মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১১:৪৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
পবিত্র আশুরা আজ বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের তথ্য প্রেরণে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ॥ তালিকায় রয়েছে একই পরিবারের ৪ জন আছে মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার লোক ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ৯ জনের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ দুর্দিনে বঙ্গবন্ধুকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন বঙ্গমাতা-মিজানুর রহমান শামীম জালালাবাদ এসোসিয়েশনের পুনর্বাসন কার্যক্রমে ১০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন সায়হাম গ্রুপের পরিচালক সৈয়দ ইশতিয়াক ও সৈয়দ শাফকাত হবিগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দুলাল আহমদ তালুকদার নিজামপুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন ॥ আহ্বায়ক আসগর আলী, যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মিয়া থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে সোর্স ও দালালদের অপকর্ম জ্বালানি তেল ও সারের দাম কমানোর দাবিতে হবিগঞ্জে বাসদের বিক্ষোভ

অনিয়ম-স্বেচ্ছাচারিতা-বিলপাশে অর্থ দাবীসহ ৭টি অভিযোগে বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা

  • আপডেট টাইম শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২
  • ১৭ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্থাব দিয়েছেন ৭ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। উৎকোচ গ্রহন, স্বেচ্ছাচারিতা, প্রকল্পের বিল পাশে অর্থদাবীসহ নানা অভিযোগে এ অনাস্থা প্রস্তাব দেয়া হয়।
এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে গত ২৮ জুন একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
অনাস্থা প্রদানকারীগণ হচ্ছেন- বাহুবল উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিলুফার ইয়াসমিন, ১নং স্নানঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তোফাজ্জল হক, ২নং পুটিজুরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুদ্দত আলী, ৩নং সাতকাপন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রেজ্জাক, ৪নং বাহুবল সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরী, ৫নং লামাতাসি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আকম উস্তার মিয়া তালুকদার, ৬নং মিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ শামীম ও ৭নং ভাদেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান।
অনাস্থা প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়, এডিপির বরাদ্দ দিয়ে সুপেয় পানি সরবরাহের জন্য সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ গভীর নলকূপের প্রস্তাব দিলে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ব্যক্তিস্বার্থ হাসিলের জন্য অগভীর নলকূপ বসানোর সিদ্ধান্ত নেন।
ক্ষুদ্র-নি-গোষ্ঠীর উন্নয়নের স্বার্থে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানগন এডিপির প্রকল্প থেকে তাত শিল্পের প্রশিক্ষন যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং প্রশিক্ষন প্রকল্প প্রস্তাব দিলে তিনি সবার মতামত উপেক্ষা করেন এবং হীন স্বার্থে সেলাই মেশিন সরবরাহ করার প্রস্তাব দেন।
তার নিজ এলাকায় বিশ লাখ টাকার প্রকল্প গ্রহন করলে ঠিকাদার কাজ শুরু করলে তিনি বিভিন্নভাবে বাধা প্রদান করেন এবং তার ছেলের মাধ্যমে ঠিকাদারের নিকট দুই লাখ টাকা উৎকোচ দাবী করেন। টাকা না দিলে তনি বিলে সাক্ষর করবেন না বলে জানান।
উপজেলা সাধারণ সভা ও আইনশৃংখলা সভায় তিনি প্রায় সময়ই বিভিন্ন অজুহাতে সদস্যদের সাথে উচ্চ স্বরে কথা এবং ব্যক্তিগত কথার মাধ্যমে আক্রমন করেন।
উপজেলা পরিষদের এডিপির প্রকল্পসহ কোন বরাদ্দ আসলে তিনি সভাপতির ক্ষমতা বলে সমস্ত প্রকল্প নিজে নেন ও কমিটির সদস্যদের সাথে কোন আলাপ আলোচনা করেন না।
বিভিন্ন সরকারী সভায় তিনি সরকার কর্তৃক প্রদেয় অনুশাসন না মেনে উস্কানীমূলক বক্তব্য প্রদান করেন এবং তার আচরন ও অপ্রাসঙ্গীক কার্যাকলাপের জন্য উপজেলা পরিষদ কার্যাকর করা সম্ভব হচ্ছে না।
৭. ইতিপূর্বেও তিনি স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে এডিপির অর্থের অপ-ব্যবহার করেছেন। এ বিষয়ে তদন্ত চলমান রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।
এছাড়াও উপজেলা পরিষদের প্রকল্প অনুমোদনে স্বেচ্ছাচারিতা, সদস্যদের মতামত গ্রহন না করা, প্রকল্পের বিল পাশে অর্থদাবী ও ইউনিয়ন পরিষদের নামে আসা বিভিন্ন সরকারী বরাদ্দ ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে সদস্যদের সাথে খারাপ আচরনের অভিযোগ আনা হয়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com