সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বাহুবলে পল্লী বিদ্যুতের নির্মাণাধীন সাব-স্টেশনে দুর্বৃত্তের হানা ॥ ৫ শ্রমিককে মারধর করে সর্বস্ব লুট **  প্রি-পেমেন্ট মিটার কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে এমপি আবু জাহির ॥ সরকারের ডিজিটাল কার্যক্রমের সুবিধা ভোগ করছে সকল শ্রেণির মানুষ **  আজ মহান বিজয় দিবস ॥ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ **  জালালাবাদ এসোসিয়েশন ঢাকা ও নবীগঞ্জ কল্যাণ সমিতি সিলেটের যৌথ উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প সম্পন্ন **  হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অশোক মাধব রায় ॥ শায়েস্তাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উৎসবের প্রস্তুতি চলছে **  বেতন স্কেল নির্ধারণের দাবিতে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন ॥ ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে দাবী না মানলে ২৩ ডিসেম্বরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশন কর্মসূচির ঘোষণা **  নবীগঞ্জে নিঃসন্তান দম্পতিকে বসতবাড়ি থেকে বিতাড়ন ॥ প্রাণনাশের হুমকি **  বাহুবলে বিদ্যুতের খুঁটির নিচে চাপা পড়ে শিশু নিহত ॥ ৫ শ্রমিককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ **  আতাউর রহমান সেলিমের মায়ের আত্মার মাগফিরাত কামনায় মিলাদ **  জেলা যুবলীগের সভাপতির মায়ের মৃত্যুতে বানিয়াচং যুবলীগের দোয়া মাহফিল **  পিপি সিরাজুল হক চৌধুরীর মায়ের ইন্তেকাল ॥ এমপি আবু জাহিরের শোক **  মাদ্রাজে চিকিৎসা শেষে বাড়িতে ফিরেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্র চন্দ্র দাশ **  মাধবপুরে ভারত থেকে চোরাই পথে আনা প্যান্ট পিস উদ্ধার

