রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:১৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সায়হাম গ্রুপের কর্ণদার সৈয়দ মোঃ ফয়সল সেরা করদাতা নির্বাচিত বেকারত্ব দূর করতে ভূমিকা রাখতে পারেন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ-বাহুবলের সাবেক এমপি আব্দুল মোছাব্বির এর কুলখানি অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের কমিটি ও উপদেষ্ঠা পরিষদ গঠন নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন দাঙ্গা-হাঙ্গামায় সহযোগিতা নয় প্রতিরোধ করুন-রবিউল ইসলাম নবীগঞ্জ আউশকান্দি ইউনিয়ন বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি গঠন হজ্ব পালনের বিভিন্ন নিয়মাবলী সম্পর্কে ধারণা দিলেন এমপি আবু জাহির বাসদ নেতা হুমায়ূন খানের বড় বোনের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামে ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের বিশেষ সৎসঙ্গ অধিবেশন
কৃষকের স্বপ্ন পচে যাচ্ছে পানির নিচে

কৃষকের স্বপ্ন পচে যাচ্ছে পানির নিচে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কৃষকের স্বপ্ন পচে যাচ্ছে পানির নিচে। হবিগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। গত কয়েকদিনের অবিরাম ভারী বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে জেলার ভাটি এলাকার অবশিষ্ট বোরো ফসলও তলিয়ে গেছে। যে সময়ে কৃষক নতুন ফসল ঘরে তোলায় ব্যস্থ থাকার কথা সে সময় চোখের সামনে দিয়ে বানের পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে কাচা পাকা ফসল।
ভারী বৃষ্টি আর উজানের ঢলে বাঁধ ভেঙে হাওরের লাখ লাখ একর জমির বোরো ধানসহ ফসলি জমি তলিয়ে গেছে গত কয়েক দিনে। মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল। এতে নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে বোরো জমিন। এর মধ্যে প্রথম দিকে তলিয়ে যাওয়া জমির ধান পচতে শুরু করেছে পানির নিচেই। পাকা ধানের এভাবে নষ্ট হয়ে যাওয়া দেখে কাঁদছেন কৃষকরা।
গত ৭২ ঘণ্টায় জেলার খোয়াই, কুশিয়ারা, কালনী নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বিভিন্নস্থানে বাঁধ উপচে পানি ঢুকে বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ প্লাবিত হয়। ফলে কৃষকের ঘরের গোলা শূন্য হয়ে খাদ্যাভাব দেখা দেয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, গত রোববার সকাল ৯টা থেকে খোয়াই ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে থাকে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়ে ফসলের ক্ষতি হয়। সম্প্রতি অতি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে জেলার প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর জমির বোরো ফসল সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে বানিয়াচং, লাখাই ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলার হাওর।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে জেলার ৮টি উপজেলায় মোট ১ লাখ ১৬ হাজার ৫১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছিল। এপ্রিলের শুরুতে ভারী বৃষ্টিপাতে জেলার হাওর এলাকার আবাদকৃত প্রায় ৩৫ হাজার হেক্টর জমি পানিতে তলিয়ে যায়। বাকি জমি কিছুটা রক্ষা পেলেও গত ৪ দিনের অতি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তাও শেষ রক্ষা হয়নি।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ তাওহীদুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার ১৭ এপ্রিল সকাল থেকে জেলার খোয়াই নদীর পানি বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও আজমিরীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে রয়েছে।
তিনি বলেন, চলতি মাসের বৃষ্টিপাত গত ১৬ বছরের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। পুরো এপ্রিল মাসে যেখানে ২২২ মি.লি. বৃষ্টিপাত হওয়ার কথা সেখানে গত ৪ দিনেই (বৃহস্পতিবার-রোববার) সে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়। অতি বর্ষণের ফলে নদ নদীগুলোর বাঁধ উপচে প্রবল বেগে পানি প্রবাহিত হওয়ায় বোরো ফসল বিনষ্ট হচ্ছে। এতিমধ্যে বানিয়াচঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হাওর পরিদর্শনে যান দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মোঃ আবু হাসিম, বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বন্দীপ কুমার সিংহা।
বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বন্দীপ কুমার সিংহা জানান, আমরা ৫৫ মেট্রিক টন চাল বরাদ্ধ পেয়েছি। ইতোমধ্যে ২৫ মেট্রিক টন চাল ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মাঝে বিতরণ করেছেন তারা। সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে মাসে ৩০ কেজি চাল ও ৫০০ টাকা করে দেয়া হবে। যদিও উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের সংখ্যা প্রায় ৪০ হাজারেরও উপরে। বাকিদের টিআর এর চাল দেয়া হবে।
অপরদিকে, কালবৈশাখীর ঝড়ে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর, বানিয়াচং উপজেলার দৌলতপুর, বাহুবল উপজেলার স্নানঘাট ইউনিয়নের ৫ শতাধিক ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ও আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিভাগ সূত্র জানায়, নিজামপুরে ৫৮টি সম্পূর্ণ, ১৬৬টি আংশিক, স্নানঘাটে ১০০টি সম্পূর্ণ ও ১০০টি আংশিক ও দৌলতপুরে ৪৬টি সম্পূর্ণ ও ৫১টি আংশিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়।
এ পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ২০৩ টন চাল, খয়রাতি বাবদ নগদ ৭ লাখ ৫২ হাজার টাকা ও ৩ লাখ ৫৪ হাজার টাকা গৃহ নির্মাণ মঞ্জুরি হিসেবে দেয়া হয়েছে। এছাড়া ১১৮ বান্ডিল টিন বিতরণ করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com