সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বানিয়াচঙ্গে কৃষকের বাড়ী থেকে ধান ক্রয় করলেন জেলা প্রশাসক **  হবিগঞ্জে কালবৈশাখীর তাণ্ডব অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড চরম বিদ্যুৎ বিপর্যয় **  চুনারুঘাটে কৃষকরা হতাশায় নিমজ্জিত বোরো চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষক **  খোশ আমদেদ মাহে রমজান **  হবিগঞ্জ জেলা কল্যাণ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র ইন্ক এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল **  পইলে বিষধর সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু **  নবীগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত অর্ধশত **  নবীগঞ্জে পুলিশী হয়রানী বন্ধে ইমা লেগুনা-সিএনজি মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘট ॥ এমপির আশ্বাসে প্রত্যাহার **  সাংবাদিক জুয়েলকে হুমকি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি **  লাখাই থানার মানব পাচার মামলার পলাতক আসামী হবিগঞ্জে গ্রেফতার **  বানিয়াচঙ্গের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী জাহাঙ্গির কারাগারে **  নবীগঞ্জে পিকআপ ভ্যান চুরির ৫ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার **  শহরের ইনাতাবাদে গাছ থেকে পরে বৃদ্ধের মৃত্যু **  বানিয়াচঙ্গে একই পরিবারের ৭ জনকে কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত **  মাধবপুরে বাংলা টিভির তৃতীয় প্রতিষ্ঠা বাষিকী পালিত **  মাধবপুরে সিএনজি-পিকআপ সংঘর্ষে আহত ৫, পিকআপ চালক আটক **  কাল বৈশাখীর ঝড়ে বিধ্বস্ত হবিগঞ্জ ॥ সহায়তার আশ্বাস

আজ নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস

এটিএ সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ আজ ৬ ডিসেম্বর নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা দিনগুলোর মধ্যে একটি দিন নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস। সেদিন পূর্বাকাশের সুর্যোদয়ের সাথে সাথেই বীর মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে হটিয়ে মুক্ত করেছিলেন নবীগঞ্জ।
তিন দিনের সম্মুখযুদ্ধের পর সেদিন সুর্যোদয়ের কিছুক্ষণ আগে নবীগঞ্জ থানা সদর হতে হানাদার বাহিনীকে সম্পূর্ণরূপে বিতাড়িত করে মুহুর্মুহু গুলি ও জয় বাংলা শ্লোগানের মধ্যে বীরদর্পে এগিয়ে আসেন কয়েক হাজার মুক্তিকামী জনতা। এ সময় মাহবুবুর রব সাদীর নেতৃত্বে থানাভবনে উত্তোলন করা হয় বাংলাদেশের পতাকা।
৬ ডিসেম্বর নবীগঞ্জ মুক্ত হওয়ার পূর্ব থেকেই মুক্তিযোদ্ধারা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। বিভিন্ন সময় পাক বাহিনীর উপর গেরিলা হামলা চালিয়ে তাদের ভীতসন্ত্রস্ত করে রাখেন মুক্তিসেনারা। নবীগঞ্জ থানাকে লক্ষ্য করে তিনদিকে মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান নেন। ৩ ডিসেম্বর রাত থেকে গণ গণ গুলি বিনিময় চলে উভয়ের মধ্যে। মুক্তিযোদ্ধারা কৌশলগত কারণে ও আত্মরক্ষার্থে কখনোও পিছু না হঠে, আবার কখনোও আক্রমণ চালিয়ে পাক বাহিনীকে নাস্তানাবুদ করতে থাকেন। সারাদেশে পাক বাহিনীর অবস্থান খারাপ হওয়ায় নবীগঞ্জেও তাদের খাদ্য এবং রসদ সরবরাহ কমে যায়।
অন্যদিকে মুক্তিবাহিনী একেক সময়ে একেক দিক দিয়ে আক্রমণ চালিয়ে যায়। ৪ ডিসেম্বর রাতে থানাভবনের উত্তর দিকে রাজনগর গ্রামের নিকট থেকে মুক্তিযোদ্ধা রশিদ বাহিনী পাক বাহিনীর উপর প্রচন্ড আক্রমণ চালান। এ যুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর কিশোর বয়সি মুক্তিযোদ্ধা ধ্র“ব ৪ ডিসেম্বর শহীদ হন এবং কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আহত হন। পরদিন ৫ ডিসেম্বর রাতে নবীগঞ্জ থানায় অবস্থিত পাক বাহিনীর ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধারা চরগাঁও ও রাজাবাদ গ্রামের মধ্যবর্তী শাখা বরাক নদীর দক্ষিণ পারে অবস্থান নেন। প্রায় ৩ ঘন্টাব্যাপী প্রচন্ড যুদ্ধের পর শক্র বাহিনী পালিয়ে যায়। পরদিন ৬ ডিসেম্বর ভোর রাতে কোনো বাধা ছাড়াই মুক্তি বাহিনী বীরদর্পে জয়বাংলা শ্লোগানের মধ্য দিয়ে থানা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করে এবং স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে নবীগঞ্জ উপজেলাকে মুক্ত ঘোষণা করেন। স্বাধনিতার ৪৬ বছর অতিবাহীত হলেও এই দিনটি নীরবে কেটে যায়। সরকারী বা বেসরকারী ভাবে কেউ এ দিবসটি পালন করতে দেখা যায় নি।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com