কুরআন তেলাওয়াতের ফযিলত

পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারক হচ্ছে নুযুলে কুরআনের মাস। এ মাসেই রাসূল পাক সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর প্রতি পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ হয়। এ মাসেই রয়েছে হাজার মাসের চেয়ে উত্তম এক রাত্রি পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর। যে রাতে ইবাদত করলে চুরাশি বছর চার মাসের বেশী সময় একনিষ্ঠভাবে ইবাদতের সওয়াব আলাহ তাআলা দান করেন। হাদীস শরীফে এসেছে, পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকের মহত্ত্ব ও মর্যাদা এত অধীক যে, এই মাসে মহান আল্লাহ তাআলা প্রতিটি নফলকে এক একটি ফরয়ের সমতুল্য মর্যাদা দান করেন। আর এক একটি ফরযকে সত্তরটি ফরযের সমতুল্য সওয়াব দান করেন। (বায়হাকী)
কেয়ামতের ময়দানে অনেক আল্লাহর বান্দাহ অতি সামান্য পরিমাণ নেকের জন্য আটকা পড়বে। তখন তাদের অবস্থার বিবেচনায় রাসূল সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং আল্লাহর অনেক প্রিয় বান্দাহ সুপারিশ করে তাদেরকে জান্নাতে নিয়ে যাবেন। এমনিভাবে বান্দাহর বিশেষ বিশেষ আমল মহান আল্লাহ তাআলার দরবারে সুপারিশ করবে। যেমন- হযরত আবি উমামা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত হাদীস, তিনি বলেন, রাসূল কারীম সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন- “তোমরা কুরআন শরীফ পড়। কেননা কুরআন কেয়ামতের দিন তার সাথীর জন্য সুপারিশকারী হবে।” (মুসলিম)
অপর এক হাদীসে উল্লেখ আছে যে, “হাশরের ময়দানে রোযা বলবে হে আল্লাহ, আমি তাঁকে দিনের বেলায় পানাহার থেকে বিরত রেখেছি। তাই তার পক্ষে আমার শাফাত গ্রহণ করুন। পবিত্র কুরআন বলবে, হে আল্লাহ! আমি তাকে রাতের বেলায় নিদ্রা থেকে বিরত রেখেছি। তার পক্ষে আমার শাফাআত কবুল করুন। তখন বান্দাহর পক্ষে তাদের (রোযাও কুরআনের) শাফাআত কবুল করা হবে।” হযরত আয়িশা সিদ্দিকা (রাঃ) থেকে বর্ণিত অপর এক হাদীসের মাধ্যমে আমরা রামাদ্বানুল মুবারকে কুরআন তিলাওয়াতের ফযিলত সম্পর্কে অনুধাবন করতে পারি। রাসূল পাক সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন- “নামাযে কুরআন তিলাওয়াত, নামাযের বাইরে কুরআন তিলাওয়াতের চেয়ে উত্তমতর। নামাযের বাইরে কুরআন তিলাওয়াত করা তাসবীহ-তাহলীল করার চেয়ে উত্তম। তাসবী-তাহলীল সদকার চেয়ে উত্তম। সদকা রোযার চেয়ে উত্তম, আর রোযা দোযখ থেকে রক্ষার জন্য ঢাল স্বরূপ।” এই হাদীস শরীফ দ্বারা বুঝা যায় যে রামাদ্বানে কুরআন মজিদ তিলাওয়াত কতইনা উত্তম ইবাদত। আমাদেরকে পবিত্র কুরআনুল কারীম ও পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকের শাফাআত পেতে হলে পবিত্র রামাদ্বানে অধিক পরিমাণে কুরআন তিলাওয়াত করতে হবে। পবিত্র কুরআনের শিক্ষাকে সমাজের চতুর্দিকে ছড়িয়ে দিতে হবে। এ মাসে অধিক পরিমাণে নফল ইবাদত করে আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জন করা উচিত। বিশেষ করে বেশী বেশী তেলাওয়াতের মাধ্যমে তাঁর সন্তুষ্টি অর্জন করা যায়। কেননা, রাসূল সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ ফরমান- “(ফরয ইবাদতের পর) কুরআন শরীফ তিলাওয়াত করা সর্বোত্তম ইবাদত।” (বুখারী)
আমাদের মাযহাবের ইমাম, ইমামে আযম আবু হানিফা রাহমাতুল্লাহি আলাইহি পবিত্র রামাদ্বান শরীফের দিনে এক খতম এবং রাতে এক খতম করে মোট ষাট খতম কুরআন মাজীদ তেলাওয়াত করতেন। আরো এক খতম কুরআন তারাবীহের নামাযে আদায় করতেন। ইমাম মালিক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি রামাদ্বান আসলে কুরআন তিলাওয়াত ছাড়া বাকী সকল কাজ বন্ধ করে দিতেন। শিক্ষা দান করা, ফতওয়া ও লোকজনের সাথে উঠা-বসা বন্ধ করে দিয়ে বলতেন, এটা হচ্ছে পবিত্র কুরআনের মাস। ইমাম শাফেয়ী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি, ইমাম বুখারী রাহমাতুল্লাহি আলাইহিসহ ছিহাহ ছিত্তার ইমামগণ, গাউছুল আযম আব্দুল কাদির জিলানী রাহমাতুল্লাহি আলাইহিসহ প্রায় সকল মাশায়িখে কিরাম, আইম্মায়ে মুজতাহিদীন, পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকে অন্যান্য সকল কাজ বাদ দিয়ে অধিক পরিমাণে পবিত্র কুরআনুল কারীম তিলাওয়াত করতেন। হযরত আয়িশা রাদিয়াল্লাহু আনহু সুবহে সাদিক থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত একটানা কুরআন তিলাওয়াত করতেন। হযরত কাতাদাহ রাহমাতুল্লাহি আলাইহি প্রতি সাত রাতে একবার এবং রামাদ্বানে প্রতি দিনে ও রাতে এক একবার করে কুরআন খতম দিতেন। আমাদেরও উচিত রামাদ্বানুল মুবারকে অধিক পরিমাণে কুরআন মাজিদের তিলাওয়াত এবং তিলাওয়াতের প্রসারে আত্মনিয়োগ করা। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে তৌফিক দান করুন। আমীন।
লেখকঃ
প্রভাষক, ইটাখোলা সিনিয়র আলিম মাদরাসা, মাধবপুর, হবিগঞ্জ।

Share This: