বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজমিরীগঞ্জে সম্পত্তির জন্য বাবাকে গলাকেটে হত্যা ॥ স্ত্রী সন্তান পলাতক ॥ মাথা নদীতে আর দেহ ফেলে দেয় জঙ্গলে থামছেই না চোরাচালান ॥ প্রতিদিনই আসছে ভারতীয় পণ্য ॥ এবার সীমান্তে বিপুল পরিমান মোবাইল ফোন ও টুথপেস্ট জব্ধ নবীগঞ্জে শিক্ষিকাকে উত্যক্ত করার দায়ে বখাটের কারাদণ্ড জাতির পিতার দর্শন থেকে তরুণ প্রজন্মকে শিক্ষা নিতে হবে-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে ইরি বোরো জমি চাষাবাদে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি ॥ মামলা দায়ের ১৩ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল লাখাইয়ে মফিজুল হত্যা ॥ আসামিদের বাড়ি-ঘরে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট মাধবপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নের গণফোরামের রমজানপুর-উমরপুর ওয়ার্ড কমিটি গঠিত হবিগঞ্জ আই.এফ.সি’র দরিদ্রদের মাঝে সেলাই মেশিন ও অসুস্থ রোগীদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ সেচ প্রকল্পের আয়তন বাড়েনি তবুও এক বছরে আড়াই লাখ টাকার অতিরিক্ত বিল প্রদান
আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ নিহত ১ ॥ পর্তুগালে নবীগঞ্জের ২ প্রবাসী গ্রেফতার

আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ নিহত ১ ॥ পর্তুগালে নবীগঞ্জের ২ প্রবাসী গ্রেফতার

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ পর্তুগালে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ী বিষয় নিয়ে প্রবাসী দুই গ্রুপের মধ্যে সংর্ঘষ হয়েছে। সিলেটের ওসমানীনগরের পশ্চিম পৈলনপুর ইউপির বাসিন্দা ও পর্তুগাল আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ফরহাদ আহমদ এবং নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউপির কালাভরপুর গ্রামের বাসিন্দা ও পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি অলিউর রহমানের মধ্যে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ী বিষয় নিয়ে সংঘর্ষে ফেঞ্চুগঞ্জের একজন নিহত ও ৫ জন মারাত্মক ভাবে আহত হয়েছেন। পর্তুগালের বাংলা মার্কেট খ্যাত লিজবনের মার্টিম মনিজে স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৯টার দিকে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত শনিবার উভয় পক্ষ দা-চাপাতি ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে হয়। এতে ৫ জন গুরুতর আহত হন। আহতদের পর্তুগালের লিবসনের হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন একজন মারা যান। নিহত ব্যক্তির নাম সাহেদ আহমদ (৩৮)। স্থানীয় সূত্র অনুযায়ী, সংঘর্ষে নিহত ব্যক্তির নাম সাহেদ আহমদ (৩৮)। তিনি সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা ও পর্তুগাল আওয়ামী লীগের একজন সক্রিয় কর্মী। সংঘর্ষে ফেঞ্চুগঞ্জের আরো ৪ জন গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। এদিকে গতকাল রোববার রাত থেকে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে অভিযানে নামে পর্তুগাল পুলিশ। রাতে পুলিশ অলিউর রহমান চৌধুরী আরইশস্থ বাসভবনে তল্লাশী চালায়। এ সময় তার দুই ছেলেকে গ্রেপ্তার করার খবর পাওয়া গেছে। তবে অলিউর রহমানের পরিবারের সাথে যোগযোগ করা হলে তিনি মারামারির কথা স্বীকার করেন। নিহত ও গ্রেফতারের কথা অস্বীকার করেন। তিনি বলেন রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে সংঘর্ষ নয়। একটি মসজিদ নির্মান নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে। কালাভর পুর গ্রামের একজন প্রবাসী নাম প্রকাশ না করে জানান, অলিউর রহমানের ৪ ছেলে পর্তুগালে থাকেন, কোন দুই জন গ্রেফতার হয়েছে তিনি নাম প্রকাশ করছেন না। তবে গ্রেফতারের বিষয়ে তিনি সত্যতা নিশ্চিত করেন। এদিকে অলিউর রহমানের ছোট ভাই আমিন চৌধুরী ও এক আত্বীয় রনি মোহাম্মদ ফেসবুক লাইভে মারামারি ঘটনাটি মসজিদ প্রচার করেছেন। ইতিমধ্যে ঘটনার সঙ্গে জড়িত উভয়পক্ষ গা ঢাকা দিয়েছে। উক্ত ঘটনায় বাঙালী পাড়ায় গোয়েন্দা নজরদারী ও পুলিশী তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন ও পর্তুগীজ অধিবাসীদের মধ্যে বাঙ্গালী কমিউনিটির এই ঘটনায় বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করছে। যা পরবর্তীতে প্রবাসী বান্ধব পর্তুগাল বাঙ্গালী অভিবাসী প্রত্যাশীদের জন্য মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে। এই বিষয়ে সংবাদ পর্তুগালের টেলিভিশন ও সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে। এহেন ঘটনায় সাধারণ বাঙ্গালী কমিউনিটিতে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com