শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি মাধবপুরে গাছ এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি ॥ প্রাণ বাঁচাল শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০-৫০ জন বাস যাত্রীর চুনারুঘাটের স্ত্রী-বিজয়নগরের স্বামী বিপুল গাঁজাসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের খাঁচায় হবিগঞ্জে আরো ৭০৩ জন করোনা টিকা নিয়েছেন চুনারুঘাট এসোসিয়েশন ইউকে ও শায়েস্তাগঞ্জ সমিতি ইউকের ভার্চুয়াল শোক সভা ও দোয়া মাহফিল হবিগঞ্জে জাতীয় জীবন বীমা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী নব নির্বাচিত মেয়র সেলিমের সাথে আইনজীবীদের শুভেচ্ছা বিনিময় শহরের মাদক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলী কারাগারে ॥ রিমান্ডের আবেদন কাঁচা সুপারি দিয়ে পান খেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে মাদক বিরোধী জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিটং পুলিশিং এর সভা অনুষ্টিত
হরকাতুল জেহাদের আঞ্চলিক কমান্ডার ॥ নবীগঞ্জের মামা হুজুর বন্দুকযুদ্ধে নিহত

হরকাতুল জেহাদের আঞ্চলিক কমান্ডার ॥ নবীগঞ্জের মামা হুজুর বন্দুকযুদ্ধে নিহত

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ হরকাতুল জেহাদের আঞ্চলিক কমান্ডার নবীগঞ্জের তাজুল ইসলাম মাহমুদ ওরফে মামা হুজুর (৪৫) বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। বুধবার দিনগত রাত দেড়টার দিকে ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার কুটি এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) বেলাল হোসেনসহ পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩৫ টি ককটেল, একটি পাইপগান, নয় রাউন্ড কার্তুজ ও পাঁচটি চাপাতি উদ্ধার করেছে। নিহত তাজুল নবীগঞ্জ উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের সাদুল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা। সে কয়েক বছর পূর্বে জঙ্গি সন্দেহে র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছিলেন। এরপর দীর্ঘ দিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করে। ট্রাভেলস ব্যবসাও করেছেন অনেক দিন।
কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহিউদ্দিন আহাম্মেদের দাবি, নিহত মামা হুজুর জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। গত ১৭ ফেব্র“য়ারি দিনগত রাতে উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের কবিরাজ ফরিদ মিয়া হত্যা মামলার অন্যতম আসামি তিনি। এই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া আরেক আসামির ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে মামা হুজুরের নাম উঠে আসে।
ওসি জানান, নাশকতার উদ্দেশ্যে মামা হুজুর ও তার দল কুটি এলাকায় জড়ো হয়েছে এমন খবরে অভিযানে যায় পুলিশ। ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর মামা হুজুরের লোকজন পুলিশকে লক্ষ্য করে ১৪ টি ককটেল ছুঁড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মামা হুজুর নিহত হয়।
নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।
এদিকে সূত্রে জানা গেছে, নিহতের বাড়ি নবীগঞ্জে হলেও সে দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করে আসছিল, পরিবারের লোকজনের সাথে কোন যোগাযোগ ছিলনা। এমনি কয়েক বছর পূর্বে জঙ্গি তৎপরাতায় জড়িত থাকার অফিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল। নিহত তাজুলের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তারা লাশ আনতে ব্রাহ্মবাড়িয়া জেলার কসবা থানায় গেছেন।
উল্লেখ্য, গত ১৮ ফেব্র“য়ারি সকালে কসবা উপজেলার কাইয়ুমপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে কবিরাজ ফরিদ মিয়ার (৪৭) গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় গত ২৪ ফেব্র“য়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আদালতে দেয়া ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জহির মিয়া নামে এক ব্যক্তি জানান, ধর্ষণ, প্রতারণা ঠেকিয়ে বেহেস্তে যেতে কথিত মামা হুজুরের (নিহত ব্যক্তি) নির্দেশে ফরিদ মিয়াকে হত্যা করেন তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com