রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স অনুষ্ঠিত ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি’র নির্বাচন ॥ শামছুল হুদা-আলমগীর প্যানেলের নিঙ্কুশ বিজয় নবীগঞ্জের ঘোলডোবা এম সি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি বিলুপ্ত মাধবপুরে দোকান থেকে ১১ বস্তা ভিজিডির চাল জব্দ যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানি ব্যবহারে গ্যাসের ভূমিকা শীর্ষক কনফারেন্সে এমপি আবু জাহির শহরের পুরাতন খোয়াই নদীতে ২৫০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সামাজিক সংগঠন ‘বন্ধু মেলা’ এর আহ্বায়ক কমিটি গঠন মাধবপুরে দু’মাদক পাচারকারীকে ভ্রাম্যমান আদালতের কারাদন্ড অসাধু বিদ্যুৎ কর্মচারীদের সহযোগিতায় শহরের অর্ধশতাধিক অবৈধ টমটম গ্যারেজ নবীগঞ্জে বিয়ের প্রস্তাবে সম্মতি না দেয়ায় দুই বোনকে পিঠিয়ে আহত
তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে

তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তিতখাই-চান্দপুর ভায়া মির্জাপুর সড়কটি সংস্কারের অভাবে দু’টি উপজেলার কয়েকটি গ্রামের লোকজনকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তবে দ্রুত গতিতে রাস্তা সংস্কারের আশ^াস দিয়েছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী ওবায়দুল বাশার। জেলা সদর থেকে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া ইউনিয়নের চান্দপুর, গজারিয়াকান্দি, ধনার আব্দা, বানিয়াচং উপজেলা শাহপুর, রতনপুরসহ কয়েকটি গ্রামের দুরত্ব সাড়ে ৩ থেকে ৪ কিলোমিটার হবে। কিন্তু উল্লেখিত রাস্তারটি মির্জাপুর থেকে চান্দপুর এলাকা পর্যন্ত সংস্কার না করায় ওই এলাকাবাসীকে বর্ষা মৌসুমে চলাচলে চরম দুর্ভোগের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। গত এপ্রিল মাসে রাস্তারটি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন সংসদ সদস্য অ্যাডঃ মোঃ আবু জাহির। এরপর রাস্তাটির দেড় কিলোমিটার কার্পেটিং করার কাজ সম্পন্ন করতে ঠিকাদার ইটের সুরকী দিয়ে মেকাডম করেন। এর পর ২ মাস ধরে রাস্তারটি উন্নয়ন কাজ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া রাস্তার চৌড়ারখাড়া এলাকার খালের ব্রীজটি প্রায় ১০ বছর পূর্বে ভেঙ্গে গেলেও সংস্কারের কোন প্রকার উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এলাকার লোকজনকে চলাচলের জন্য নির্মিত অস্থায়ী সড়কটিও বর্ষা মৌসুমে পানিতে তলিয়ে যায়। ফলে এলাকাবাসীর চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ অবস্থায় এলাকাবাসীকে খোয়াই নদী দিয়ে নৌকা যোগে হবিগঞ্জে আসা যাওয়া করতে হচ্ছে। শুকনো দিনে শহরের চৌধুরী বাজার নতুন খোয়াই ব্রীজ এলাকার নুরুল হেরা মসজিদের সামন থেকে খোয়াই নদীর বাধ দিয়ে শাহপুর বাজার পর্যন্ত টমটম চলাচল করলেও একটু বৃষ্টি হলেই টমটম চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুর্ভোগে পড়েন এলাকার সাধারণ যাত্রীসহ বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা। এমতাবস্থায় রাস্তা সংস্কার ও চৌরারখাড়ায় খালে ব্রীজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে গজারিয়াকান্দি-ধনারআব্দা গ্রামের ব্যবসায়ী রাসেল মোড়ল জানান, প্রতি বছর খোয়াই নদীর বাধ ভেঙ্গে রাস্তাটি বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে যায়। পরিকল্পিত ভাবে রাস্তাটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছি। লুকড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ মজনু মিয়া জানান, হবিগঞ্জ জেলা সদর থেকে প্রায় সাড়ে ৩কিলোমিটার দুরত্ব আমাদের এলাকা। আমাদের এলাকাবাসীর চলাচলের জন্য তিতখাই-চান্দপুর ভায়া মির্জাপুর সড়কটি প্রায় ২৫/৩০ বছর পূর্বে নির্মাণ করা হয়। রাস্তার মাঝামাঝি স্থান চৌড়ারখাড়ায় একটি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছিল। প্রায় ১০ বছর পূর্বে খোয়াই নদীর বাধ ভেঙ্গে গজারিয়াকন্দি ও মির্জাপুরের হাওরের পানি প্রবল বেগে ওই ব্রীজ দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় ব্রীজটি দুর্বল হয়ে ভেঙ্গে যায়। এরপর ব্রীজটি নির্মাণে কোন উদ্যোগ নেননি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বিভিন্ন সময় খোয়াই বাধ ভেঙ্গে পানি প্রবাহিত হওয়ায় সড়কটিও বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে যায়। শুকনো মৌসুমে রাস্তাটি দিয়ে টমটম দিয়ে যাতায়াত করা গেলেও বর্ষা মওসুমে রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এতে এলাকাবাসীকে চরম দুর্ভোগের সম্মুখীন হতে হয়। জনদুর্ভোগ লাগবের জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেন। লুকড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার আবু তাহের জানান, এলাকাবাসীর দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে এমপি অ্যাডঃ মোঃ আবু জাহিরের প্রচেষ্ঠায় এ বছরের এপ্রিল মাসে রাস্তার দেড় কিলোমিটার কার্পেটিং করার প্রকল্প অনুমোদন হয়। পরবর্তীতে এমপি আবু জাহির ওই প্রকল্পের উন্নয়ন কাজে উদ্বোধন করেন। পরে ইটের কংক্রিট দিয়ে মেকাডম করার পর ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দেন। প্রায় ২ মাস ধরে কার্পেটিং কাজ বন্ধ রয়েছে। তিনি বলেন, রাস্তার কার্পেটিং কাজ ও যে স্থানগুলো ভেঙ্গে গেছে সেগুলো মাটি ভরাটসহ চৌরারখাড়ায় ব্রীজ নির্মিত হলে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাঘব হবে।
অভিযোগ উঠেছে, ঠিকাদার রাস্তায় কংক্রিট ফেলে যেটুকু কাজ করেছেন তাও সিডিউল অনুযায়ী করেন নি।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা প্রকৌশলী ওবায়দুল বাশার জানান, ঠিকাদারকে রাস্তার কার্পেটিং কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ঠিকাদার জানিয়েছেন বৃষ্টি কমলেই রাস্তার কার্পেটিং কাজ সম্পন্ন করবেন। চৌড়ারখাড়া খালে ব্রীজ নির্মাণের বিষয়ে তিনি বলেন, ব্যজি নির্মাণের জন্য প্রকল্পের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন হলেই ব্রীজের কাজ শুরু হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com