রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
আজ ৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস স্বাধীনতার ৪২ বছরেও গণহত্যা এলাকার ক্ষতিগ্রস্তরা পায়নি কিছুই

আজ ৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস স্বাধীনতার ৪২ বছরেও গণহত্যা এলাকার ক্ষতিগ্রস্তরা পায়নি কিছুই

আব্দুল হালীম ॥ আজ ৬ ডিসেম্বর। হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধাদের প্রবল প্রতিরোধে হবিগঞ্জ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়। মুক্ত হয় হবিগঞ্জ জেলা। পতাকা উত্তোলন করা হয় স্বাধীন বাংলাদেশের। কিন্তু স্বাধীনতার ৪২ বছরেও স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার কাজ সম্পন্ন হয়নি। তাছাড়া হবিগঞ্জের অবহেলিত মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসন ও বধ্যভূমি, গণকবরগুলো সংরক্ষণ, গণহত্যা এলাকার হতাহতদের পরিবারের লোকদের সাহায্য-সহযোগিতা এবং স্মৃতিসৌধ নির্মানের দাবি স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের।
১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় তেলিয়াপাড়া ডাকবাংলো থেকে সারা দেশকে মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টর বিভক্ত করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের উপ সর্বাধিনায়ক মেজর জেনারেল এম এ রব (বীরোত্তম) ও মেজর জেনারেল এজাজ আহমেদ চৌধুরীর নির্দেশে ভারতের খোয়াই বাঘাই ক্যাম্পের ২২ কোম্পানীর ৩৩ মুক্তিফৌজ নিয়ে গঠিত ১ নং প্লাটুন কমান্ডার আব্দুস শহীদের নেতৃত্বে ৩ ডিসেম্বর হবিগঞ্জের বাহুবলে অবস্থান নেয়। এর পর তারা কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে হবিগঞ্জের বিভিন্ন পাক ক্যাম্পে হামলা চালায়। এ সময় বেশ কয়েকজন পাকসৈন্য প্রাণ হারায়। একটানা ৩ দিনের অভিযানের পর ৬ ডিসেম্বর ভোরে পাক বাহিনী পালিয়ে যায়। এ সময় মুক্তিযোদ্ধারা বিজয়ের বেশে সারা শহর প্রদক্ষিণ করে সদর থানায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। ওই দিন একই সাথে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ, লাখাই, চুনারুঘাট ও অন্যান্য উপজেলাও মুক্ত হয়। আর এ হবিগঞ্জ মুক্ত করতে গিয়ে বানিয়াচং উপজেলার মাকালকান্দি, লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর, চুনারুঘাট উপজেলার লাল চান চা বাগান, নালুয়া চা বাগান ও বাহুবল উপজেলার রশিদপুর সহ বিভিন্ন স্থানে সহস্রাধিক মুক্তিকামী নারী-পুরুষকে প্রাণ দিতে হয়েছে।
কিন্তু ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধে জেলার ২৭ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। যুদ্ধে আহত হন ৩৭ জন মুক্তিযোদ্ধা। এছাড়া নিরীহ অসংখ্য মানুষ নর-নারী ও মুক্তিযোদ্ধা হানাদারদের নির্মম নিষ্ঠুরতার শিকারে শহীদ হন। এসব শহীদদের জন্য তেলিয়াপাড়া, ফয়জাবাদ, কৃষ্ণপুর, নলুয়া চা বাগান, বদলপুর, মাকালকান্দিতে বধ্যভূমি নির্মিত হয়। হবিগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা ও তরুণ প্রজন্মের দাবি অবিলম্বে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কাজ সম্পন্ন, অবহেলিত মুক্তিযোদ্ধাদের পূনর্বাসন ও গণহত্যা, বধ্যভূমি ও মুক্তিয্দ্ধুকালীন স্মৃতিস্থানগুলো সংরক্ষণ করা হউক। পাশাপাশি গণহত্যা এলাকাগুলোতে এখনো যারা পঙ্গু, ক্ষতিগ্রস্ত ও হতাহতদের পরিবারগুলোর অবর্ণনীয় দূরাবস্থা ও তাদের পূনর্বসানের উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও ভূক্তভোগীরা।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও ৬ ডিসেম্বর পাক বাহিনীকে হঠিয়ে শহর দখলকারী আব্দুস শহীদ বলেন, মেজর জেনারেল শফিউল্লাহ, মেজর জেনারেল আজিজুর রহমান ও মেজর জেনারেল এজাজ আহমেদ এর নির্দেশে ও তার নেতৃত্বে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার কালেঙ্গা ফরেষ্টে বড় একটি অভিযান পরিচালনা করা হয়। ওই অভিযানে তারা ১১২ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। তিনি জানান, ৫ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধের উপ-সর্বাধিনায়ক মেজর জেনারেল এম এ রব (বীরউত্তম) এর গ্রাম খাগাউড়াতে একটি অভিযান পরিচালনা করা হয়। সেখানে ২২ জন রাজাকারকে আটক করে স্থানীয় থানায় সোপর্দ করা হয়। ৫ ডিসেম্বর রাতেই হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পৈল গ্রামে অব¯’ান করে তার দল। পরদিন ৬ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় পাক বাহিনীকে হঠিয়ে জেলা শহর হানাদার মুক্ত করা হয়। ৬ ডিসেম্বর অভিযান শেষে ৭০ জন রাজাকার- আলবদরকে আটক করে সদর থানায় হস্তান্তর করে মুক্তিসেনারা। তিনি বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধে হবিগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে লড়াই করেছেন। কিন্তু সেই মুক্তিসেনারা সবচেয়ে বেশী অবহেলিত। তাছাড়া অধিকাংশ মুক্তিযোদ্ধা নানা সমস্যায় দিন কাটাচ্ছে। এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা জাহেদুল ইসলাম বলেন, যুদ্ধকালীন সময়ে সম্মুখ সমরে ও গণহত্যাকালে যারা হতাহত হয়েছিল অদ্যাবধি পর্যন্ত তারা কেউই কোন সহযোগিতা পায়নি। তাদের অধিকাংশই চরম দুঃখকষ্টে দিন কাটাচ্ছে।
হবিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার এডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান বলেন, ৭১ এর ৬ ডিসেম্বর মিত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনীর যৌথ অভিযানে হানাদাররা পিছু হটতে থাকে। ৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ থেকে ব্রাহ্মনবাড়িয়া পর্যন্ত মুক্ত হয়। তিনি বলেন, ৭১ এর যুদ্ধকালে দেশ বিরোধী রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু জামাত-শিবির এ বিচার প্রক্রিয়া নস্যাত করতে নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। এডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও যুদ্ধক্ষেত্র, মুক্তিযুদ্ধের বধ্যভূমি, চারণভূমি সংরক্ষণের জন্য মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পরপর একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। কিন্তু এ পর্যন্ত হবিগঞ্জের কোন স্থানে স্মৃতিসৌধ নির্মান, বধ্যভূমি ও গণকবরগুলো সংরক্ষণের কোন কাজ শুরু হয়নি। তা সত্যিই মুক্তিযোদ্ধা তথা মুক্তিকামী মানুষের জন্য দুঃখজনক।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com