমানায় বেড়া দিয়ে ওই পরিবারের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। এ বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে এসআই সুজিত চক্রবর্তীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে তদন্ত করতে গিয়ে মুছা ও তার পরিবারের সদস্যদের রোষানলে পড়ে। এক পর্যায়ে মুছাকে গ্রেফতার না করে ফিরে আসতে বাধ্য হয় পুলিশ। অভিযোগ রয়েছে, মুছা তার চাচা নিজাম উদ্দিনের বাড়িঘর জোরপূর্বক দখল, ফিশারির মাছ লুট, কয়েক লক্ষাধিক টাকার গাছ জোরপূর্বক কেটে বিক্রি করে। মুছার হুমকীতে প্রাণ ভয়ে তারা বাড়িঘর ছাড়া রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com