বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার হত্যাকান্ড ॥ ১৭ বছরেও সম্পন্ন হয়নি বিচার কার্যক্রম ৬ বছরে স্বাক্ষ্য হয়েছে ৪৪ জনের বানিয়াচংয়ে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জে নতুন করে আরো ৭১ জন করোনায় আক্রান্ত ৫ পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ সদর হাসপাতালে নবজাতক চুরির ঘটনায় এক পিতার মামলায় অপর পিতা কারাগারে হবিগঞ্জে হঠাৎ বৃষ্টিতে শীতের তীব্রতা বেড়েছে পাইকপাড়ায় মর্ডান বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ আহত ১০ চুনারুঘাটে গাঁজাসহ চোরাকারবারি ছাত্তার আটক ॥ ৯টি গরু উদ্ধার মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন ॥ কাজী বাশার সভাপতি, শেখ আরিফ সাধারণ সম্পাদক মনোনীত বানিয়াচংয়ে মাস্ক পরিধানে প্রশাসনের পক্ষে সচেতনতামূলক অভিযান

সাটিফির্কেট জালিয়াতির ঘটনায় আটক ইউনাইটেড শিশু জেনারেল হাসপাতালের ২ জন কারাগারে

  • আপডেট টাইম শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১
  • ২০ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের আলোচিত ইউনাইটেড শিশু জেনারেল হাসপাতালে সাটিফির্কেট জালিয়াতির ঘটনায় আটক দুই সদস্যকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে এ ঘটনা চাওর হলে তাদের ভুয়া ইনজুরি রিপোর্টের ভুক্তভোগীরা গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত সদর থানায় আসেন এবং তাদের শাস্তি দাবি করেন। তবে পুলিশ জানিয়েছে, এই চক্রের দুই সদস্যকে ধরলেও নেপথ্যের গডফাদাররা রয়ে গেছেন এখনো ধরাছোয়ার বাইরে। অচিরেই তাদের ধরা হবে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সদর মডেল থানার এসআই মোঃ সজিব মিয়া ও উৎসব কর্মকারসহ একদল পুলিশ ওই হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে সার্টিফিকের্ট জালিয়াত চক্রের সদস্য ও নাসিরনগর উপজেলার গুনিয়াউক গ্রামের ও বর্তমানে নিউ মুসলিম কোয়ার্টার এলাকার ভাড়াটিয়া মৃত মঈন উদ্দিনের পুত্র মার্কেটিং অফিসার ফখর উদ্দিন ওরফে রুবেল (৪০) ও টাঙ্গাইল জেলার ঘাটালিয়া উপজেলার চাটপাড়া গ্রামের কামাল খানের পুত্র বর্তমানে শহরের অনন্তপুরের ভাড়াটিয়া এক্সরে টেকনোলজিষ্ট রুকুনোজ্জামান রুকন (২৫) কে গ্রেফতার করে। এ সময় ওই হাসপাতালের ম্যানেজার ও মালিক নাজমুল হক পালিয়ে যায়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা প্রাথমিকভাবে ঘটনার কথা স্বীকার করে।
পুলিশ জানায়, শহরের পুরাতন হসপিটাল কোয়ার্টারের এক সময়ের নামিদামী ইউনাইটেড শিশু জেনারেল হাসপাতালের মালিকপক্ষ দালালদের মাধ্যমে বিভিন্ন রোগীদের ইনজুরি জালিয়াতির মাধ্যমে বদল করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে গ্রিভিয়াস ও গুরুতর জখম দেখিয়ে ভূয়া রিপোর্ট ও ফিলিম দেয়া হয়। আর এসব ফিলিমের কারনে মিথ্যা মামলায় অনেক নিরপরাধ লোক হাজতবাস করেন। এমনি এক বছর আগে ওই হাসপাতালের ভূয়া রিপোর্টের কারণে তেঘরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আনুও জেল হাজতে যান। লাখাই উপজেলার মনতৈল গ্রামেরও কয়েকজন আসামি ভূয়া রিপোর্ট ও ফিলিমের কারনে কারাগারে যায়। তাদের আইনজীবি বিষয়টি নিয়ে চ্যালেঞ্জ করলে আদালতের নজরে আসে। আদালত এ বিষয়ে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সদর থানাকে নির্দেশ দেন। সদর থানা তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয়। এর প্রেক্ষিতে আদালত ওই হাসপাতালের সার্টিফিকের্ট জালিয়াতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়। আদেশ পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ অভিযান চালিয়ে উল্লেখিত দুইজনকে আটক করলেও এ ঘটনার অন্যতম অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। পুলিশ আরও জানায়, অচিরেই জালিয়াত চক্রের সদস্যদের গ্রেফতার করা হবে এবং আটকদের রিমান্ডে এনে আরও তথ্য উদঘাটন করা হবে। অনেক রোগী অভিযোগ করেন ওই হাসপাতালের মালিক ও কর্মচারীরা রোগীদের অশোভন আচরণ করেন। তাদের কথামতো বিল পরিশোধ না করলে মারপিটসহ পুলিশে দেয়ারও হুমকি দেয়া হয়। বাধ্য হয়ে অনেকেই তাদেরকে অতিরিক্ত টাকা দেন। এ ছাড়াও ভুয়া ইনজুরির রিপোর্ট ও ফিলিম প্রদানের অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে। ওসি মোঃ মাসুক আলী জানান, আটক দুই প্রতারককে রিমান্ডে এনে তাদের গডফাদারদের নাম বের করা হবে এবং এ চক্রের অন্য সদস্যদের ধরতেও অভিযান অব্যাহত আছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com