সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বানিয়াচঙ্গে কৃষকের বাড়ী থেকে ধান ক্রয় করলেন জেলা প্রশাসক **  হবিগঞ্জে কালবৈশাখীর তাণ্ডব অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড চরম বিদ্যুৎ বিপর্যয় **  চুনারুঘাটে কৃষকরা হতাশায় নিমজ্জিত বোরো চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষক **  খোশ আমদেদ মাহে রমজান **  হবিগঞ্জ জেলা কল্যাণ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র ইন্ক এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল **  পইলে বিষধর সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু **  নবীগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত অর্ধশত **  নবীগঞ্জে পুলিশী হয়রানী বন্ধে ইমা লেগুনা-সিএনজি মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘট ॥ এমপির আশ্বাসে প্রত্যাহার **  সাংবাদিক জুয়েলকে হুমকি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি **  লাখাই থানার মানব পাচার মামলার পলাতক আসামী হবিগঞ্জে গ্রেফতার **  বানিয়াচঙ্গের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী জাহাঙ্গির কারাগারে **  নবীগঞ্জে পিকআপ ভ্যান চুরির ৫ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার **  শহরের ইনাতাবাদে গাছ থেকে পরে বৃদ্ধের মৃত্যু **  বানিয়াচঙ্গে একই পরিবারের ৭ জনকে কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত **  মাধবপুরে বাংলা টিভির তৃতীয় প্রতিষ্ঠা বাষিকী পালিত **  মাধবপুরে সিএনজি-পিকআপ সংঘর্ষে আহত ৫, পিকআপ চালক আটক **  কাল বৈশাখীর ঝড়ে বিধ্বস্ত হবিগঞ্জ ॥ সহায়তার আশ্বাস

বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেছেন উপজেলা প্রকৌশলী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকার মানহানি মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাহুবল উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম মো. মহিউদ্দিন চৌধুরী বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন আহমেদ প্রধানের আদালতে গতকাল বুধবার মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ইউএনও’র অফিস সহকারি হরিপদ দাসসহ অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলাটি গ্রহণ করে আনীত অভিযোগ তদন্তক্রমে প্রতিবেদন প্রদান করার জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইসভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
মামলার বিবরণে বাদি উল্লেখ করেন, গত ৬ মার্চ বাহুবল উপজেলার সাতকাপন ইউনিয়নের করাঙ্গী নদীর বাঁধে মাটির কাজের ২ লাখ টাকার বিলের একটি চেকে সই করার জন্য ইউএনও মো. জসিম উদ্দিন তার অফিস সহকারি হরিপদ দাশকে উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম মো. মহিউদ্দিন চৌধুরীর কাছে পাঠান। কাজটির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র উপস্থাপন না করায় তিনি চেকে সই দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ সময় অফিস সহকারি হরিপদ তাকে বলেন ইউএনও নির্দেশ দিয়েছেন চেকটি স্বাক্ষর করার জন্য। কিন্তু তাতেও প্রকৌশলী রাজি হননি। পরে অফিস সহকারি চেক সই না দেয়ার কথা ইউএনও জসিম উদ্দিনকে জানান। এতে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তিনি সাথে আরও কয়েকজনকে নিয়ে প্রকৌশলীর কক্ষে গিয়ে নিজেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে তাকে গ্রেফতারের আদেশ দেন। পরে তাকে ইউএনও’র কক্ষে নিয়ে আটকে রাখা হয়। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ মো. আবু জাকির সেকান্দর বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। পরে মুচলেকা দিয়ে উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম মো. মহিউদ্দিন ছাড়া পান। এ ঘটনায় প্রকৌশলী নিজের ও তার বিভাগের কমপক্ষে ১০ কোটি টাকার মানহানি হয়েছে বলে মামলায় উল্লেখ করেন।
উল্লেখ্য, প্রকৌশলীকে আটকের বিষয়টি জানাজানি হলে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী ও স্টাফরা। তারা ইউএনও’র বিচার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন। এদিকে বিষয়টি হাইকোর্টের নজরে এলে বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে একটি রুল জারি করেন। এতে উক্ত প্রকৌশলীকে আইন অমান্য করে হাতকড়া পড়ানো ও গ্রেফতার কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবেনা তা জানতে চাওয়া হয়েছে। একই সাথে আগামী ৬ এপ্রিল ইউএনও জসিম উদ্দিনকে স্বশরিরে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়।
মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদিপক্ষের আইনজীবী নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু বলেন, একজন সরকারি কর্মকর্তা আরেকজন সরকারি কর্মকর্তার সাথে এমন আচরণ করতে পারেননা। এটি যেমন আইন বিরোধী, তেমনি সরকারি চাকরি নীতিমালা পরিপন্থী।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com