বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

কুশিয়ারা থেকে বালু উত্তোলন ॥ মূল হোতাদের ধরতে এলাকাবাসীর দাবি ॥ নবীগঞ্জে বালু লুটেরা চক্রের ৭ সদস্য আটক ॥ বলগ্রেট জব্দ

কুশিয়ারা থেকে বালু উত্তোলন ॥ মূল হোতাদের ধরতে এলাকাবাসীর দাবি ॥ নবীগঞ্জে বালু লুটেরা চক্রের ৭ সদস্য আটক ॥ বলগ্রেট জব্দ

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলনকালে লুটেরা চক্রের ৭ সদস্যকে আটক করেছে উপজেলা প্রশাসন। এ সময় বালু পাচার কাজে ব্যবহৃত ২টি বলগ্রেটও আটক করা হয়। গতকাল রোববার দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদÑবিন হাসান এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতাউল গণি উসমানির নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে আউশকান্দি ইউনিয়নের পাহারপুর গ্রামের সন্নিকটে কুশিয়ারা নদীর চর থেকে বালু উত্তোলনের সময় তাদের আটক করা হয়। এসময় ২টি ড্রেজার মেশিন নিয়ে আরো কয়েকজন শ্রমিক পালিয়ে যায়।
আটককৃতরা হলেন, বরিশালের রাজাপুর গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর মিয়া (৫০), একই গ্রামের আজহার আলীর ছেলে সবুজ মিয়া (৩০), ঝালকাটি জেলার নৈকাটি গ্রামের সুলতান মিয়ার ছেলে সাখাওয়াত হোসেন (৪০), ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার অরুয়া গ্রামের মৃত ইলিয়াছ মিয়ার ছেলে রিপন মিয়া (৩৫), একই জেলার মাইজুন গ্রামের কুতুব মিয়ার ছেলে জুবেল (৪০) ও মানজু মিয়ার ছেলে রতন মিয়া (৩০) এবং পিরিজপুর জেলার দুর্গাপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে রানা মিয়া (২৫)। এরা সবাই ড্রেজার মেশিন ও বলগ্রেট শ্রমিক। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ভূমি অফিসের তহশীলদার আব্দুল কাইয়ূম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, নবীগঞ্জ উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকা থেকে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ কুশিয়ারা ডাইক এবং বিবিয়ানা পাওয়ার প্ল্যান্টের কাছে কুশিয়ারা নদী থেকে কয়েকটি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দীর্ঘ এক মাস যাবৎ সরকারী রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে একাধিক লিখিত অভিযোগ দেন এলাকাবাসী। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রবিবার সকালে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমার নির্দেশে নবীগঞ্জ উপজেলার নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ-বিন হাসান ও নবাগত সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতাউল গণি ওসমানীর নেতৃত্বে পুলিশসহ একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকালে দুটি বালুভর্তি বলগ্রেটসহ উল্লেকিত ৭ শ্রমিককে আটক করেন। এসময় দুটি ড্রেজার মেশিন নিয়ে পালিয়ে যায় বালু উত্তোলনকারী আরো কয়েকজন শ্রমিক।
এ ব্যাপারে আটককৃতদের সাথে আলাপ হলে তারা জানান, তাদেরকে মৌলভীবাজারের রাসেল নামে এক ব্যক্তি কাজে আনে। এর বেশী আর কিছু বলতে পারছে না তারা।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেসকে বলেন,  অভিযোগ পেয়ে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছি। দুটি বলগ্রেট মেশিনসহ ৭ জনকে আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বালু উত্তোলনকারী চক্র যতই শক্তিশালী হোক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদ-বিন হাসান বলেন, ‘অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ পেয়ে জেলা প্রশাসক এর নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুটি বলগ্রেট মেশিনসহ ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।”
এদিকে পারকুল গ্রামের বাসিন্দা হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল মতিন আছাব বলেন, “আমাদের আউশকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান হারুনসহ একটি প্রভাবশালী চক্র দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। গ্রামবাসী তাদের লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা। প্রশাসনের অভিযানে ধন্যবাদ জানান তিনি।
অপর দিকে এই অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান হারুন বলেন ‘‘ আমি বালু উত্তোলনকারী সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত নয়। একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার করছে।
প্রসঙ্গত: কুশিয়ারা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে যেকোন মুহুর্তে নদী ভাঙ্গন ও বিবিয়ানা পাওয়ার প্ল্যান্ট হুমকির মুখে পড়েছে। শেরপুর সেতু ধ্বসেরও আশঙ্কা করছেন স্থানীয় লোকজন। কয়েকমাস আগে নবীগঞ্জ উপজেলার সাবেক নির্বাহী অফিসার অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারী সংস্থা তালুকদার এন্টারপ্রাইজের বলেেগ্রট ও নৌকা আটক করে আর্থিক জরিমানা ও মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেন। পরবর্তীতে ওই এলাকার জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতা মিলে একটি বিশাল সিন্ডিকেট গড়ে তুলে সংঙ্গবদ্ধভাবে অবৈধ বালু উত্তোলন শুরু করে। উত্তোলিত বালু পার্শ্ববর্তী অর্থনৈতিক জোন শ্রীহট্রতে সরবরাহ করা হচ্ছে।
এলাকাবাসীর দাবী শুধু শ্রমিকদের আটক করলে হবে না, বালু উত্তোলনের সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত মূল হোতাদের ধরতে প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com