সংবাদ শিরোনাম : 

 **  নবীগঞ্জে সমাজসেবক নেহার চৌধুরীর পিতা ও মাতার স্মরণে কুলখানি সম্পন্ন **  পইলে রাস্তা উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করলেন এমপি এডঃ আবু জাহির **  বাহুবলে কলেজ ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার **  যারা বেইমানি করেছেন তাদের নামের তালিকা তারেক রহমানের টেবিলে জমা-জিকে গউছ **  নবীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে এডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর গণসংযোগ **  নোয়াবাদ গ্রামে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত **  লাখাইয়ে সভায় এমপি আবু জাহির নৌকা হচ্ছে জনগণের প্রতীক **  চুনারুঘাটে অপহরণ মামলার দায়ে মালেক জেল হাজতে **  এমপি আবু জাহিরকে জেলা মানবাধিকার (HRHF) কমিটির ফুলের শুভেচ্ছা **  এমপি আবু জাহির ১ম বিভাগ ক্রিকেটলীগ ॥ ন্যাশনাল ক্রিকেট ক্লাবকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে উত্তরণ সংসদ **  সায়হাম গ্র“প সর্বদা মানবতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে-সৈয়দ শাহজাহান **  পানিউমদার টঙ্গীটিলায় বার্ষিক ওরসে ভক্তবৃন্দের ঢল **  নবীগঞ্জের পৃথক-পৃথক এলাকায় সংঘর্ষে আহত ৮

বিপুল পরিমাণ সরকারী বই উদ্ধার মামলায় ॥ ২ আসামীর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের নতুন বাস টার্মিনালের ভাঙ্গারী দোকান থেকে উদ্ধার হওয়া ৫ সহশ্রাধিক নতুন বই বিক্রি করা হয়েছিল ৯ টাকা কেজি দরে। বানিয়াচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের এক কর্মচারী বইগুলো বিক্রি করে। গতকাল রবিবার বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে এই তথ্য জানায় গ্রেফতারকৃত আসামীরা। রবিবার রাত সোয়া ৯টায় হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম এক প্রেসব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বানিয়াচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের এক কর্মচারীর নিকট থেকে ৯ টাকা কেজি দরে ক্রয় করে বানিয়াচং উপজেলা সদরের দুলাল মিয়া নামে এক ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী। পরে লাখাই উপজেলার পশ্চিম বুল্লা গ্রামের সফর উদ্দিন ওরফে মনা মিয়ার কাছে ১৩ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে বানিয়াচং উপজেলার সাঘরদিঘীর পাড়ের মৃত দুদু মিয়ার ছেলে দুলাল মিয়া। ওই বই কালোবাজারীর ঘটনায় সর্বমোট গ্রেফতার করা হয় ৪ আসামী। তবে মুলহোতা বানিয়াচং উপজেলা শিক্ষা অফিসের কর্মচারী এখনো পলাতক রয়েছে বলেও জানান তিনি।
গত ১৪ জানুয়ারি সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ কোর্ট ষ্টেশন ফাড়ির পুলিশ শহরের পৌর বাস টার্মিনাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন শ্রেণির ৫ হাজার ৫৯০টি সরকারি নতুন বই জব্দ করে। এ সময় লাখাই উপজেলার পশ্চিম বুল্লা গ্রামের আমিরুল মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়া (৩০) ও একই গ্রামের নূর মিয়ার ছেলে হাশিম মিয়া (৩৫) কে গ্রেফতার করা হয়। পরদিন গ্রেফতারকৃত দুইজনসহ ৪ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন কোর্ট স্টেশন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়া হাসান।
তার দায়ের করা মামলায় গ্রেফতারকৃত রাসেল ও হাশিমের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ২৭ জানুয়ারি দুলাল এবং ২৮ জানুয়ারি মনা মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তাদেরকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোর্ট ষ্টেশন ফাড়ির এসআই সাইফুর রহমান। তিনি জানান, পলাতক আসামীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com