সোমবার, ০৬ Jul ২০২০, ১২:৫২ অপরাহ্ন

জেলা প্রশাসকদের দেশ প্রেমিক হতে বললেন-প্রধানমন্ত্রী ॥ ইউএনও’র কার্যালয়ে জনবল চাইলেন হবিগঞ্জের ডিসি

জেলা প্রশাসকদের দেশ প্রেমিক হতে বললেন-প্রধানমন্ত্রী ॥ ইউএনও’র কার্যালয়ে জনবল চাইলেন হবিগঞ্জের ডিসি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জনগণের কল্যাণে জেলা প্রশাসকদের কেবল সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে নয়, দেশপ্রেমিক হিসেবে নিজেদের দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে নিজ কার্যালয়ে জেলা প্রশাসকদের তিন দিনব্যাপী সম্মেলন উদ্বোধনকালে এ আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন তিনি। ৩০ জুলাই পর্যন্ত চলবে এই  ডিসি সম্মেলন। পুরাতন ধ্যানধ্যারণা পরিবর্তন করে নতুনভাবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জেলা প্রশাসক হিসেবে যারা নতুন দায়িত্ব নিয়েছেন তাদের জন্য জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যারা পুরনো কর্মকর্তা রয়েছেন তারাও এ সম্মেলন থেকে নতুন ধারণা পাবেন। এই ধারণাগুলো মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়ন করতে হবে। তিনি বলেন, আপনাদের মনে রাখতে হবে বাংলাদেশ স্বাধীন দেশ। ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের  দেশে পরিণত করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসকদের কাজ করার নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা। অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিশ্ব মন্দার মধ্যে আমরা সরকার গঠন করেছিলাম। সে সময়ও আমরা প্রবৃদ্ধি ৬ ভাগ ধরে রেখেছিলাম। এখন রপ্তানি ৩ গুণ বেড়েছে। রেমিটেন্স ৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে ৬ গুণ। ৫ কোটি মানুষ নিম্ন-মধ্যবিত্ত থেকে মধ্যবিত্তে উঠে এসেছে। গতানুগতিক কাজের পরিবর্তে নতুন নতুন ধারণা ও কৌশল নিয়ে নিজ নিজ জেলার উন্নয়নে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেন, ক্ষমতার ধারাবাহিকতার কারণেই দেশের উন্নয়ন হচ্ছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদা পাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি। সব ভয়-ভীতি ও প্রলোভনের ঊর্ধ্বে থেকে আইনের আওতায় দায়িত্ব পালন করতে জেলা প্রশাসকদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, রাষ্ট্র তথা জনগণের স্বার্থ সংরক্ষণই হবে আপনাদের মূল লক্ষ্য। সেবার মনোভাব নিয়ে সত্য ও ন্যায়ের পথে অবিচল থাকলে আপনাদের পক্ষে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন সম্ভব হবে। চলতি বছরের শুরুতে রাজনৈতিক কর্মসূচির মধ্যে নাশকতা দমনে জেলা প্রশাসকদের ভূমিকার প্রশংসা করে তিনি বলেন, প্রাকৃতিক সমস্যা থেকে মনুষ্যসৃষ্ট সমস্যা আরও কঠিন ছিল। সেগুলো আপনারা যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছেন। আপনারা সক্রিয় ছিলেন বলেই এ ধরনের অবস্থা থেকে আমরা উত্তরণ ঘটাতে পেরেছি। ভবিষ্যতে যাতে ‘এ ধরনের কাজ’ কেউ করতে না পারে সে বিষয়েও সজাগ থাকার নির্দেশ দেন তিনি। মন্ত্রিসভার সদস্য, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। দেশের সব জেলার প্রশাসকদের নিয়ে সরকারের নীতি নির্ধারকদের তিন দিনের এই সম্মেলনের উদ্বোধন হয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে। জেলা প্রশাসকরা ছাড়াও মন্ত্রী পরিষদের সদস্য এবং প্রশাসনের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা এ অনুষ্ঠানে অংশ নেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম মোশাররাফ হোসাইন ভুইঞা এতে স্বাগত বক্তব্য দেন। অন্যান্যের মধ্যে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার এম আবদুল্লাহ, সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম এবং লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। তথ্য প্রযুক্তি খাতে অবদান রাখায় একজন বিভাগীয় কমিশনার ও তিনজন  জেলা প্রশাসকের হাতে ‘ডিজিটাল সেবা পুরস্কার’ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। তারা হচ্ছেন রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার দেলওয়ার বখত্, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন, পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক এম সালাহউদ্দিন এবং নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান মিয়া। তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলনের ১৮টি অধিবেশনে ৩৯টি মন্ত্রণালয়ের ২৫৩টি প্রস্তাবের ওপর আলোচনা হওয়ার কথা। জেলা প্রশাসক সম্মেলনের মাধ্যমে কেন্দ্রের সঙ্গে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদে সরাসরি মত বিনিময়ের একটা সুযোগ সৃষ্টি হয় উল্লেখ করে  প্রধানমন্ত্রী বলেন, সমস্যা নির্ধারণ ও সমস্যা উত্তরণের জন্য এ সম্মেলন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মাঠপর্যায়ে সরকারের নীতি বাস্তবায়ন, জনগণ ও সরকারের মধ্যে সেতুবন্ধন হিসেবে জেলা প্রশাসকগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মূলত জেলা প্রশাসনে যারা রয়েছেন তাদের উপরই একটি জেলার সার্বিক উন্নয়ন নির্ভর করে। জেলা প্রশাসকের কার্যক্রম উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভূমি ব্যবস্থাপনা, নির্বাচন পরিচালনা, ভেজাল বিরোধী অভিযান, পরিবেশের সুরক্ষা, গাছ লাগানো, পাহাড় কাটা বন্ধ করা, পাবলিক পরীক্ষা পরিচালনা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি জেলা প্রশাসক বাস্তবায়ন করে। সম্মেলনে জেলা প্রশাসকদের রুটিন ওয়ার্কের বাইরেও বিভিন্ন কাজ খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, একটি জেলাকে কিভাবে আরো উন্নত করা যায় সেদিকে ডিসিদের দৃষ্টি দিতে হবে। কোন জেলায় কি সমস্যা রয়েছে এবং তা সমাধান করতে কি কি পদক্ষেপ নেয়া যায় তা নিয়ে চিন্তা ও সে অনুযায়ী কাজ করতে পরামর্শ দেন তিনি। কোন জেলায় কি ফসল উৎপাদন হয়। উৎপাদন আর কিভাবে বাড়ানো যায় তা নিয়েও কাজ করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। এদিকে ডিসি সন্মেলনে বক্তব্যকালে হবিগঞ্জের নবাগত জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে কাজের গতিশীলতা বাড়াতে প্রশাসনিক কর্মকর্তার একটি পদ সৃষ্টি করার প্রস্তাব করেন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে আরো জনবল বৃদ্ধির দাবী জানান তিনি। হবিগঞ্জের এই প্রথম নারী জেলা প্রশাসক হিসাবে ২৪ শে জুন যোগদান করেন তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com