বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৮:০২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মৌলভীবাজারে বিয়েতে দাওয়াত খেতে গিয়ে উমেদনগরের মা-মেয়ে আগুনে পুড়ে নিহত কিবরিয়া হত্যার বিচার ও খোয়াই খননে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানালেন-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে ভাগনার সাথে খালার বিয়ে ॥ এলাকাজুড়ে তোলপাড় ! নবীগঞ্জের ঘোনাপাড়া গ্রামে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ বাহুবলে গ্যাস নিতে গিয়ে ২ সিএনজি চালকের মৃত্যু মাদক ছেড়ে সৃজনশীল কাজ করতে হবে-পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ কাউরিয়াকান্দি হযরত শাহজালাল (রহ:) উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদায় অনুষ্ঠান-নবীন বরন ও বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ভ্রাম্যমান আদালতে ৩ মাদকসেবীর কারাদন্ড ॥ ম্যাজিস্ট্রেট, চুনারুঘাট থানার ওসি, সহকারী পরিচালক মাদকদ্রব্যকে লিখিত ব্যাখ্যা দেয়ার আদেশ সরকারি নিবন্ধন পেল সামাজিক সংগঠন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের হবিগঞ্জ জেলা কমিটি গঠন
হবিগঞ্জ পৌরসভার করমেলায় দু’দিনে মোট আদায় হয়েছে ৪১ লাখ টাকা

হবিগঞ্জ পৌরসভার করমেলায় দু’দিনে মোট আদায় হয়েছে ৪১ লাখ টাকা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পৌরকর পরিশোধ করলে পৌরপরিষদ হবিগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নে আরো সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারবে-এমপি মোঃ আবু জাহির।
‘আমি পৌরপরিষদকে পরামর্শ দিয়েছি যাতে পৌরবাসীর উপর করের বোঝা চাপানো না হয়। পৌরকর বৃদ্ধি না করে করের পরিধি বাড়িয়ে কর আদায় বৃদ্ধি করা যায়। হবিগঞ্জ পৌরসভার দুদিনব্যাপী পানির বিল ও পৌরকর মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে এসব কথা বলেন হবিগঞ্জ-লাখাই-শায়েস্তাগঞ্জের সংসদ সদস্য এডঃ মোঃ আবু জাহির। তিনি বলেন ‘পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান ও তাঁর পরিষদ পৌরবাসীর পৌরকর বৃদ্ধি করেনি বলে তাদেরকে অভিনন্দন জানাই।’ এডঃ মোঃ আবু জাহির বলেন, ‘ইতিপূর্বে হবিগঞ্জে কোনদিন কোন স্থানীয় সরকারী মন্ত্রী আসেননি। মুলত হবিগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নকে তরান্বিত করার জন্য আমরা স্থানীয় সরকার মন্ত্রীকে নিয়ে এসেছি। এতে করে ভবিষ্যতেও হবিগঞ্জ পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ পরিচালিত হবে। আবু জাহির এমপি বলেন, ‘ইতিমধ্যে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও তার পরিষদ হবিগঞ্জ পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন ও আবর্জনামুক্ত করতে ব্যাপকভাবে কাজ শুরু করেছেন। সাথে সাথে বিকল্প ভূমিতে হবিগঞ্জ পৌরসভার ডাম্পিং স্পট বাস্তবায়নের জন্য কাজ হচ্ছে। ডাম্পিং স্পট বাস্তবায়ন হলে হবিগঞ্জ শহর আরো পরিচ্ছন্ন শহরে রূপান্তরিত হবে। হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ইতিমধ্যে বাইপাস সড়ক ও পুরাতন খোয়াই নদীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু হয়েছে। এর ফলে হবিগঞ্জের জলাবদ্ধতা নিরসন হবে।’ সংসদ সদস্য বলেন ‘এই করমেলার মধ্য দিয়ে আমি হবিগঞ্জ পৌরবাসীর প্রতি অনুরোধ জানাতে যে, আপনারা যথাসময়ে পৌরকর পরিশোধ করুন। কারন পৌরকর পরিশোধে হবিগঞ্জ শহরের উন্নয়ন ছাড়াও উন্নয়নকাজে সরকারী ও দাতাসংস্থার বরাদ্দপ্রাপ্তি তরান্বিত হবে।’ সভাপতির বক্তব্যে মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, ‘যে প্রত্যাশা নিয়ে আপনারা আমাকে ভোট দিয়েছেন সে প্রত্যাশা আমি পূরন করতে চাই। আপনারা দেখেছেন ইতিমধ্যে আমি হবিগঞ্জ শহরকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করতে দিনে রাত কাজ শুরু করে দিয়েছি। বিভিন্ন এলাকায় ডাষ্টবিন দিয়েছি। ভবিষ্যতে আরো দেবো।’ মেয়র বলেন ‘আমরা স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর কাছ থেকে হবিগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নের আশ্বাস পেয়েছি। সংসদ সদস্য এডঃ মোঃ আবু জাহির আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।’ করমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কর নিরূপন ও আদায় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির আহবায়ক শেখ মোঃ উম্মেদ আলী শামীম। অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন পৌরকাউন্সিলর মোহাম্মদ জুনায়েদ মিয়া, গৌতম কুমার রায়, মোঃ আব্দুল আউয়াল মজনু, মোঃ আলমগীর, পিয়ারা বেগম ও অর্পনা পাল। সভা শেষে করদাতাদের হাতে পৌরসভার কর সম্মাননা সনদ ও গাছের চারা তুলে দেন প্রধান অতিথি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি। করমেলার দ্বিতীয় দিনে পৌরকর আদায় হয়েছে প্রায় ১৯ লাখ টাকা। পানির বিল আদায় হয়েছে ৭৮ হাজার টাকা। দুইদিনে পৌরকর আদায় হয়েছে ৩৯ লাখ টাকা ও পানির বিল আদায় হয়েছে ২ লাখ ৩১ হাজার টাকা। করমেলায় দু’দিনে মোট আদায় হয়েছে ৪১ লাখ ৩১ হাজার টাকা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com