রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
নবীগঞ্জে দেড় মাসেও উদ্ধার হয়নি নিহত কাউছারের মাথা

নবীগঞ্জে দেড় মাসেও উদ্ধার হয়নি নিহত কাউছারের মাথা

  1. স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জের পানিউমদা ইউনিয়নেরর (দেওলা বাড়ি) গ্রামের কাউছার হত্যার আড়াই মাস পার হয়ে গেলেও মামলার অন্যতম আসামী সিরাজুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করছে না বলে অভিযোগ করেছেন নিহতের বাবা হায়দার আলী। এতে ছেলে হত্যার সঠিক বিচার পাওয়া নিয়ে তার মধ্যে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে। অপর দিকে অন্যান্য আসামী ও তাদের স্বজনরা হায়দর আলীকে মামলা ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে।
    মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ২৯ এপ্রিল রাতে হায়দার আলীর ছেলে কাউছার মিয়াকে (১৭) পানিউমদা বটতলা পাড়ায় সেফুল মিয়ার চায়ের দোকান থেকে অপর একজন সাথে নিয়ে যায়। এর পর রাতে কাউছার বাড়িতে না আসায় হায়দর আলী বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করেন। কিন্তু কোথায় কাউছারকে খোঁজে পাওয়া যায়নি। পরের দিন ৩০ এপ্রিল সকাল ১০টায় একই গ্রামের জগরুল মিয়ার বাড়ির মেইন রাস্তার পাশে লাকড়ীর উপরে প্লাস্টিকের প্যাকেটের ভিতরে কাউছারের পরিহিত শার্ট কাটা ও কাঁদা মাখা অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে কাউছারের সন্ধ্যানের ব্যাপারে জগরুল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরবর্তীতে ২ জুন বেলা সাড়ে ৩টায় একই এলাকার আব্দুল্লার জাই নামক পাহাড়ী নির্জন স্থান থেকে অর্ধগলিত অবস্থায় মাথা বিহীন কাউছারের লাশ পাওয়া যায়। আত্মীয় স্বজন ও পুলিশ আজো খোঁজে পায়নি। কাউছারের পরনের লুঙ্গি ও সেন্টু গেঞ্জি দেখে লাশ সনাক্ত করেন। পরবর্তীতে নিহত কাউছারের বাবা হায়দর আলী দুরুদ আলী ও জগরুল মিয়াসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
    মামলার অভিযোগে হায়দর আলী উল্লেখ্য করেন, তার ছেলে নিহত কাউছার মিয়ার সাথে দুরুদ আলী ও জগরুল মিয়া গংদের সাথে পূর্ব বিরোধ ছিল। ওই বিরোধের জের ধরেই কাউছারের লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে তাকে হত্যা করে। মামলায় দায়ের পর পরই এলাকার লোকজন আসামী দুরুদ আলী ও জগরুল মিয়াকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেন। পরবর্তীতে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে দুরুদ আলী ও জগরুল মিয়া হত্যাকান্ডের সাথে নিজের সম্পূক্ততা কথা স্বীকার করেন এবং এ হত্যাকান্ডে একই এলাকার নুরাজ মিয়া ও সিরাজুল ইসলাম জড়িত বলে জানায়। পরবর্তীতে পুলিশ নুরাজ মিয়াকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করলে নুরাজ মিয়াও স্বীরোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেন এবং নুরাজ মিয়া কাউছার হত্যাকান্ডের সাথে সিরাজুল ইসলাম জড়িত বলে জানায়। কিন্তু অদ্যবর্তী পুলিশ সিরাজুল ইসলামকে গ্রেফতার না করায় নিহত কাউছারের পরিবার ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন।
শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com