শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০১:২৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জ পৌর এলাকায় খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজী এমপি সরকারি কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের মাঠে থাকার আহবান জানালেন এমপি আবু জাহির রিচি গ্রামে শ্রমজীবী মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জে উপকারভোগীদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ লাখাইয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জ সদর উপজেলা ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের সাথে জরুরী সভা এনজিও সংস্থা ব্র্যাকের উদ্যোগে নগদ টাকা বিতরণ মাধবপুরে কাল বৈশাখী ঝড় ও শিলা বৃষ্টি ॥ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি চুনারুঘাটে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সেনাবাহিনীর টহল অব্যাহত আজমিরীগঞ্জে প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর যৌথ অভিযান ॥ ৮ প্রতিষ্টানকে অর্থদন্ড
৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জ্বিনের বাদশা ! ॥ সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি পাগল প্রায় ॥ আতঙ্ক গ্রস্থ পরিবার

৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জ্বিনের বাদশা ! ॥ সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি পাগল প্রায় ॥ আতঙ্ক গ্রস্থ পরিবার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ এক ব্যক্তিকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে কথিত জ্বিনের বাদশা ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। আরো টাকার জন্য কথিত ওই জ্বিনের বাদশা ওই ব্যক্তিকে স্বপরিবারে হত্যাসহ বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিয়ে যাচ্ছে। সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি ও তার পরিবার পাগল প্রায়। টাকার শোকে যে কোন সময় অঘটন ঘটার আশঙ্খাও করছেন তার স্বজনরা। উপায়ান্তর না পেয়ে কাদির নামে ওই ব্যক্তি আদালতের স্মরনাপন্ন হয়েছেন।
মামলা সূত্রে জানা যায়, কাদির গ্রামের বাড়িতে একটি জায়গা ক্রয় করার জন্য পাশের বাড়ির লোকের সাথে আলাপ আলোচনা করে চুড়ান্ত করেন। পরবর্তীতে ওই জায়গা ক্রয় বাতিল হয়ে যায়। এতে তার নিকট গচ্ছিত থাকে ৮/১০ লাখ টাকা। কোন না কোন ভাবে ওই খবর পেয়ে যায় প্রতারক চক্র। এতে তারা কাদিরের নিকট থেকে টাকাগুলো হাতিয়ে নেয়ার ফন্দি আটতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় কাদির ও তার মেয়ের মোবাইলে অনবরত ফোন করে। রিসিভ করতেই ওপর প্রান্ত থেকে বলা হয় ‘আমি জ্বীনের বাদশা বলছি, তুই ঘুমে আছস কেন ? তোর নার্স মেয়ে (অমুক) কে ২৪ ঘন্টার মধ্যে তার কর্মস্থল থেকে অপরহরণ করা হবে। তোর অপর মেয়ে (অমুক) কেও তুলে আনিয়া অপহরণ করিয়া লাশ গুম করিয়া ফেলিব। তোর মায়ের মতো তোদের পরিবারের সবাইকে জ্বীনে ধরিয়া মারিয়া ফেলিব। এই বলে মোটা অংকের টাকা চাঁদা দাবী করে আসে। এছাড়া পরিবারের অনেক গোপন কথা বলে তাকে বিভিন্ন ভাবে ওয়াজের সুরে ভয় দেখাইতে থাকে। আরো বলে কাদির ও তার ছেলে-মেয়েরা বাচিতে চাইলে জ্বীনের বাদশার কথামত দাবীকৃত টাকা পয়সা দিতে হবে। এতে কাদির ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে তাকে ও তার ছেলে-মেয়েকে অপহরণ করে খুন না করার জন্য এবং জ্বীনের বাদশার দ্বারা পরিবারের ক্ষতি না করার জন্য অনুনয় বিনয় করে জ্বীনের বাদশার কথামত তার দাবীকৃত টাকা দিতে রাজি হন। জ্বীনের বাদশা তাকে এও বলে যে, সব কিছুই সে কারো নিকট বলতে পারবে না, বললে তাকে ও তার ছেলে-মেয়েকে অপহরণ ও খুন করা হবে।
মামলায় বলা হয়, কাদির জ্বিনের বাদশার দেয়া নির্দেশনা মেনে সব কিছু গোপন রেখে গত ১৭ জানুয়ারী শুক্রবার মিলন নামের জ্বীনের বাদশার দেয়া ভিন্ন ভিন্ন বিকাশ নম্বরে ভিন্ন ভিন্ন বিকাশ এজেন্ট থেকে ৩লাখ ৬৫ হাজার টাকা বিকাশ করেন। ২৪ জানুয়ারী ২ লাখ টাকা এবং ২৮ জানুয়ারী ৩ লাখ ৩৪ হাজার ২৯০ টাকা প্রেরণ করেন। জ্বীনের বাদশার দেয়া ভিন্ন ভিন্ন বিকাশ নম্বরে সর্বমোট ৮ লাখ ৯৯ হাজার ২৯০ টাকা বিকাশ করেন কাদির। এর পর বুঝতে পেরে কাদির টাকা পাঠানো বন্ধ করে দেন। এর পর থেকে কথিত জ্বিনের বাদশা মোবাইল করে কাদিরকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হত্যার হুমকী দিয়ে আসছে। এ অবস্থায় কাদির পরিবার পরিজন নিয়ে পড়েছেন বিপাকে। পরবর্তীতে স্বজনদের নিকট তার এ অবস্থার বর্ণনা দেন। কাদির কথিত জ্বিনের বাদশার দেয়ার বিকাশ নম্বর গুলো উল্লেখ করে আদালতে মামলা করেন। বিজ্ঞ বিচারক সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে মামলাটি এফআইআর করে তদন্তের নির্দশ প্রদান করেছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com