শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৪:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি মাধবপুরে গাছ এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি ॥ প্রাণ বাঁচাল শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০-৫০ জন বাস যাত্রীর চুনারুঘাটের স্ত্রী-বিজয়নগরের স্বামী বিপুল গাঁজাসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের খাঁচায় হবিগঞ্জে আরো ৭০৩ জন করোনা টিকা নিয়েছেন চুনারুঘাট এসোসিয়েশন ইউকে ও শায়েস্তাগঞ্জ সমিতি ইউকের ভার্চুয়াল শোক সভা ও দোয়া মাহফিল হবিগঞ্জে জাতীয় জীবন বীমা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী নব নির্বাচিত মেয়র সেলিমের সাথে আইনজীবীদের শুভেচ্ছা বিনিময় শহরের মাদক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলী কারাগারে ॥ রিমান্ডের আবেদন কাঁচা সুপারি দিয়ে পান খেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে মাদক বিরোধী জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিটং পুলিশিং এর সভা অনুষ্টিত
পা ভেঙ্গে গেছে তাই বলে পরীক্ষা ফাঁকি দিতে রাজি নয় হ্যাপী

পা ভেঙ্গে গেছে তাই বলে পরীক্ষা ফাঁকি দিতে রাজি নয় হ্যাপী

নুুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ ভাঙ্গা পায়ে প্রচন্ড ব্যথা। ব্যথাটা থাকে সর্বক্ষণই। তাতে কি ? পরীক্ষা বলে কথা। জীবনের প্রথম সেন্টার পরীক্ষাটা যে তাকে দিতেই হবে। এতে দমে গেলে চলবে না। এ উৎসাহ থেকে হ্যাপি বাবার রিক্সায় চড়ে প্রতিদিনই আসে পরীক্ষা কেন্দ্রে। আহত হ্যাপির জন্য আলাদা টেবিল-চেয়ারের ব্যবস্থা করে দিয়েছে কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। আর এখানে বসেই হ্যাপি পরীক্ষার খাতায় লিখে যাচ্ছে নিরন্তর। সে চুনারুঘাট উপজেলার আমকান্দি ব্র্যাক স্কুলের মেধাবী ছাত্রী। চুনারুঘাট সদর সরকারী প্রাধমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রর একজন পরীক্ষার্থী সে। প্রথম দিনের পরীক্ষা শেষ করে নিজ গ্রাম আমকান্দি যাবার পথে টমটম দুর্ঘটনায় সে আহত হয়। এতে তার বাম পা ভেঙ্গে যায়। তার পা প্লাস্টার করানো হয়। আত্মীয়রা বলেছিলেন, পরীক্ষা দেয়ার দরকার নাই। কিন্তু সুন্দর ভবিষ্যৎ প্রত্যাশি হ্যাপি তা মানতে রাজি নয়। ভাঙ্গা পা নিয়েই সে পরীক্ষা দিতে মনস্থির করে। মেয়ের উৎসাহ দেখে রিক্সা চালক বাবা এরশাদ আলীও রাজি হয়ে যান। কেন্দ্র সুপার ওই মেয়েটির পরীক্ষা নেয়ার জন্য আলাদা বসার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। পাশে নিরক্ষর বাবা বসে থাকেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। হ্যাপি-ভাঙ্গা পা নিজের থেকে নড়াচড়া করাতে পারেনা তাই বাবার সাহায্যের প্রয়োজন পড়ে। মেয়েটি লিখে চলে অবিরাম। বাবা চেয়ে থাকেন মেয়ের লেখার দিকে। কিন্তু কিছুই বুঝেন না তিনি। মাঝে মাঝে আবেগে চোখের পানি ছাড়েন বাবা। এরশাদ আলী বললেন, মেয়েটা কি লিখে জানি না তবে আমি আশাবাদি সে একদিন আমার মুখ উজ্জল করবে। একদিন হ্যাপি বড় মানুষ হবে। তিনি বলেন, নিজের রক্ত বিক্রি করে হলেও হ্যাপিকে লেখাপড়া করাবেন তিনি। হ্যাপি বললো, পা ভেঙ্গে গেছে তাই বলে পরীক্ষা ফাঁকি দিতে আমি রাজি নই। আমি লেখাপড়া করে মানুষ হতে চাই। বড় মানুষ হতে চাই।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com