সংবাদ শিরোনাম : 

 **  চুনারুঘাটে সড়ক নির্মাণে টাকা লুটের নমুনা ॥ অভিনব দুর্নীতি ॥ নিচে খড় বিছিয়ে উপরে কার্পেটিং **  আটক চেয়ারম্যান মধু’র বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ **  সদর হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ব বৃদ্ধি ॥ পুলিশের অভিযান **  খোশ আমদেদ মাহে রমজান **  সততার সাথে কাজ করায় এগিয়ে যাচ্ছে দেশ-এমপি আবু জাহির **  হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল **  হবিগঞ্জ মেডিকেল টেকনোলজিস্টের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত **  বনিয়াচংয়ে ধান মাড়াই মেশিনের বেল্টের আঘাতে কৃষকের মৃত্যু **  শহরের কামড়াপুর থেকে দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার **  হবিগঞ্জে মাতৃদুগ্ধ ব্যবহারে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ **  নবীগঞ্জের আমড়াখাই গ্রামে বিদ্যুৎ উদ্বোধন করলেন এমপি বাবু **  নবীগঞ্জের মজলিশপুরে মানবসেবা ইউ.কে ট্রাষ্ট (ইউ.কে) এর ৬ষ্ট বার্ষিক ত্রাণ সামগ্রী বিতরণী **  বাহুবলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

