মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৪৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর জশ্নে জুলুছে লাখো জনতার ঢল হবিগঞ্জে মোহনা টেলিভিশনের ১০ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত শহরের পুরাণমুন্সেফির পুকুর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশের অভিযানে ১১ জন আটক ডাকাতি প্রতিরোধসহ অপরাধ কর্মকান্ড হ্রাসে প্রাণান্তকর চেষ্টা চালাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বাহুবলে দু’ছাত্রীকে তোলে নেয়ার চেষ্ঠা ॥ সিএনজি চালক ও বখাটের কারাদন্ড তেঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনু মিয়াকে জেলে প্রেরণ নবীগঞ্জের ২নং ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন নবীগঞ্জে অসহায় মহিলার বাড়িঘর ভাংচুর-গাছপালা বিনষ্ট ॥ অভিযোগ নবীগঞ্জের ৭নং করগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন
বৃষ্টিতে জলমগ্ন হবিগঞ্জ শহর বাড়ছে খোয়াই নদীর পানি

বৃষ্টিতে জলমগ্ন হবিগঞ্জ শহর বাড়ছে খোয়াই নদীর পানি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ টানা বৃষ্টিপাতে হবিগঞ্জ শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, প্রধান সড়কসহ বিভিন্ন সড়ক বাসা-বাড়ির রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। জলাবদ্ধতার কারণে শহরবাসীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অপরদিকে অনেক বাসা-বাড়িতে মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।
বিক্ষুব্ধ শহরবাসী জানান, শহরে পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
সূত্র জানায়, প্রথম শ্রেণীর হবিগঞ্জ পৌরসভায় দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টিতে শহরবাসীকে জলাবদ্ধতার শিকার হতে হয়। এতে বাসা-বাড়ির লোকজন পানিবন্দি হয়ে পড়েন। এই জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য হবিগঞ্জবাসী দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছেন। কিন্তু এর কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না। এবার চৈত্র মাস থেকে বৃষ্টি বাদল শুরু হওয়ার পর থেকে হবিগঞ্জ শহরবাসীকে জলাবদ্ধতার শিকার হতে হয়েছে। পাশাপাশি বাসা-বাড়িতে পানিবন্দি অবস্থায় পরিবার পরিজনদের নিয়ে থাকতে হচ্ছে।
পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণে বুধবার বিকেল থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত কয়েক দফা বৃষ্টিপাতের ফলে পানি জমে শহরের অনেক এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। শহরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সার্কিট হাউজ এলাকা, পানি উন্নয়ন বোর্ড কার্যালয়, শায়েস্তানগরের ভিতরের রাস্তা, টাউন মডেল সরকারি বালক ও বালিকা স্কুলের রাস্তা, নোয়াহাটি, নাতিরপুর, বাতিপুর, গানিংপার্ক, টাউন হল রোড, প্রধান সড়কের পোস্ট অফিস থেকে চৌধুরী বাজার ট্রাফিক পয়েন্ট, চৌধুরী বাজার কাঁচামাল হাটা, কামারপট্টিসহ অধিকাংশ সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।
এসব এলাকা দিয়ে পথচারীর হাটু পানি ভেঙ্গে চলাচল করতে হয়েছে। পচাঁ পানি দিয়ে চলার কারণে অনেকেই চর্মরোগসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। কালীবাড়ি ক্রসরোডসহ বিভিন্ন নিচু এলাকায় বসবাসকারীরা পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। আর এসব পানির ময়লায় মশাসহ পোকা মাকড়ের উৎপাত বেড়ে গেছে। মশাসহ পোকা মাকড়গুলো বাতাসে বাসা বাড়িতে ঢুকে পড়ছে। ফলে দিনের বেলাও মানুষকে মশার আক্রমণের শিকার হতে হচ্ছে। পোকাগুলো মানুষের খাবারের সময় ভাতের থালার মধ্যে পড়ছে। বাসার সামনে পানি থাকায় শিশুরা গৃহবন্দি হয়ে খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
হবিগঞ্জ শহরের গানিংপার্ক এলাকার বাসিন্দা নাজমুল হক জানান, টানা দেড় ঘন্টা বৃষ্টিতে গানিংপার্ক এলাকায় ড্রেন ডুবে রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে আমাদের হাটুপানি ভেঙ্গে চলাচল করতে হচ্ছে। তিনি বলেন- এখানে নিয়মিত ড্রেন পরিস্কারসহ পরিকল্পিত উদ্যোগ নিলে জলাবদ্ধতা থাকবে না। আমরা পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য পৌর কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানাচ্ছি।
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল জানান, হবিগঞ্জ শহরে পরিকল্পিত কোন ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই। ড্রেনগুলো ময়লা আবর্জনায় ভরপুর। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে ড্রেনগুলোর উপর মাটি ফেলাসহ ময়লা আবর্জনাগুলো রাস্থায় ফেলা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, হবিগঞ্জ শহরের পানি চলাচলের রাস্তা পুরাতন খোয়াই নদী, রেল লাইন সড়কের খালসহ অন্যান্য খালগুলো দখল করে নেয়ায় পানি বের হতে পারছে না। যে কারণে জলাবদ্ধতার শিকার হয়ে সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। তিনি বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসন করতে হলে খোয়াই নদীসহ পানি চলাচলের খালগুলো দখলমুক্ত করতে হবে। পাশাপাশি ড্রেনগুলো নিয়মিত পরিস্কার রাখতে হবে।
এদিকে দিন দিন খোয়াই নদীর পানি বেড়েই চলেছে। চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা সীমান্ত দিয়ে আসা হবিগঞ্জ শহরের পাশ দিয়ে বয়ে চলা খোয়াই নদীর পানি দ্রুত গতিতে বেড়ে চলেছে। অভ্যন্তরীন পানি বৃদ্ধির প্রবাহ কম হলেও বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় ভারতের খোয়াই মহুকুমায় অবস্থিত খোয়াই ব্যারেজের বাধ খুলে দেয়ায় দ্রুত গতিতে পানি চলে আসছে বাংলাদেশে।
হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী এম এল সৈকত জানান, বুধবার বিকেল থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত খোয়াই নদীর পানি বৃদ্ধি পায় ১৭০ সেন্টিমিটার। কিন্তু ভারত বাঁধ খুলে দেয়ায় পানি দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় পানির বাল্লা সীমান্তে বিপদ সীমার ৮৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। তবে শহর এলাকায় এখনও বিপদ সীমা অতিক্রম করেনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com