বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ফেইসবুকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী প্রচারণা ॥ লাখাইর সাবেক কৃষি কর্মকর্তা আহসান হাবিবের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন নবীগঞ্জের চেয়ারম্যান মুকুলের বরখাস্তের আদেশ বহাল সমৃদ্ধ দেশ গড়তে যুব সমাজকে কাজে লাগাতে হবে-এমপি আবু জাহির চাঁদাবাজির মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় বাস শ্রমিককে হুমকির অভিযোগ দুই লন্ডনীর বিরুদ্ধে মামলা বিএনপি নেতা নাজমুল হুদা এখন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা পইলে সৈয়দ আহমদুল হক ফুটবল টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল শুরু পাঁচপাড়িয়া গ্রামে মরহুম আরফান আলী ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্ট ও আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গের হিয়ালায় জুয়া খেলার অপরাধে ৪ জনের প্রত্যেককে ১৫ দিন করে বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান নবীগঞ্জের বাউসি গ্রামে দুর্বৃত্তের হামলায় রবি পরিবার গৃহহারা হবিগঞ্জ জেলা ট্রাক ও ট্যাংকলড়ী শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম বিতরণ
ভিডিও কন্ফারেন্সে হবিগঞ্জবাসীর উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী ॥ জঙ্গি নির্মূলে প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে

ভিডিও কন্ফারেন্সে হবিগঞ্জবাসীর উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী ॥ জঙ্গি নির্মূলে প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলার মাটিতে জঙ্গি সন্ত্রাসীদের ঠাঁই হবে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বুধবার বিকেলে গণভবনে থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হবিগঞ্জবাসীর উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সে সংসদ সদস্য, হবিগঞ্জ জেলার প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, বিজিবি, র‌্যাব, বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার প্রধান, মসজিদের ইমাম, খতিব, সমাজ সেবক, সাংবাদিক, আইনজীবি ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। গুলশান ও শোলাকিয়ার ঘটনা দেশের জন্য লজ্জাজনক উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ধর্মীয় নেতা, শিক্ষক, অভিভাবক, প্রশাসন, আইনশৃংখলা বাহিনী, জনপ্রতিনিধি, সমাজসেবক, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক সবাইকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। জঙ্গি হামলা করে বাঙালি জাতিকে বিশ্বের সামনে হেয় করছে, ইসলামকে হেয় করছে। পবিত্র ধর্ম ইসলামকে হেয় করবে তা বরদাশত করবো না। তিনি বলেন, নিরীহ মানুষ হত্যা করা মহাপাপ। যারা এটা করছে জনগণের ঘৃণা ছাড়া আর কিছু পাবে না। আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদের স্থান হতে দেবে না।
অভিভাবক ও শিক্ষকদের সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হামলায় জড়িতরা নামীদামি বিশ্ববিদ্যালয়, স্কুল, কলেজের ছাত্র। উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তান। তাদের কোনো চাহিদা অপূরণীয় নেই। তারপরও কেন জঘন্য পথে পা বাড়াল। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, স্কুল, কলেজে ছেলে মেয়েরা সঠিক ভাবে যায় কি না সে দিকে অভিভাবক খোজ রাখতে হবে। জেলার ওয়ার্ড থেকে শুরু ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতিমধ্যে অনেক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। তাদের স্বজনদের কোন কিছুর অভাব নেই। তারা দেশে বিশৃংখলা সৃষ্টির পায়তারা করবে। এ ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের রোল মডেল তখন এই ধরনের হামলা চালানো হয়েছে। এমন কাজ যারা করেছে, এটি ঘৃণ্য অপরাধ। তারা তো মসজিদে নববীতেও বোমা হামলা করেছে।’ আমি নিজেই সন্ত্রাসী হামলার শিকার। বাংলাদেশে রাজনীতি করতে গিয়ে কয়েক দফা সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছি। সরকার সন্ত্রাসবাদ নিয়ে সচেতন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।’ জঙ্গি নির্মূলে প্রয়োজনে অতি কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও অপর এক বক্তব্যে বলেন সরকার প্রধান। “সবাইকে আরও সচেতন থাকতে হবে। কারণ এটাও মনে রাখতে হবে যে, এটা আর এখানেই থামবে না।“নানা ধরনের পরিকল্পনা আছে। আমরা বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট, দেশি-বিদেশি বিভিন্ন জায়গা থেকে আমরা সংগ্রহ করে যাচ্ছি। সে ক্ষেত্রে আরও সচেতনতা সৃষ্টি করা প্রয়োজন।”
ভিডিও কনফারেন্সে হবিগঞ্জ জেলা থেকে বৃন্দাবন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসার বদরুজ্জামান চৌধুরী বক্তব্য রাখেন। তিনি তার বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজে ১৮ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। এ কলেজে জঙ্গিবাদের মত কোন কার্যক্রম নেই। ইতিমধ্যে এ বিষয়টি নিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে আমরা মতবিনিময় করেছি। মতবিনিময় সভায় এমপি অ্যাডভোকেট আবু জাহির উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভা থেকে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে সকলকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়েছি এবং আগামী কিছু দিনের মধ্যে নতুন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের নিয়ে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে মতবিনিময় সভার উদ্যোগ নিয়েছি। এছাড়াও হবিগঞ্জের প্রশাসন জঙ্গিবাদ সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে ইতিমধ্যে গণসচেতনতা মুলক কাজ করে যাচ্ছেন। সকলের মিলে হবিগঞ্জ থেকে সন্ত্রাসী ও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলা হবে। প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভিডিও কনফারেন্সকালে উপস্থিত ছিলেন, এমপি অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির, এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম, পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র, সিভিল সার্জন ডাঃ দেবপদ রায়, বিজিবি, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, আনসার প্রতিনিধি, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, বিভিন্ন মসজিদ, ইমাম, মোয়াজ্জিন, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক, আইনজীবি, ব্যবসায়ী, সমাজ সেবক ও সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। কনফারেন্স শেষে জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে এমপি মোঃ আবু জাহির বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে হবিগঞ্জে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদ গড়ে উঠতে পারবে না। মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, হবিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান এডঃ আলমগীর চৌধুরী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের ইউনিট কমান্ডার এডঃ মোঃ আলী পাঠান, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি মোঃ ফজলুর রহমান প্রমুখ।
গত ১ জুলাই রাতে গুলশানের কূটনীতিক পাড়ার অভিজাত এক রেস্টুরেন্টে সন্ত্রাসীরা ভয়াবহ সশস্ত্র হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জিম্মিকে হত্যা করে। সন্ত্রাসীদের ছুড়া গ্রেনডে প্রাণ যায় ডিবির এসি রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ওসি সালাউদ্দিন খানের। এ ঘটনার সপ্তাহ পার হতে না হতেই ঈদের দিন কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদ জামাতের মাঠের কাছে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের ওপর বোমা হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য, গৃহবধূ ঝর্ণা রানী ও সন্ত্রাসী আবির নিহত হন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com