কুরআন তেলাওয়াতের ফযিলত

পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারক হচ্ছে নুযুলে কুরআনের মাস। এ মাসেই রাসূল পাক সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর প্রতি পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ হয়। এ মাসেই রয়েছে হাজার মাসের চেয়ে উত্তম এক রাত্রি পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর। যে রাতে ইবাদত করলে চুরাশি বছর চার মাসের বেশী সময় একনিষ্ঠভাবে ইবাদতের সওয়াব আলাহ তাআলা দান করেন। হাদীস শরীফে এসেছে, পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকের মহত্ত্ব ও মর্যাদা এত অধীক যে, এই মাসে মহান আল্লাহ তাআলা প্রতিটি নফলকে এক একটি ফরয়ের সমতুল্য মর্যাদা দান করেন। আর এক একটি ফরযকে সত্তরটি ফরযের সমতুল্য সওয়াব দান করেন। (বায়হাকী)
কেয়ামতের ময়দানে অনেক আল্লাহর বান্দাহ অতি সামান্য পরিমাণ নেকের জন্য আটকা পড়বে। তখন তাদের অবস্থার বিবেচনায় রাসূল সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং আল্লাহর অনেক প্রিয় বান্দাহ সুপারিশ করে তাদেরকে জান্নাতে নিয়ে যাবেন। এমনিভাবে বান্দাহর বিশেষ বিশেষ আমল মহান আল্লাহ তাআলার দরবারে সুপারিশ করবে। যেমন- হযরত আবি উমামা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত হাদীস, তিনি বলেন, রাসূল কারীম সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন- “তোমরা কুরআন শরীফ পড়। কেননা কুরআন কেয়ামতের দিন তার সাথীর জন্য সুপারিশকারী হবে।” (মুসলিম)
অপর এক হাদীসে উল্লেখ আছে যে, “হাশরের ময়দানে রোযা বলবে হে আল্লাহ, আমি তাঁকে দিনের বেলায় পানাহার থেকে বিরত রেখেছি। তাই তার পক্ষে আমার শাফাত গ্রহণ করুন। পবিত্র কুরআন বলবে, হে আল্লাহ! আমি তাকে রাতের বেলায় নিদ্রা থেকে বিরত রেখেছি। তার পক্ষে আমার শাফাআত কবুল করুন। তখন বান্দাহর পক্ষে তাদের (রোযাও কুরআনের) শাফাআত কবুল করা হবে।” হযরত আয়িশা সিদ্দিকা (রাঃ) থেকে বর্ণিত অপর এক হাদীসের মাধ্যমে আমরা রামাদ্বানুল মুবারকে কুরআন তিলাওয়াতের ফযিলত সম্পর্কে অনুধাবন করতে পারি। রাসূল পাক সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন- “নামাযে কুরআন তিলাওয়াত, নামাযের বাইরে কুরআন তিলাওয়াতের চেয়ে উত্তমতর। নামাযের বাইরে কুরআন তিলাওয়াত করা তাসবীহ-তাহলীল করার চেয়ে উত্তম। তাসবী-তাহলীল সদকার চেয়ে উত্তম। সদকা রোযার চেয়ে উত্তম, আর রোযা দোযখ থেকে রক্ষার জন্য ঢাল স্বরূপ।” এই হাদীস শরীফ দ্বারা বুঝা যায় যে রামাদ্বানে কুরআন মজিদ তিলাওয়াত কতইনা উত্তম ইবাদত। আমাদেরকে পবিত্র কুরআনুল কারীম ও পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকের শাফাআত পেতে হলে পবিত্র রামাদ্বানে অধিক পরিমাণে কুরআন তিলাওয়াত করতে হবে। পবিত্র কুরআনের শিক্ষাকে সমাজের চতুর্দিকে ছড়িয়ে দিতে হবে। এ মাসে অধিক পরিমাণে নফল ইবাদত করে আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জন করা উচিত। বিশেষ করে বেশী বেশী তেলাওয়াতের মাধ্যমে তাঁর সন্তুষ্টি অর্জন করা যায়। কেননা, রাসূল সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ ফরমান- “(ফরয ইবাদতের পর) কুরআন শরীফ তিলাওয়াত করা সর্বোত্তম ইবাদত।” (বুখারী)
আমাদের মাযহাবের ইমাম, ইমামে আযম আবু হানিফা রাহমাতুল্লাহি আলাইহি পবিত্র রামাদ্বান শরীফের দিনে এক খতম এবং রাতে এক খতম করে মোট ষাট খতম কুরআন মাজীদ তেলাওয়াত করতেন। আরো এক খতম কুরআন তারাবীহের নামাযে আদায় করতেন। ইমাম মালিক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি রামাদ্বান আসলে কুরআন তিলাওয়াত ছাড়া বাকী সকল কাজ বন্ধ করে দিতেন। শিক্ষা দান করা, ফতওয়া ও লোকজনের সাথে উঠা-বসা বন্ধ করে দিয়ে বলতেন, এটা হচ্ছে পবিত্র কুরআনের মাস। ইমাম শাফেয়ী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি, ইমাম বুখারী রাহমাতুল্লাহি আলাইহিসহ ছিহাহ ছিত্তার ইমামগণ, গাউছুল আযম আব্দুল কাদির জিলানী রাহমাতুল্লাহি আলাইহিসহ প্রায় সকল মাশায়িখে কিরাম, আইম্মায়ে মুজতাহিদীন, পবিত্র রামাদ্বানুল মুবারকে অন্যান্য সকল কাজ বাদ দিয়ে অধিক পরিমাণে পবিত্র কুরআনুল কারীম তিলাওয়াত করতেন। হযরত আয়িশা রাদিয়াল্লাহু আনহু সুবহে সাদিক থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত একটানা কুরআন তিলাওয়াত করতেন। হযরত কাতাদাহ রাহমাতুল্লাহি আলাইহি প্রতি সাত রাতে একবার এবং রামাদ্বানে প্রতি দিনে ও রাতে এক একবার করে কুরআন খতম দিতেন। আমাদেরও উচিত রামাদ্বানুল মুবারকে অধিক পরিমাণে কুরআন মাজিদের তিলাওয়াত এবং তিলাওয়াতের প্রসারে আত্মনিয়োগ করা। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে তৌফিক দান করুন। আমীন।
লেখকঃ
প্রভাষক, ইটাখোলা সিনিয়র আলিম মাদরাসা, মাধবপুর, হবিগঞ্জ।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com