সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২৪ অপরাহ্ন

চা বাগানেই তৈরী হয় চুয়ানী, হাড়িয়া

চা বাগানেই তৈরী হয় চুয়ানী, হাড়িয়া

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাট সহ সারা দেশে ছোট বড় চা বাগানের বেশির ভাগ শ্রমিক লেনে গড়ে উঠেছে দেশীয় চোলাই মদের দোকান। প্রতি বাগানে কম করে হলেও ২শ টি ঘরোয়া মদের কারখানা রয়েছে। ছোট, নিরিবিলি প্রতিটি কারখানায় প্রতিদিন কমপক্ষে উৎপাদিত হয় ২০ লিটার চোলাই মদ। প্রতি বাগানে রাত হলে এসব মদরে দোকানে চলে মদ্যপান, নাচানাচি। হালে চা শ্রমিক ছাড়াও গ্রামের উঠতি বয়সের যুবকরাও চোলাই মদে আকৃষ্ট হচ্ছে। দেশে মাদক বিরোধী অভিযানের পর চা বাগানের ওই চোলাই মদের কারখানা বা দোকানগুলোতে বাড়ছে মদখোরের সংখ্যা। আর এই ব্যবসার আড়ালে নারকটিক্স বিভাগ হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকার বখরা। চা বাগানগুলো সামন্তবাদি কায়দায় পরিচালিত হয়-এ অজুহাতে আইন শৃংখলা বাহিনী বাগানে অবস্থিত মদের দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা বা মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করতে উৎসাহ পায়না বলে জানান নারকটিক্স বিভাগের কর্মকর্তারা। ফলশ্র“তিতে প্রকাশ্যে জমজমাট বিকি কিনি হচ্ছে শ্রমিকদের নিজস্ব প্রদ্ধতিতে তৈরী নানান জাতের মদ। চা বাগানে মদের কারখানাগুলোতে তৈরি চোলাই, হাড়িয়া, চোয়ানী জাতের মদ তৈরী হয় নিত্যদিন। এসব মদ বাইরেও চালান দেয়া হয়। মদ সেবন করে বাগানের ৭০ শতাংশ চা শ্রমিক। সেবন পর্ব চলে প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত। শ্রমিকদের সাথে বস্তির মদখোরেরাও দিব্যি যোগ দেয় মদ সেবনের আড্ডায়। অথচ তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না বাগান কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃংখলা বাহিনী। চা শ্রমিকরা যুগের পর যুগ বাগানে মাদক সেবনের এই ধারা অব্যাহত রাখলেও সাধারণ শ্রমিক ও যুবসমাজকে রক্ষায় মাদক উৎপাদন বন্ধ করতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কার্যকর কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছেনা। ওই বিভাগের লোকজনের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে চুনারুঘাটের এক ইউপি সদস্য বলেন, হবিগঞ্জ নারকটিক্স বিভাগের সদস্যরা সাদা পোষাকে এসে বখরা আদায় করে। চোলাই মদ ব্যবসায়ীদের ঈশারায় মাঝে মাঝে প্রতিপক্ষ, প্রতিবাদকারীদের আটক করে বা মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়। যদিও তারা মাঝে মাঝে লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করে থাকে। অভিযোগ রয়েছে, হবিগঞ্জ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন দপ্তরের এক কর্মকর্তা নিয়মিত মাসোয়ারা নেন চোলাই মদ কারখানা ও মদের পাট্টা থেকে। বখরার এ পরিমান লাখ টাকা ছাড়িয়ে যায়। দেশে মাদক বিরোধী অভিযান চলার পর চা বাগানে তৈরী মদের দিকে ঝুঁকছে নেশাখোরেরা। ওইসব মদের দোকানে শুধু চোলাই মদ পাওয়া যায় এমন নয়-এখন গাঁজা, ইয়াবা ও ভারতীয় মদও বেচা কেনা হয় দেদারছে। বাগান থেকেই মুলত মাদক ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে এখন। তবে বর্তমানে শ্রমিকদের মধ্যে কিছুটা সচেতনতা পরিলক্ষিত হওয়ায় মদ পানকারীর সংখ্যা তুলনামূলক কমেছে চা শ্রমিকদের মাঝে। বাগানগুলোতে এখনও প্রায় ৭০ শতাংশ পুরুষ শ্রমিক ও যুব সমাজ এসব মদ পান করে। চুনারুঘাট উপজেলার আমু চা বাগানের এক শিক্ষার্থী বলেন, সন্ধ্যার পর মদখোরদের চিৎকার চেঁচা মেচিতে ছাত্রছাত্রীরা লেখা পড়া করতে পারে না। মদ খোরেরা সাধারন লোকজনকে নানা ভাবে হয়রানী করে। কেউ রাস্তা-ঘাটে কারনে অকারনে বিশৃংখলা তৈরি করে। পাহাড়ী ঝড়ি বুটি, নিশাদল, চিটাগুড়, ভাত এসব নানা পদার্থ দিয়ে তৈরী হয় চোলাই ও হাড়িয়া মদ। ১ লিটার চোলাই মদ ৪০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়। আইন শৃংখলা বাহিনী, বাগান ব্যবস্থাপক, মঞ্চায়েত কমিটি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিরা চোলাই মদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা নেন না। এর কারণ জানতে চাইলে পঞ্চায়েত কমিটির এক সভাপতি বলেন, চা শ্রমিকদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। এখন যদি মদের বিষয়ে কথা বলতে যাই তাহলে মদের পাট্টার মালিক ও মদ সেবনকারীরা আমার বিরুদ্ধে লেগে যাবে। নারকটিক্স বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, বৈধ দেশি মদের পাট্টায় সপ্তাহে ২০০ লিটার মদ বিক্রির পারমিট রয়েছে। একজনের কাছে ১০ লিটার, ২ লিটার অথবা ৩ লিটার বিক্রি করা যাবে না কিন্তু সেই বিভাগের বেধে দেয়া নিয়ম কানুন চোলাই মদ ব্যবসায়ীরা মানছে না।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com