শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
পিআইবি’র উদ্যোগে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে ৩ ধাপে ৮দিন ব্যাপী সাংবাদিক কর্মশালা শুরু নবীগঞ্জ ও বানিয়াচঙ্গে এক দিনে বিষপানে ২ জনের আত্মহত্যা নবীগঞ্জে জগলু হত্যাকান্ড ॥ ২৫ বছর পর ১ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড মুসলিম উম্মা’র বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে ফ্রান্সÑমাওঃ আবু ছালেহ্ ছাদী হবিগঞ্জে নতুন করে ৩ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জ বিজ্ঞান মেলায় ২য় ও ৩য় স্থান অর্জন করেছে উদ্ভাবনী বিজ্ঞান ক্লাব শায়েস্তাগঞ্জে স্কুলছাত্রীর বিয়ের আয়োজন পুলিশ দেখে হয়ে গেল মিলাদ অনুষ্ঠান চুনারুঘাটে বাথরুমের পানির বালতিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু হবিগঞ্জে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ:) কনফারেন্স সমাপ্ত ৮ মাস পর খুলছে চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান
শহরে নিয়ম না মেনে পশু জবাই করে মাংস বিক্রি ॥ তালিকার চেয়ে অতিরিক্ত মূল্য রাখার অভিযোগ

শহরে নিয়ম না মেনে পশু জবাই করে মাংস বিক্রি ॥ তালিকার চেয়ে অতিরিক্ত মূল্য রাখার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের বিভিন্ন স্থানে ডাক্তারি পরীক্ষা ছাড়াই পশু জবাই করে মাংস বিক্রি করছেন অসাধু কসাইরা। শুধু তাই নয় তালিকার চেয়ে অতিরিক্ত দামের বিক্রি করা হচ্ছে। এমনকি ওজনেও কম দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া রাতের বেলা লোকচুর আড়ালে জবাই করা অসুস্থ গবাদিপশু সহ দুই তিনদিনের ফ্রিজের মাংসও বিক্রি করা হচ্ছে। এমনকি রাতে জবাই করা মহিষ দিনে গরুর মাংস বলেও বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে কসাইদের বিরুদ্ধে। এতে হবিগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন শহরবাসী।
জবাইয়ের আগে প্রতিটি গবাদিপশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার দায়িত্বে ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও, পশু জবাইখানায় রাতের বেলা ডাক্তারের দেখা মিলে না বললেই চলে। অথচ বেশিরভাগ পশুই রাতের বেলা জবাই করা হয়।
সচেতন মহল বলছেন, এসব গবাদিপশুর বিভিন্ন জটিল রোগ থাকতে পারে। রোগ পরীক্ষা ছাড়া পশু জবাই করা এবং বিক্রি করা কোনো অবস্থাতেই ঠিক নয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের রোগ নির্ণয়ে কোনো ধরনের তদারকি না থাকার ফলে সাধারণ ক্রেতারা ভেজালমুক্ত মাংস খাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগর, কোর্ট স্টেশন, চৌধুরী বাজার, সিনেমা হল সহ বিভিন্ন এলাকার প্রায় অর্ধশতাধিক মাংসের দোকান রয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশেরই লাইসেন্স নেই। তবে শহরের বেশির ভাগ দোকান হচ্ছে শায়েস্তানগর বাজারে। পৌরসভা থেকে মাংসের দামের তালিকা দেয়া হয়েছে। গরু প্রতি কেজি ৫৫০ টাকা, কিন্তু বিক্রি করা হচ্ছে ৬শ থেকে ৬৫০ টাকায়, মহিষ ৫শ টাকা, বিক্রি করা হচ্ছে ৫৫০ টাকা থেকে ৬শ টাকায়, খাসি ৭৫০ টাকা, কিন্তু বিক্রি করা হচ্ছে ৮৫০ টাকায়, ছাগল ও ভেড়ার মাংস ৫শ টাকা, বিক্রি করা হচ্ছে ৬শ টাকায়। এর মাঝে প্রতি কেজি মাংসে ওজনে কম দেয়া হয় ১শ থেকে ১৫০ গ্রাম।
জানা যায়, নির্ধারিত জবাইখানায় সব পশু জবাই করা হয় না। বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্নভাবে নোংরা পরিবেশে পশু জবাই করে বিভিন্ন মাংসের দোকানে বিক্রি করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী পশু জবাইয়ের আগে ভেটেরিনারি ডাক্তারের পরীক্ষার পর নির্ধারিত মৌলভী জবাই করবেন। এরপর ভেটেরিনারি ডাক্তার পশুর মাংসের গায়ে সিল মারেন। গরুর মাংসের গায়ে গরুর মাংস আর মহিষের মাংসের গায়ে মহিষের মাংস হিসেবে সিল মারার নিয়ম রয়েছে।
অভিযোগ রয়েছে, মহিষ জবাই করে ব্যবসায়ীরা গরুর মাংস বলে বাজারজাত করছে। আর এসব মাংস চলে যায় বিভিন্ন নামিদামি ও জনপ্রিয় রেস্টুরেন্টগুলোতে। সেখানে গরুর মাংস বলে সাধারণ মানুষকে খাওয়ানো হচ্ছে দেদারছে। ইতোপূর্বে বেশ কয়েকবার ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে জরিমানা করলেও এসব বন্ধ হচ্ছে না। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন শহরবাসী।
পৌর মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, পৌরসভা থেকে তালিকা দেয়া হয়েছে। নিয়ম না মানলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান জানান, যদি এরকম হয় তবে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com