মঙ্গলবার, ০২ Jun ২০২০, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
চুনারুঘাটে কিশোরীকে চাচা-চাচীর নির্যাতন ॥ মোবাইলে ইউএনওকে ম্যাসেজ ॥ উদ্ধার করল পুলিশ

চুনারুঘাটে কিশোরীকে চাচা-চাচীর নির্যাতন ॥ মোবাইলে ইউএনওকে ম্যাসেজ ॥ উদ্ধার করল পুলিশ

চুনারুঘাট প্রতিনিধি ॥ চাচা-চাচীর নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছে শাকিলা সুলতানা রিমা (১৪) নামে এক অসহায় এতিম মেয়ে। তার পিতৃ সম্পত্তি গ্রাস করার জন্য চাচা-চাচী মিলে তাদের প্রবাসী ছেলের সাথে অপ্রাপ্ত বয়সেই বিয়ের নাটক সাজায়। হাত-পা বেঁধে তাকে ঘরে আটকে রাখা হয়। কোন এ সুযোগে রিমা তাকে উদ্ধারের জন্য মোবাইলে ম্যাসেজ পাঠায় চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে। পরে পুলিশ তাকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করে। নির্যাতিত শাকিলা সুলতানা রিমা চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশী ইউনিয়নের গোয়াছপুর গ্রামের মৃত আঃ শুকুর মিয়ার মেয়ে।
উদ্ধারের পর রিমা তার করুণ কাহিনী বর্ণনা করে। সে জানায় ২০০০ সালে তার বয়স যখন দেড় বছর তখন পিতা আব্দুস শুকুরকে গ্রাম্য কোন্দলে হত্যা করা হয়। তখন মেয়েটির মাতা নাছিমা খাতুন অনেক দুঃখ কষ্টে কিছু দিন কাটিয়ে এতিম মেয়েটিকে নিয়ে প্রভাবশালীদের কবল থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য গাজীপুর ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামে রিমার নানার বাড়িতে চলে যান। সেখানে প্রায় ৯ বছর মেয়েকে নিয়ে বসবাস করেন মা নাছিমা। তারপর রিমার মা নাছিমা খাতুন মেয়েটিকে রেখে একা ফেলে ২য় বিয়ে করেন। তখন থেকে একা হয়ে পড়ে রিমা। তখন মেয়েটির বয়স হয় ১৪ বছর। এক পর্যায়ে রিমা তার পিতৃ সম্পত্তির খোজে চলে আসে গোয়াছপুর গ্রামে। এদিকে রিমার পিতা আব্দুস শুকুর মারা যাওয়ার পর তার সম্পত্তি ভোগদখল করতে থাকে রিমার আপন চাচা আব্দুল গফুর। রিমা এসে তার পিতার সম্পত্তির ব্যাপারে জানতে চাইলে চাচা আব্দুল গফুর বিভিন্নভাবে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে। এক পর্যায়ে আব্দুল গফুর প্রলোভন দিয়ে তার প্রবাসী ছেলের সাথে বিয়ের জন্য জোরপূর্বক রিমার কাছ থেকে মতামত আদায় করে। এমনিভাবে গত ২/৩ বৎসর পূর্বে বিদেশে থাকা অবস্থায়ই মোবাইল ফোনে শামীমের সাথে রিমার বিয়ে দেয়া হয়। এভাবে বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর শাশুড়ী এই এতিম মেয়েটির উপর নির্যাতন চালায়। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বিদেশে থাকা তার স্বামী শামিম মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলতে গেলে শামিম মিয়া বলেন, বাবা-মায়ে যেভাবে চালান সেই ভাবেই তোমাকে চলতে হবে এই আমার আদেশ। সে জানায় আমি বিদেশ থেকে যেদিন দেশে ফিরব তুমি তোমার বাবার সম্পত্তি আমার নামে অথবা আমার বাবার নামে লিখে দিতে হবে। এছাড়া ফোন দিলে আমি আর কোন কিছু বলব না বলে মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে রেখে দেন তার স্বামী। এভাবে দুঃখ কষ্ট করে দিন কাটাচ্ছিল এতিম কিশোরী মেয়েটি। গত মঙ্গলবার শ্বশুর শাশুড়ী নির্যাতন করে রিমাকে ঘরের ভিতরে হাত-পা বেঁধে রাখে। এক সুযোগে ছাড়া পেয়ে বাথরুমে যাবে বলে বেরিয়ে আসে। বাথরুমে যেয়ে দরজা বন্ধ করে তার মোবাইল থেকে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাশহুদুল কবিরের মোবাইলে ম্যাসেজ প্রেরণ করে। তখন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ম্যাসেজটি পেয়ে তাকে দ্রুত উদ্ধারের জন্য চুনারুঘাট থানার ওসি অমূল্য কুমার চৌধুরীকে বলেন। তাৎক্ষণিক চুনারুঘাট থানার এসআই হারুনুর রশীদ একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই দিনই দুপুরে শাকিলা সুলতানা রিমাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। এসময় শাকিল সুলতানা রিমা জানায়, তার শ্বশুর-শাশুড়ী সহ অনেকেই রিমার হাত থেকে দলিলে টিপসই ও দস্তখত নিয়েছে। একথা শুনে থানা পুলিশ সাথে সাথে তার দস্তখত ও টিপসই দেয়া দলিলটি উদ্ধার করে। পরে রিমাকে তার মায়ের কাছে দেয়া হয়। এ ব্যাপারে এসআই হারুনুর রশিদের সাথে আলাপ হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
পুলিশ জানায়, পূর্বে মেয়েটির বাবাকে পরিকল্পিতভাবে সম্পত্তির লোভে হত্যা করা হয়েছিল ও বিভিন্নভাবে মেয়েটিকে বারবার নির্যাতন করে আসছিল মেয়েটির চাচা-চাচী ও তার স্বামী। শাকিলা সুলতানা জানায়, আমার বাবার হত্যাকারীদের বিচার চাই। আমি প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানাই। আইনের ফাঁক থেকে আমার বাবার হত্যাকারীরা বেরিয়ে এসেছে। আমি তাদের বিরুদ্ধে সঠিক বিচার চাই। হত্যা মামলার আসামীরা হলেন-তোতা মিয়া, ফজল মিয়া, দুলা মিয়া, সুরুজ মিয়াসহ আরো অনেকে। ঘটনার পর থেকে শাকিলার শ্বশুর শাশুড়ী পলাতক রয়েছে। শাকিলা সুলতানা রিমা তার বাবার হত্যাকারী ও শ্বশুর-শাশুড়ী এবং স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরের পর থেকে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com