সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:০৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
মাধবপুরে শিশু সন্তানসহ মায়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মাধবপুরে শিশু সন্তানসহ মায়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মাধবপুর প্রতিনিধি ॥ মাধবপুরে শিশু সন্তান ও মা’র ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শিশুপুত্রকে ফাঁস দিয়ে হত্যার পর সন্তানের ঝুলন্ত লাশের পাশেই গলায় ফাঁস দিয়ে মা আত্মাহত্যা করেছেন বলে স্থানীয় লোকজন ধারণা করা হচ্ছে। গতকাল সোমবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার বহরা ইউনিয়নের ঘিলাতলী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আত্মহননকারী মা হলেন ঘিলাতলী গ্রামের পিন্টু দেবের স্ত্রী মিলি দেব (২১) ও তার দেড় বছর বয়সী ছেলে প্রতীক দেব। এ ঘটনার পর থেকে স্বামী ও শাশুড়ী পলাতক রয়েছে। এটি পরিকল্পিত হত্যা নাকি আত্মহত্যা এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, প্রায় ৩ বছর পূর্বে পিন্টু দেবের সাথে মৌলভীবাজার জেলার কাশিপুর গ্রামের মঞ্জুলাল দেবের মেয়ে মিলির বিয়ে হয়। তার সংসার জীবনে এক ছেলে সন্তান নেয়। তার নাম রাখা হয় পথিক। প্রতিবেশীরা জানান, বিয়ের পর থেকেই তার শ্বাশুরী পঞ্চমী দেবের সঙ্গে মিলি দেবের বনিবনা হচ্ছিল না। প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হত।
ঘটনার বিবরণ দিয়ে নিহত মিলির প্রতিবেশী ভাসুরের স্ত্রী রিক্তা দেব বলেন, প্রতিদিন সকালে মিলি তার বাচ্চাকে আমার কাছে রেখে বিভিন্ন কাজ করত। পরে আমাদের সঙ্গে হাসি খুশিভাবে সময় কাটাত। গতকাল সকালে ঘুম থেকে উঠে যখন তাদের কোনো সাড়াশব্দ পাচ্ছিলাম না, আর বাচ্চকেও আমার কাছে রেখে যায়নি, তখন কৌতুহলবশত তাদের ঘরের গ্রিলে ধাক্কা দিয়ে ডাকতে থাকি। কোনও শব্দ না পেয়ে গ্রিল খুলে ভিতরে গিয়ে দেখি মিলি ও তার শিশুসন্তান পথিক ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলছে। এ দৃশ্য দেখে আমি হতবাক হয়ে যাই। পরে চিৎকার দিলে বাড়ির অন্যান্য লোকজন ছুটে আসে। এ সময় পিন্টু বাড়ির বাইরে ছিল। আর তার শ্বাশুরী গত কয়েকদিন যাবত তার মেয়ের বাড়িতে অবস্থান করছিল। এ ঘটনার খবর পেয়ে বাড়িতে ছুটে আসেন।
জানা গেছে, মিলির স্বামী একটি বেসরকারী কোম্পানিতে চাকরি করেন। প্রতিদিন সকালে তিনি অফিসের কাজে বাইরে চলে যান। স্ত্রী সন্তানের মৃত্যুর খবর পেয়ে পিন্টু বাড়িতে আসেন। পরে আর তাকে পাওয়া যায়নি।
মিলির বোন পার্শ্ববর্তী দূর্গাপুর গ্রামের বাসিন্দা মাপ্পি দেব বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত এসে দেখি ঘরের ভিতর আমার বোন ও তার সন্তানের লাশ ঝুলছে। তার স্বামী ও শ্বাশুরী এ সময় বাড়িতে ছিলেন না।
মাপ্পি দেব অভিযোগ করে বলেন, আমার বোনকে তার শ্বাশুরী মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন। অনেকবার আমাদের কাছে দুঃখের কথা বলেছে মিলি। কিন্তু আমরা দুই বোন আমাদের বাবা-মাকে বিষয়টি জানাইনি। তার দুঃখ-কষ্ট যে এত ভারী হবে তা বুঝতে পারিনি।
থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম পলাশ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার এবং আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ দুটি হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে মিলির স্বামী পিন্টু ও তার মাকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com